romantic sex choti সুন্দর শহরের ঝাপসা আলো – 48 Jupiter10

bangla romantic sex choti. “বাবুসোনা, ওই দেখ দলমাদল কামান …,” দুপুর তিনটের কড়া রোদে সুমিত্রার গৌরবর্ণ মুখ আপেলের মত লাল হয়ে গেছে। ফাল্গুনের শেষ সপ্তাহে বিষ্ণুপুরের রোদের উত্তাপের কোন ধারণাই ছিল না ওদের। কলকাতায় এখনও গরম পড়েনি ভাল করে। গরম কালেও সেখানে রোদের এমন জ্বালানে ঘামবিহীন উত্তাপ হয়না। তারা কলকাতার দরদর ঘামের ভ্যাপসা গরমএর সঙ্গেই পরিচিত।
“হ্যাঁ, তুমি গল্প করে শুনিয়েছিলে সেদিন,” সঞ্জয় সুমিত্রার ডান পাশে দাঁড়িয়ে ঝাঁঝাঁ রোদ থেকে মাকে আড়াল করার চেষ্টা করে। তার তামাটে গৌরবর্ণও রোদে রক্তিম।

[সমস্ত পর্ব
সুন্দর শহরের ঝাপসা আলো – 47 Jupiter10]

ছেলের অনুরোধে খুব উৎসাহ পায় সুমিত্রা। সে বলতে থাকে।
“মালভূমি কথাটা এসেছে মল্লভূম থেকে। এখানে মল্ল বংশের রাজারা রাজত্ব করতেন। তাদের ৪৯তম রাজা ছিলেন বীর হাম্বীর। তিনি রাজত্ব করেছিলেন ১৫৬৫ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৬২০ খ্রিস্টাব্দ। তখন বাংলা বৈষ্ণব ধর্মে ভেসে যাচ্ছে। শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু মাত্র ৩০ বছর আগে দেহত্যাগ করেছেন। রাজা হাম্বীরও বৈষ্ণব ধর্মে দীক্ষিত হলেন। তিনি বৈষ্ণব ধর্মে দীক্ষিত হলেও তিনি যে রাজা, তাঁর রাজধর্ম যে প্রজা পালন তিনি কখনো ভোলেননি। …”

romantic sex choti

বলতে বলতে তার নিচুস্বর ধীরে ধীরে আত্মপ্রত্যয়ী হয়, উচ্চগ্রামে চড়ে ততোধিক ধীরে।
“তারপর তারপর?…”
কথাটা এলো একটু দূর থেকে। সুমিত্রা ও সঞ্জয় তাকিয়ে দেখে একটি শ্যামবর্ণ কিশোর প্রশ্নটি করেছে। দেখে মনে হয় বছর বারোতেরো বয়স হবে তার। সঞ্জয় তার মার দিকে অবাক সম্ভ্রমভরা দৃষ্টি মেলে দাঁড়িয়ে থাকে।

আজ শনিবার। ১২ই মার্চ। আজই তারা ভোরের সাঁত্রাগাছি-পুরুলিয়ার ট্রেনে তারা সকাল সাড়ে নটার মধ্যে বিষ্ণুপুরে পৌঁছেছে। ট্রিপ অ্যাডভাইসরে সঞ্জয় মাত্র ১,৫০০ টাকা প্রতি রাত্রি হিসেবে ইচ্ছেপুরন নামক একটি হোটেল পেয়ে গেছিল। মাঝারি হোটেল, এসি রুম। তারা মাত্র শনিবার রাতে থাকবে। স্টেশন থেকে মাত্র দশ মিনিটের মধ্যে অটো তাদের হোটেলে পৌঁছে দেয়। হোটেলে চেক-ইন, প্রাতঃকৃত্যাদি, দুজনে একসঙ্গে শাওয়ারের তলায় দাঁড়িয়ে চান ও ব্রেকফাস্ট করে তারা সকাল এগারোটার মধ্যে আর একটা অটো ধরে। তিনশ টাকায় তাদের সারাদিন নিয়ে ঘুরবে অটো। romantic sex choti

রাসমঞ্চ থেকে টিকিট কেনে তারা সারাদিন বেড়ানর। একজন গাইড আসতে চাইছিল তাদের সঙ্গে। কিন্তু সুমিত্রা নেয়নি। সে বিষ্ণুপুরের উপর পড়াশুনো করেছে গত দুদিন ধরে দুপুরবেলার অবসরে। তার কথায় গত বুধবার সঞ্জয় কিনে এনে দিয়েছিল তাপস চক্রবর্তীর লেখা “একটি বিস্মৃত শহর বিষ্ণুপুর”। বোঝা যাচ্ছে সে বইটি প্রায় কন্ঠস্থ করেছে।
সুমিত্রা মৃদু হাসে। সে আবার বলা শুরু করে।

“তাঁর আমলেই এই বিশাল কামানটি নির্মিত হয়। কামানের আসল নাম, “দল মর্দন”। শত্রু মর্দন করার এই মহাস্ত্র,” তার পাশে ধীরে ধীরে জমায়েত হতে থাকা কিশোরকিশোরীদের দেখে সে আবার হাসে। এক গাইড নিজের চোখ রোদের থেকে আড়াল করে তার কথা শুনছে। সে বেঁটেখাটো, তার কালচে বর্ণ মুখে কয়েকদিনের না কামানো দাড়ি। সেও হাসে, “দিদিমণি, আপনি বলেন বটে! কথাট শুইনতে ভাইল লাইগছেক”, তার খয়েরে কাল হয়ে যাওয়া দাঁত বেরিয়ে পড়ে। romantic sex choti

এক কিশোরী তার দুই বেণী দুলিয়ে ছুটে যায় কামানের পিছন দিকে। চেঁচিয়ে বলে, “এই দ্যাখ, এখানে লেখা আছে, দৈর্ঘ্যে ৩.৮ মিটার, ব্যাস ২৯.২ সেন্টিমিটার…” সে আরও বলতে যাচ্ছিল চেঁচিয়ে। কিন্তু তার সহযোগীরাও চেঁচিয়ে বলে, “চলে আয়, গল্প শুনবি”।
সঞ্জয় লক্ষ্য করল কিশোরকিশোরীর দলের সবার একই ইউনিফর্ম। বোধহয় একই স্কুল থেকে এসেছে।
সুমিত্রা তার চারপাশে জড় হওয়া ছেলেমেয়েদের দিকে চেয়ে স্মিত হাসে, “তোমরা বুঝি স্কুল থেকে এসেছ?”

তারা সমস্বরে চেঁচিয়ে বলে, “হ্যাঁ দিদিমণি, আমরা বাঁকুড়া জেলা স্কুল থেকে এক্সকারশানে এসেছি, ওই যে আমাদের ইংরেজির দিদিমণি ও পিটি স্যার”।
ইংরেজির দিদিমণি ছোটখাট, বছর তিরিশেক বয়স, শ্যামলা গায়ের রঙ, প্রখর রোদে সবুজ আভা বিকীর্ণ করছে, তার মুখখানি ভারি মিষ্টি। পরনে তাঁর নীল তাঁতের শাড়ি। পাশেই উজ্জ্বল গৌরবর্ণ পিটি স্যার ব্যস্তসমস্ত ভাবে আর এক দল ছেলেমেয়ের সারিকে কন্ট্রোল করছেন। দাড়ি কামানো পরিষ্কার মুখে মোটা মানানসই গোঁফ। romantic sex choti

তাঁর পেটানো চেহারা। রঙ্গিন জামা প্যান্টের ভিতর গোঁজা। তিনি এসেই বললেন, “এই এখানে তোরা কি করছিস? লাইন ভেঙে বেরিয়ে এসেছিস কেন?”
“স্যার দেখুন, এই দিদিমণি মল্ল রাজাদের কামানের গল্প বলছেন,” কিশোরকিশোরীর দল আবার সমস্বরে বলল।
স্যার চওড়া করে হাসলেন, “তাই নাকি, আপনার কি ইতিহাসটা সাবজেক্ট নাকি? আমার কিন্তু ফিজিক্যাল এডুকেশন! ইতিহাসের কিছু বুঝি না। তবে গল্প শুনতে আমিও ভালবাসি। আপনি বলুন ম্যাডাম,”… সব ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্যে তিনি গলা উঁচু করে হাঁক পাড়লেন, “এই সবাই চুপ!”

সুমিত্রা এই আকস্মিক শ্রোতাদের নিয়ে সামান্য অপ্রতিভ হয়ে যায়। সঞ্জয়ের দিকে একবার ত্রস্ত দৃষ্টিতে তাকায়। যে কিশোরীটি ছুটে পড়তে গিয়েছিল কামানের পিছনে কি লেখা আছে তাকে সে জিজ্ঞেস করে, “তোমার নাম কি?”
সে চট জলদি উত্তর দেয় বেণী দুলিয়ে, “মালতী মাহাতো”।
“আরেকবার বলতো, কি লেখা ছিল কামানে?” romantic sex choti

মালতী দুই চোখ আকাশে তুলে মনে করার চেষ্টা করে, “দৈর্ঘ্যে ৩.৮ মিটার, ২৯.২ সেন্টিমিটার ব্যাস”
সঞ্জয় পাশ থেকে বলে, “মানে প্রায় ১২ ফুট লম্বা, সাড়ে তিনফুট পরিধি”।
“এত বড় কামান তৈরি হয়েছিল রাজা হাম্বীরের আমলে। কিন্তু ব্যবহার হয়নি প্রায় দুশো বছর,” সুমিত্রা শুরু করে, “একবারই মাত্র এর ব্যবহার হয়েছিল ১৭৪১ খ্রিস্টাব্দে।”

পাশে দাঁড়ানো বেঁটেখাটো গাইড এতক্ষণে মুখ খোলে, “হাঁ বটে, সিবার বুর্গিরা এসেছিল হানা দিতে, ভাস্কর রাও তাদের সেনাপুতি। ভগবান মদন-মুহন এই কামানট দেগে ভাগিয়ে দিয়েছিল তাদের!”
সুমিত্রা মাথা নাড়ে, “১৭০৬ খ্রিস্টাব্দের পর শিবাজী মহারাজের উত্তরসুরী মারাঠা বাহিনীর হাতে মুঘল সম্রাজ্য চূর্ণ বিচূর্ণ হয়ে যায়। ১৭৩৮ খ্রিস্টাব্দের পর মুঘল সাম্রাজ্যের বিস্তার “দিল্লি থেকে পালাম” এই বিদ্রূপ করা শুরু হতে থাকে। romantic sex choti

১৭৪১ খ্রিস্টাব্দে মারাঠা সাম্রাজ্য প্রায় পুরো ভারতে আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হয়। বাংলায় তখন সুলতান আলিবর্দি খাঁ। তিনি মারাঠা সেনাপতি ভাস্কর পন্ডিতের প্রথম আক্রমণ কোনোক্রমে ঠেকাতে সক্ষম হলেও, পরবর্তী কালে তাদের বশ্যতা স্বীকার করে চৌথ কর দিতে বাধ্য হন”।
সেই ভাস্কর পন্ডিতেরই আরেক নাম সেনাপতি ভাস্কর রাও। কথিত আছে, এই কামানের গোলার কাছে হার মেনে ভাস্কর রাও এর বর্গিরা আর বিষ্ণুপুরে ঢুকতে পারেনি”।

“তখন বিষ্ণুপুরের রাজা কে ছিলেন?” একজন কিশোর শ্রোতা হঠাত শুধোয়।
সুমিত্রা হেসে পাশে দাঁড়ান গাইডের দিকে তাকায়, “আপনি বলবেন?”
“তখন রাজা ছিল্যেন গোপাল সিংহ বটে,” গাইড মুখ খোলে। “তিনি বড় ধার্মিক ছিল্যেন। বর্গিদের খবর পেয়েই তিনি ভয়ে কেল্লায় ঢুকে পড়ে ভগবানের প্রার্থনা কইরছিল্যেন”। romantic sex choti

“হ্যাঁ, সবাই গড়ে ঢুকে পড়েছিলেন। হঠাত পরপর কামানের আওয়াজ! তারপর মারাঠা সেনাদের শোরগোল। তারপর তারা চলে যেতেই পুরো রাষ্ট্র হয়ে যায় যে স্বয়ং ভগবান মদনমোহন কৃষ্ণ এসে কামান দেগে বিষ্ণুপুর রক্ষা করেন”।
“আমাদের ক্লাসে কেন এত সুন্দর করে ইতিহাস পড়ায় না?” এক ছাত্রী উচ্চকিত মন্তব্য করে।
“আয়, চল চল, এরপর আমাদের এবার শ্যামরাই মন্দিরে যেতে হবে,” ইংরেজির দিদিমণি তাঁর ছাত্রছাত্রীদের বলেন।

পিটি স্যার বিকশিত হেসে ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে যেতে যেতে পিছন ফিরে বলেন, “দারুণ গল্প বলেন আপনি। আপনার ছাত্রছাত্রীরা নিশ্চয়ই ইতিহাসে ভাল রেজাল্ট করে!” স্যারের চোখে মুখে মুগ্ধতা।
সঞ্জয়ের মনে তার চেয়ে বেশি মুগ্ধতা। সে যেন মাকে নতুন রূপে দেখছে। ভাগ্যিস তারা বিষ্ণুপুর আসার প্ল্যান করেছিল দার্জিলিং বা গোয়া না গিয়ে!
সঞ্জয়ের এই ভাবনার পিছনে এক কাহিনী আছে। সে গল্প শোনার জন্যে আমাদের ফিরে যেতে হবে গত মঙ্গলবার সকাল সাতটার সময়। romantic sex choti

“তোর চুল গুলো তো এখনও ভিজে রয়েছে বাবু! কেমন করে তুই মুছেছিস বলতো? উফফ্, ছেলেটাকে নিয়ে আর পারা গেলো না। নাহ্!” সদ্য স্নান করে মেঝেতে বসে মায়ের দেওয়া রুটি আর আলু ভাজা খেতে থাকা সঞ্জয়ের মাথার দিকে তাকিয়ে কথা গুলো বলে সুমিত্রা। তার মুখে স্নেহ মাখা বিরক্তি আর হাসি দুটোই। বসার ঘরের উত্তর দিকের ব্যালকনির তারে মেলা সাদা তোয়ালেটা পেড়ে এনে সে ছেলের মাথা মুছিয়ে দেয়।
“দ্যাখ তো পুরো মাথাটাই জলে ভেজা। ঠিক মতো মুছিসও নি। এমিতেই ওয়েদার চেঞ্জ হচ্ছে, ঠাণ্ডা লেগে গেলে কি হবে বলতো?”

“কি আর হবে মা? জ্বর লাগিয়ে কয়েকদিন বিছানায় পড়ে থাকবো আর তোমার সেবা নেবো। অন্তত আরও কয়েকদিন তোমার সঙ্গে কাটানোর মতো সময় পাবো”।
“বাজে কথা একদম নয় বাবু। সদ্য চাকরিটা হয়েছে তোর। সুতরাং বাজে কথা না বলে নিজের কাজে মন দে”।
সঞ্জয় হাসে, “উফ মা! এতো রেগে যাও কেন বলতো? আমি এমনিই বললাম। অফিসে দেরি হয়ে যাচ্ছে বলে তাড়াতাড়ি স্নান টা করে এলাম। চুল এমনিই শুকিয়ে যাবে। তুমি চিন্তা করো না তো”। romantic sex choti

ছেলের মাথার চুল গুলো ভালো করে মুছে দিয়ে সুমিত্রা তোয়ালে টাকে আবার তারে মেলে দিয়ে ঘরের ভেতরে আসে।
শোবার ঘরের দরজা থেকে উঁকি মেরে দেওয়াল ঘড়িটার দিকে তাকিয়ে সময় দেখে। সকাল ন’টা বাজে এখন।
“আস্তে খা বাবু। তাড়াহুড়োর কিছুই নেই। সময় এখনও আছে। সেই তো সাড়ে সাতটার গাড়ি ধরবি”।

মুখের মধ্যে খাবার নিয়ে সেটা চিবোতে চিবোতে সঞ্জয় বলে, “ একটু আগে তো তুমিই তাড়া দিচ্ছিলে মা। অফিসে দেরি হয়ে যাবে, দেরি হয়ে যাবে বলে আমায় তাড়া দিচ্ছিলে। আমি দিব্যি কি সুন্দর তোমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমাচ্ছিলাম বলতো!”
“এদিকে এই কারনে তোমার সঙ্গে স্নান টাও করা হলো না আমার!” সে অনুযোগ করে।
“হ্যাঁ রে বাবা স্নান হবে। রোজ রোজ একসঙ্গে স্নান করার ইচ্ছা থাকলেও উপায় নেই। তোর অফিস আগে। ওতে দেরি করা চলবে না একদম”। romantic sex choti

সঞ্জয়ের খাওয়া শেষ হয়ে যায়। সে এঁটো প্লেট টা তুলে নিয়ে গিয়ে রান্নাঘরের সিঙ্কে রাখে। ওদিকে সুমিত্রা শোবার ঘরের আলনা থেকে ছেলের অফিস পরে যাবার জন্য কেচে এবং আয়রন করে রাখা শার্ট প্যান্ট এনে বিছানার উপর রাখে। তার চোখ বিছানার চাদরের উপর পড়ে। গত রাতের মিলন মুহূর্তের দাগ এখন শুকিয়ে কড়কড়ে হয়ে রয়েছে। তার মনে পড়ে ওয়াশিং মেশিনে সে গতকাল রেখেছিল রবিবারের মিলনের ছোপ লাগা বিছানার চাদর, তাদের বাসি জামাকাপড়। সে ঠিক করে আজ ছেলে অফিসে বেরিয়ে গেলেই এই চাদরটা বিছানা থেকে সরিয়ে একসঙ্গে আজ সবগুলোকে মেশিনে কেচে দেবে ।

গামছা দিয়ে হাত মুছতে মুছতে সঞ্জয় মায়ের পাশে এসে দাঁড়ায়।
পরনে তার সাদা হাফহাতা গেঞ্জি আর শর্ট প্যান্ট।
সুমিত্রা তার দিকে তাকিয়ে বলে, “হাফ প্যান্ট বদলে জাঙ্গিয়া প্যান্ট পরে নে বাবু”।
সঞ্জয় বলে, “আমি আগের থেকেই পরে আছি মা”। romantic sex choti

“বেশ তাহলে এখানে আয় আমি তোর শার্ট টা পরিয়ে দিই”।
ড্রেসিং টেবিলের আয়নার সামনে গিয়ে দাঁড়ায় সঞ্জয় । মা তাকে সাদা শার্টটা পরিয়ে দেয়। দু হাত গলানোর পর একটা একটা করে শার্টের বোতাম গুলো লাগাতে থাকে সুমিত্রা।
নিজের বুকের কাছে মায়ের একমনা মুখ দেখে মনে মনে হাসে সঞ্জয়, তার বড় সুখী মনে হয় নিজেকে।

“এবার হাফ প্যান্ট টা খুলে দিয়ে ফুল প্যান্ট টা পরে নে,” জামার সবকটা বোতাম লাগিয়ে সুমিত্রা ছেলের হাতে তার খাকিস বিজনেস ক্যাজুয়াল ফুলপ্যান্টটা তুলে দেয়।
সঞ্জয় আবার হাসে, “তুমি পরিয়ে দাও। আমি পরবনা আজকে,” তার মুখে আবদার ঘনায়।
“এই দুষ্টু! আবার মাথায় দুষ্টুমি চাপবে নাতো?” ছেলের মুখের দিকে তাকিয়ে মুচকি হেসে সুমিত্রা মেঝেতে হাঁটু গেড়ে বসে ছেলের হাফ প্যান্ট খুলে তার পায়ের নিচে নামায়। romantic sex choti

তার দুচোখের সামনে কালো জাঙ্গিয়ায় আবৃত ছেলের গোপনাঙ্গ। উঁচু স্তূপ হয়ে রয়েছে। তার প্রবল ইচ্ছে করে চুমু খায় সেখানে। অতিকষ্টে সংবরণ করে নিজেকে। মায়ের মুখ নিজের পুরুষাঙ্গের অত কাছে দেখে সঞ্জয়ের পুরুষাঙ্গে শক্ত হতে শুরু করে। কিন্তু সুমিত্রা তা অগ্রাহ্য করে বিছানায় রাখা ফুল প্যান্টটা নিয়ে দ্রুত পরিয়ে দেয় ছেলেকে। জিপার লাগানোর ঠিক আগের মুহূর্তে দুই ঠোঁট সুঁচালো করে চু শব্দ করে একবার চুমু খেয়ে নেয় ছেলের জননাঙ্গে। কাতরে ওঠে সঞ্জয় আর হাসে, “এই মা, ঠিক হবে না বলে দিচ্ছি! এবারে কে দুষ্টুমি করছে, হ্যাঁ?”

সুমিত্রা হাসতে হাসতে উঠে দাঁড়ায়। দুহাত দিয়ে টেনে তাকে বিছানায় বসায় আর বলে সে, “বেশ করেছি। আমার দুষ্টুটাকে শক্ত হয়ে যেতে আমি ঠিক থাকতে পারিনি, কে পারে হ্যাঁ?” তারপর ছেলের সামনে দাঁড়িয়ে চিরুনি দিয়ে তার মাথা আঁচড়াতে আঁচড়াতে বলে, “ বাবু, এই রবিবার ভাবছি একবার পুরনো মেসে ঘুরে আসবো”।
মায়ের কথা শুনে সঞ্জয় মুখ নামিয়ে বলে, “ কেন মা? কেন বলতো? তুমি সেখানে যেতে চাও?” romantic sex choti

সুমিত্রা বলে, “ আরে তেমন কিছু না। এমনিই। আমাদের এক সপ্তাহ আসা হবে। তাই আগামী রবিবার ভাবছিলাম কোথাও বেড়িয়ে আসি”।
“বেড়ানোর আরও অনেক ভাল জায়গা আছে মা। তাই পুরনো মেসে যাবে কি করতে?”।
“তাহলে কোথায় যাই বল?”
“সে আমরা ভেবে নেবো। রাবিবার আসতে এখন ঢের সময় মা”।

ছেলের মাথা আঁচড়ানোর পর টাই বেঁধে দেয় সুমিত্রা।
তারপর শোবার ঘর থেকে বেরিয়ে আসে দুজনে। জুতো পরে ব্যাগ কাঁধে নিয়ে সঞ্জয় ঘরের সদর দরজা খোলার আগে মার দিকে ঘুরে দাঁড়ায়। আচমকা জড়িয়ে ধরে দুহাত দিয়ে তার পিঠ বেষ্টন করে।
সুমিত্রা বলে , “বাবু দেরি হয়ে যাচ্ছে কিন্তু। তার উপর এভাবে মাকে জড়িয়ে ধরলে তোর ঠিক ঠিকানা থাকবে না”। romantic sex choti

“আচ্ছা তাহলে আমাকে একটা চুমু দাও তুমি!” ছোট্ট শিশুর মতো সঞ্জয়ের আর্জি।
হাসি মুখে সুমিত্রা দুই চোখ বুকে তার মুখ উঁচু করে তুলে ধরে।
সঞ্জয় তার দুই ঠোঁট নামিয়ে আনে মায়ের ফুলের মর নরম দুই পুষ্ট ঠোঁটে। আবেশে তার দুই চোখ বুজে যায়। তার মনের দিগন্তে ঝুপ করে সন্ধ্যার নিস্তব্ধতা নেমে আসে।

সুমিত্রা দুই হাত দিয়ে তার কন্ঠ বেষ্টন করে। মা ও নারী একসঙ্গে মিশে যায়। সে একই সঙ্গে আশীর্বাদ ও কামনা করে তার সন্তান ও পুরুষটিকে। তাদের দুই জোড়া ঠোঁট আরও নরম হয়ে খুলে যেতেই সঞ্জয়ের দুই হাত নেমে আসে মার তুলতুলে নরম পাছায়। সুমিত্রা চোখ খুলে পিছিয়ে আসে, “আয় সোনা, অফিসের দেরি হয়ে যাবে,” সে নিবিড়স্বরে বলে।
“আমি না আসা অবধি তুমি দরজা খুলো না কিন্তু,” সঞ্জয় আবার সাবধান করে মাকে। romantic sex choti

“হ্যাঁ রে বাবা তুই নিশ্চিন্তে থাক। আর অফিসে গিয়ে মায়ের জন্য একদম চিন্তা করবিনা যেন। কাজে ঠিক মতো মন দিবি। মায়ের এখানে কোন অসুবিধা হবে না”।
সঞ্জয় বেরিয়ে পড়ে।
অফিস তখনও শুরু হয়নি। একজন দুজন করে আসতে শুরু করেছে। কয়েকজন দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে হাতে সকালে চায়ের কাপ হাতে নিয়ে খেজুরে গল্প করছিল। সঞ্জয়ও তাদের সঙ্গে যোগ দেয় দুমুহূর্ত আলাপচারিতার জন্যে।

ঘটনাক্রমে তারাও আগামী শনি রবিবার কোথাও বেড়াতে যাবার প্ল্যান করছিলো।
“সঞ্জয়, এই উইকএন্ডে ফাঁকা আছো নাকি?” ওর এক কলিগ আমন সায়ক প্রশ্ন করে।
সঞ্জয় বলে, “হ্যাঁ । বিশেষ কোন কাজ নেই। ফাঁকাই ধরে নিতে পারো”।
“বেশ তো। আমরা এই সপ্তাহে একটু আউটিং এর জন্য প্ল্যান করছিলাম”। romantic sex choti

“আচ্ছা ! ভালো তো । তা কোথায় যাওয়া হবে শুনি?”
“দুটো জায়গা প্ল্যান করেছি। হয় পাহাড় না হয় সমুদ্র”।
“ওহ আচ্ছা দিঘা নাকি?”
“আরে না না। দার্জিলিং নতুবা গোয়া”।

“গোয়া! সেতো বহুদূর”!
“হ্যাঁ তার জন্য আমরা শুক্রবার রাতের ফ্লাইট নেবো”।
সঞ্জয় বলে, “ আরে না না এতো দূর যাবার পয়সা নেই আমার”। romantic sex choti

“ সেজন্যই তো রাতের ফ্লাইট নিচ্ছি। রাতেই চেক ইন করবো।শনি রবিবার ফুলটু মস্তি করে সেদিনই রাতে বিমানে করে বাড়ি তার পরেরদিন অফিস। আর সেরকম হলে দার্জিলিং চলো। ওতে তো বেশি খরচ নেই”।
সঞ্জয় দ্রুত একটু ভাবে। গোয়া ব্যায়বহুল। আর দার্জিলিং যেতে বললে মা আগে মামার বাড়ি যেতে চাইবে।সুতরাং দুটোই বাতিল।
সে ভেবে বলে, “আচ্ছা আমি আগামীকাল জানিয়ে দেবো”। আলাপচারিতা থেকে হাতে চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে বেরিয়ে আসে সে।

সন্ধ্যায় বাড়িতে এসে চা খেতে খেতে মাকে বলে সব। অনেক আলোচনার পর তারা ঠিক করে বিষ্ণুপুর আসবে। খরচ অসম্ভব কম। ট্রেনের প্রতিটি টিকেট মাত্র একশো দশ টাকা করে। মাত্র তিন ঘন্টার মধ্যেই কলকাতা থেকে বিষ্ণুপুর।
দলমাদল দেখে তারা দুজনে মা ছিন্নমস্তার মন্দিরে কাটাল কিছুক্ষণ। সেখান থেকে ফেরার সময় সুমিত্রা বলে, “কাল সকালে ফিরে যাওয়ার আগে এখানে এসে পুজো দিয়ে যাব। আমাদের হোটেল থেকে একদম হাঁটা পথ”। romantic sex choti

“এই মন্দিরের ইতিহাস শুনতে ইচ্ছে করছে মা। তুমি তো এটা নিয়েও পড়েছ, না?” সঞ্জয় মার ডান পাশে দাঁড়িয়ে তার কাঁধে হাত রেখে নিচু সুরে বলে।
সুমিত্রা পাশে ফিরে মুখ উঁচু করে সঞ্জয়ের মুখের দিকে চেয়ে হাসে, “এর কাহিনী কিন্তু রাজা রাজড়াদের কাহিনী নয়!”
“তবে?” সঞ্জয় অবাক হয়। বেলা বারোটা থেকে তারা দুজনে শুরু করেছে রাস মঞ্চ থেকে। সকাল থেকে তারা দেখেছে মদনমোহন মন্দির, মা মৃন্ময়ী মন্দির, শ্যামরাই মন্দির, লালজী মন্দির, জোড়বাংলা মন্দির, বিষ্ণুপুর দুর্গ। প্রতিটি কিন্ত রাজাদের স্থাপিত।

“এর স্থাপন করেন গুঁই পরিবার, প্রায় ১০০ বছর আগে,”
“হ্যাঁ, তাই দেখছি, এর স্থাপত্য পোড়ামাটির না,” সঞ্জয় এবারে বুঝতে পারে।
“ছিন্নমস্তা কি মা? সত্যজিত রায়ের বই পড়েছিলাম অনেক আগে বন্ধুদের কাছ থেকে ধার করে, ছিন্নমস্তার অভিশাপ…” এই প্রশ্নটা সঞ্জয় ঠিক কাউকে করেনি। অনেকটা স্বগতোক্তির মত। romantic sex choti

“আমিও ঠিক জানিনা,” সুমিত্রা ভাবে তাকেই করা হয়েছে প্রশ্নটা, “তবে মন ভক্তিতে ভরে যায়। মা নিজের গলা কেটে নিজের রক্ত খাচ্ছেন, ডাকিনী যোগিনীরাও খাচ্ছে। মায়ের পায়ের নিচে কামদেব ও রতিদেবী। পিছনে জ্বলন্ত চিতা!”
“জীবন আর মৃত্যু একসঙ্গে!” সঞ্জয় প্রায় অভিভূত, “সৃষ্টি আর ধ্বংস!”
সঞ্জয় তাদের অটোওয়ালার কাছে গিয়ে বলে, “দাদা, এবারে কোথায় যাব বলে দাও”।

বেলা সাড়ে তিনটে বেজে গেছে মিনিট চারেক আগে। প্রখর সূর্যের তেজে একটু নরম পোঁচ পড়েছে যেন। সুমিত্রার মাথা থেকে ঘোমটা একটু খসে তার খোঁপায় হেলে পড়লেও সে তেমন গ্রাহ্য করছে না আর। এতক্ষণ ডান হাত দিয়ে সবসময় মাথায় রেখেছিল ঘোমটা রোদের তাপ থেকে একটু আড়াল পাবার জন্যে।
অটো ড্রাইভার একমনে অন্য মানুষজনের যাওয়া আসা দেখছিল মন দিয়ে। সে সঞ্জয়ের দিকে ফিরে বলে, “কুথায় যেতে যান বাবু যুদি বুলে দেন…”
“এই ধর জোড় মন্দির, নন্দলাল মন্দির, লালবাঁধ, কালাচাঁদ মন্দির, রাধামাধব মন্দির, পোড়ামাটির হাট, আচার্য জগদীশচন্দ্র পুরাকৃতি ভবন” romantic sex choti

“কিট বাবু?” অটোচালক অবাক হয়
“মিউজিয়াম?” সঞ্জয় আন্দাজ করে কি বুঝতে অসুবিধা হয়েছে।
“উটাতে আগ্যে যান। বিকাল পাঁচটর আগ্যে বন্ধ হয়ে যাবে বটে!”

ওরা তাই প্রথমে যায় জগদীশচন্দ্র পুরাকৃতি ভবনে। সুমিত্রার প্রতিটি দ্রষ্টব্য অনেক সময় নিয়ে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখে। সঞ্জয় চুপ করে দাঁড়িয়ে তার মাকে দেখে। মায়ের মুখে খুশির আলো দেখে তার বুকে সঞ্চারিত হয় স্বর্গসুখ। সে জারিত হয় সুখে।
“এত রকমের সেতার!” সুমিত্রার মুখে অপার বিস্ময়ের ভাঁজ। কলকাতার এক বাড়িতে সে প্রথম দিকে কাজ করত, সেই বাড়িতে একটি কিশোর ছেলে সেতার শিখত। সঙ্গীতের সুমিষ্ট ঝঙ্কার সুমিত্রার মনে দাগ কেটেছিল। romantic sex choti

তার স্বগতোক্তি শুনে পাশে এক সুশ্রী তরুণ বলে উঠল মৃদু হেসে, “হ্যাঁ দিদি, বিষ্ণুপুরে তো সেতার থাকবেই! এ জায়গা তো সেতারের পীঠস্থান। বিষ্ণুপুরী ঘরানার সেতার বাদন পৃথিবী বিখ্যাত।”
সঞ্জয় জানত না। সে বলে ওঠে, “তাই নাকি?”

“হ্যাঁ দাদা,” তরুণ তার দিকে ফিরে হাসে, “এই ছোট্ট সহর বিষ্ণুপুরের অনেক কিছুই পৃথিবী বিখ্যাত। বিষ্ণুপুরী সিল্কের শাড়ি, আর বিষ্ণুপুরী সেতার বাদন তাদের মধ্যে দুটো।”
“বিষ্ণুপুরী মাটির ঘোড়া,” এবারে সুমিত্রা বলে ওঠে। সে আরো যোগ করে, “বিষ্ণুপুর ঘরানার কথা পড়েছি”।
“হ্যাঁ দিদি,” তরুণটি ভীষণ উৎসাহিত হয়ে ওঠে, “জানেন যামিনী রায় বিষ্ণুপুরী পট শিল্প দেখে প্রথম অনুপ্রাণিত হন?” romantic sex choti

“কে কে বিখ্যাত সেতার শিল্পী বিষ্ণুপুরের?” সঞ্জয় জানতে চায়।
“মণিলাল নাগের বাজনা শুনে দেখবেন, স্বর্গীয় বাজান!” ছেলেটি দুই চোখ বুজে ফেলে, যেন বাজনা শুনতে পাচ্ছে সে। তারপর সুমিত্রা ও সঞ্জয়ের দিকে মাথা ঝুঁকিয়ে একবার হাসল আর এগিয়ে গেল সে।
বিকেল চারটে পনেরো নাগাদ দুজনে বেরিয়ে আসে মিউজিয়ম থেকে। বাইরে সূর্যের আলো আরও একটু ম্লান।

অটোচালককে সুমিত্রা ডেকে বলে, “এবারে লালবাঁধের পাড়ে যাব আমরা আর কিছুক্ষণ থাকব। নিয়ে চলো না ভাই!”
লাল ধুলোয় ভরা কাঁকড় বিছানো রাঙা রুক্ষ পথ ধরে অটো কয়েক মিনিটের মধ্যে তাদের নিয়ে গেল বিশাল দিঘীর পাড়ে।
অটোকে একটু দূরে দাঁড় করিয়ে অপেক্ষা করতে বলে দুজনে লাল দিঘীর পাড় ধরে এগিয়ে যায়। পাড়ে দাঁড়িয়ে থাকে কিছুক্ষণ। হালে মনে হয়ে এখানে স্ট্রিট লাইট বসেছে। ভ্রমণার্থীদের জন্যে বসান হয়েছে সুদৃশ্য টালি বসান ছাউনিও। দিঘীর পাড়ে সারি দিয়ে গাছ লাগান হয়েছে। আজ সেই গাছ গুলি বড়ো হয়েছে। romantic sex choti

“দেখ, বাবু নৌকোয় চাপছে ওরা! এখানে নৌকায় চাপা যায় নাকি?” সুমিত্রার গলায় প্রবল খুশির উল্লাস।
“আমরা কোনওদিন চাপিনি!” সঞ্জয়ের গলার সেই খুশি চারিয়ে যায়। সে দৌড়ে গিয়ে খবর নিয়ে আসে। উত্তেজিত ভাবে বলে, “আমি টিকেট কিনে নিয়েছি। পরের ট্রিপ আমাদের!”
“বেশি দাম নাতো?” সুমিত্রার মুখে খুশির ছটা!

“মাত্র চারশো টাকা মা এক ঘন্টা আমাদের দুজনের! পুরো বোটটা শুধু তোমার আর আমার!”
“এত দাম!” সুমিত্রার মনে শঙ্কা।
“তার সঙ্গে চা-কফিও দেবে মা,” সঞ্জয় তার উত্তেজনা আর ধরে রাখতে পারে না, “আর মিউজিক বাজবে!”
পাঁচটা তিরিশে তাদের নৌকা বিহার শুরু। অপেক্ষা করতে শুরু করে তারা। এখনও প্রায় একঘন্টা বাকি। romantic sex choti

দুজনে রুমাল পেতে রুখুসুখু ঘাসের উপর একটি সোনাঝুরি গাছের নিচে বসে আসন করে। সঞ্জয় মার মুখের দিকে তাকিয়ে দেখে। দিনভর ভ্রমণের পরিশ্রমে একটু ক্লান্ত মুখ, মুখে একটু ঘাম মেশা ধুলোর প্রলেপ, কিন্ত মাকে এত খুশি সে কখনও দেখেনি।
সুমিত্রাও উত্তরে তাকিয়ে দেখে ছেলের মুখ। তার বুকের ধন, তার শরীরের অংশ। হোটেলে চান করার আগে চটজলদি শেভ করা পরিষ্কার মুখে সারা দিনের পরিশ্রমের মলিনতা। কিন্তু দুই চোখের দৃষ্টি অত্যুজ্জ্বল। পড়ন্ত বেলার ম্লান আলোতেও।

সঞ্জয় সহসা মায়ের শাড়ি ঢাকা বাম ঊরুতে মাথা দিয়ে শুয়ে পড়ে চিত হয়ে। তারপর আলস্য ভরে নিজের এক পা তুলে দেয় অন্য পায়ের উপর।
সুমিত্রা খিল খিল করে হেসে ওঠে, “এই ছেলেটা, আমার থাইয়ে সুড়সুড়ি লাগছে। উঠে পড় লক্ষ্মী ছেলে!” হাসতে হাসতে অনুনয় করে সে।
ডান হাতে হাতড়ে মাটি থেকে একটা প্রায় শুকনো দূর্বা ঘাস পায় সঞ্জয়। সেটা উপড়ে নেয় সে এক টানে। দাঁতে কাটতে থাকে পরম অবহেলায়, “মা, তুমি আমাকে লালবাঁধের গল্প বল দেখি শুনি!” romantic sex choti

“মল্লভূম রুক্ষ ভূমি। অনাবৃষ্টির জায়গা। ৫২ তম মল্ল রাজা বীর সিংহ দেব সাতটা দিঘী খনন করেছিলেন পানীয় জলের জন্যে। তারই একটি হল লাল বাঁধ। সেটা ১৬৫৮ খ্রিস্টাব্দ। অর্থাৎ তখন মুঘল সম্রাট ঔরঙ্গজেব দিল্লিতে। শিবাজী তখনও ছত্রপতি উপাধি নিয়ে মহারাষ্ট্রের রাজা হননি”।
“হ্যাঁ, মনে আছে আমার, শিবাজী রাজা হন আরো ষোল বছর পর ১৬৭৪ সালে,” সঞ্জয় বলে, “মা এত কিছু লেখা আছে ওই বইটাতে?”
সুমিত্রা হাসে, “হ্যাঁ রে সোনা!”

“তুমি এত মনে রাখলে কি করে? আমি অবাক হয়ে গেছি ভীষণ!”
সুমিত্রা খিল খিল করে হেসে ওঠে আবার, “এত দিন, মনে হয় যুগ যুগ পর পড়ার সুযোগ আর সময় পেয়েছি তুই যখন অফিসে থাকিস সেই দুপুরবেলাগুলোয়। এত ভাল লাগছিল, বার বার পড়েছি। মনে একেবারে গেঁথে গেছে”।
সঞ্জয় একবুক খুশি নিয়ে উঠে পড়ে। দাঁড়িয়ে মার ডান হাত ধরে উপরের দিকে টানে,”এই উঠে পড়, এক্ষুনি আমাদের নৌকা এসে যাবে।” romantic sex choti

তার যখন নৌকায় উঠল সারা আকাশ রক্তিম হয়ে উঠেছে। সূর্যদেব যেতে চলেছেন অস্তাচলে। মাঝবয়েসি মাঝি তাদের দেখে একগাল হেসে বলে, দিদিমণি আমার নাম অনন্ত মাহার,” সঙ্গের কিশোরটিকে দেখিয়ে বলে, “আমার ভাইপো। আমি মাঝি, আর এ হালি”। কিশোরটির তেরো চোদ্দ বছর বয়েস। মুখে সারল্য। আর এক জোড়া মায়াবী চোখ তার। সুমিত্রা হেসে বলে, “স্কুলে যাও তুমি?”
সে লাজুক হাসে, “হ্যাঁ দিদিমণি। ইস্কুল ছুটির পর জ্যাঠার সঙ্গে এসে থাকি, কাজ করি”।

“বাঃ, কি নাম তোমার?” সুমিত্রা বলে
“সুমন মাহার,”সে হাল ধরে বসে।
“দিদিমণি, আমরা নৌকায় এই কোনার গলুইয়ে বসিছি, আপনারা ওই ফালে গিয়ে গলুইয়ে বসেন। ধরার হাতল আছে, জলে পড়ার ভয় নেইকো!” শব্দ করে হাসে সে। romantic sex choti

তাদের নৌকাটা প্রায় দশ ফুট লম্বা। মা আর ছেলে দুজনে চলে যায় নৌকার অপর কিনারায়। সুমিত্রা বাম হাতে হাতল ধরে নৌকার গলুইটিতে বসে। তার ডান পাশে গা ঘেঁসে বসে পড়ে সঞ্জয়।
অনন্ত মাঝি তার বৈঠায় টান দেয়। জলে ছপাত ছপাত শব্দ ওঠে। রক্তিম আকাশের প্রতিফলনে জলের রঙ রক্তাভ। আকাশের লালিমা মাছেলে দুজনের মনেই ছড়িয়ে পড়ে। সঞ্জয় দেখে মায়ের মুখে লাল আভা বিকীর্ণ। মা কি উত্তজিতা? সঞ্জয় ভাবে।

সে উত্তজনা তার বুকেও চারিয়ে যায়। ডান হাত দিয়ে শাড়ি হাঁটুর উপরে গুটিয়ে তুলে নেয় সুমিত্রা। তারপর দুই পা নামিয়ে দেয় জলে। তার ধবধবে দুই নগ্ন ঊরুর সামান্য প্রকাশ দেখেই সঞ্জয়ের বুকে দামামা বাজে। গতসপ্তাহে বারবার দেখেছে সে তার প্রিয় নারীর সম্পূর্ণ নগ্ন অবয়ব। নিজের নগ্ন দেহে আশ্লেষে আলিঙ্গন, পিষ্ট করেছে মায়ের বিবসনা তনু। অবাধে প্রবেশ করেছে তার গোপনতম অলিন্দে। মন্থন করেছে সেই নিভৃত প্রকোষ্ঠ। তবু এমন হয় কেন? কেন তার বুকে কাঁপুনি শুরু হয়? তার ব্যাকুল মন উত্তর খোঁজে, কিন্তু আর দিশা পায় না। romantic sex choti

মায়ের দেখাদেখি সঞ্জয়ও নৌকোর কিনারায় বসে তার উলঙ্গ দুই পা জলে নামিয়ে দেয়। অতীব শীতল জল। পায়ের ছোঁয়া মাত্রই সারা শরীর ঝিনঝিনিয়ে ওঠে। তবে বেশ কিছুক্ষণ রাখার পর আর সেই শীতলতা অনুভব করা যায়না।
সে দেখে মায়ের লম্বা মসৃণ পা দুটোর মধ্যে জল কেমন ঢেউয়ের মতো করে কেটে কেটে যাচ্ছে। সে একবার নিজের পা দুটো দেখে আবার একবার বাম পাশে ঘাড় ঘুরিয়ে মায়ের পা দুটো দেখে।

মায়ের ফর্সা পায়ের লম্বা আঙ্গুল গুলোর মধ্যে লাল রঙের নেল পলিশ লাগানো। আর নৌকোর মন্থর গতির সঙ্গে সঙ্গে মায়ের পায়ের উপর পা বদলানো দেখে সেও নিজের পায়ের উপর পা রেখে অদলবদল করতে থাকে।
“এই বাবু ঠিক মতো বসে আছিস তো? আর এতো ঝুঁকে জল দেখার প্রয়োজন নেই”।
আচমকা মায়ের ডাক শুনে সঞ্জয় একটু সজাগ হয়ে বসে। romantic sex choti

“জলটা কত পরিষ্কার এবং ঠাণ্ডা তাইনা মা?”
“হ্যাঁ রে বাবু কাঁকুড়ে মাটির জল এমনই হয়। আমাদের গ্রামের বাড়িতেও অনেক কুয়ো ছিল, যার অনেক নীচে থেকে জল তুলতে হতো। বালতি তে দড়ি বেঁধে। উঁকি মেরে দেখতাম সেখানেও এখানকার মতো কাঁকুড়ে মাটির পাথর”।
সঞ্জয় মন দিয়ে মায়ের কথা শোনে। আর তখনই নৌকোর চার প্রান্তে লাগানো মিউজিক সিস্টেমে বেজে উঠল সেতারের ঝংকার। দীর্ঘ আলাপে মূর্ত হয়ে উঠল গোধূলির বিষণ্ণ মগ্নতা। এই বুঝি সেই প্রখ্যাত বিষ্ণুপুর ঘরানার সঙ্গীত!

অপর দিকে তার মাও কেমন তন্ময় ভাব নিয়ে জলের মধ্যে পা নামিয়ে মুহূর্ত টাকে উপভোগ করছে।
“মা তুমি চুপ করে আছো কেন? কিছু বলোনা!”
“কি বলি বলতো?”
“তোমার মুখ থেকে বিষ্ণুপুরের গল্প শুনে মনে হচ্ছে ইতিহাসের পাতায় চলে গিয়েছি!” romantic sex choti

সুমিত্রা আকাশের দিকে মুখ করে হাসে, “অত্যাচারী ও ধর্মান্ধ মুঘল বাদশা ঔরঙ্গজেবের আমলে তানসেনের উত্তরপুরুষ ওস্তাদ বাহাদুর খান পালিয়ে আসেন বিষ্ণুপুরে। তিনি ধ্রুপদ গাইতেন। তিনি বীণাও বাজাতেন। সেটা ১৭০৪ সাল। বিষ্ণুপুরের তৎকালীন রাজা দ্বিতীয় রঘুনাথ সিংহ বৃদ্ধ ঔরঙ্গজেবের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বাহাদুর খানকে মাসে টাকা দিয়ে বিষ্ণুপুর রাজসভায় নিযুক্ত করেন। সেই থেকে বিষ্ণুপুর ঘরানায় ধ্রুপদ সঙ্গীত আসে”।
“আচ্ছা মা তোমাদের বাড়ির ওখানেও তো অনেক ঐতিহাসিক নিদর্শন আছে। বীরভূম জেলায়?”

ছেলের কথা শুনে সুমিত্রা নৌকোর পাটা শক্ত করে ধরে বলে, “ হ্যাঁ আছে তো। অনেক ঐতিহাসিক নিদর্শন আছে। পুরাতন মন্দির আছে। সতীপীঠ আছে। ঊষ্ণ প্রস্রবণ আছে”।
সঞ্জয় যারপরনাই বিস্মিত হয়, “তোমাদের বাড়ির কাছেই এত বেড়াবার জায়গা? আমার মামাবাড়িতে?”
সুমিত্রা মৃদু হাসে, “না রে, একটু দূরে আছে। বাসে করে যেতে হয়। তবে একই জেলায় সবগুলো”। romantic sex choti

সূর্যদেব এখন একেবারেই পশ্চিমে ঢলে পড়েছেন। চারিদিকে একটা রক্তিম আভা, আর আকাশে যেন লাল আবীর ঢেলে দিয়েছেন প্রকৃতি, তারই সঙ্গে মিশে অগুন্তি নানা বিচিত্র রঙ। সঙ্গে হিমেল বাতাস এবং দূরের গাছপালা ধোঁয়াচ্ছন্ন।
হিমেল বাতাস তাদের গায়ে এসে ধাক্কা মারে। শীতের শুষ্ক ভাব এখনও যায়নি এদিক থেকে। সঞ্জয় ডান দিকে মুখ ফিরে দেখে মায়ের উন্মুক্ত বাহুর রোম খাড়া হয়ে এসেছে।

সে বুঝতে পারছে মায়ের ঠাণ্ডা লাগছে বোধহয়। সে তার ডান দিকে ঘাড় ঘুরিয়ে ফিরে নৌকার অপর গুলুইতে বসা অনন্ত মাঝি এবং সুমন নামে ছেলেটিকে দেখে। তাদের ধ্যান জলের দিকে। তা বুঝে সঞ্জয় তার বাম হাত মায়ের কাঁধে রেখে তাকে নিবিড় করে জড়িয়ে ধরে এবং ডান হাত দিয়ে নৌকার দুলুনি সামাল দেয় হাতল ধরে।
“শীত করছে তোমায় মা?” প্রশ্ন করে সে। romantic sex choti

ছেলের আকস্মিক আদরে সুমিত্রাও ডান দিকে ফিরে দেখে মৃদু বকুনি দেয় নিচুস্বরে, “অ্যাই, বাবু ওরা আছে না? কি ভাবছে বলতো?”
“তাতে কি হয়েছে মা? আমি তো আমার ভালোবাসার নারীকে জড়িয়ে ধরেছি!” সে মায়ের উন্মুক্ত ডান কাঁধে ঠোঁট রাখে। চুমু খায় নগ্ন ত্বকে। তার খুব মজা লাগে মাকে শিহরিত হতে দেখে। তার ছোট্ট একটা চুমুর এত ক্ষমতা!
মা ছেলের কথার মধ্যেই ছেলেটি, সুমন, তাদের কাছে আসে।

“দিদিমণি আপনাদের জলখাবার দিই?”
সঞ্জয় তার মায়ের মুখের দিকে তাকায়। সুমিত্রা ইঙ্গিতে সম্মতি জানায়।
সঞ্জয় সুমনকে হেসে বলে, “হ্যাঁ ভাই দিয়ে দাও”।
ছেলেটি হেসে বলে, “দাদাবাবু এক্কুনি দিইচি, আপনারা নৌকার গলুইয়ের থেকে উঠে এসে মাঝে বসেন বট্যে। নৌকা ওখানে কম দুলব্যে বটে”। romantic sex choti

সঞ্জয় হাসি মুখে মাথা নেড়ে তাকে হ্যাঁ জানিয়ে নৌকোর মাঝে পাটাতনের নীচে পা ঝুলিয়ে বসে মা ছেলে মিলে।
প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই সুমন তাদের জলখাবার দিয়ে যায়। পোড়া মাটির কাপে চা এবং একটা প্লেটে সাজানো বিস্কুট।
গরম চায়ে চুমুক দিতে দিতে আর কোনও কথা বলেনা তারা। তারা সেই গোধূলি মুহূর্তের অপার্থিব রূপ তারা তাদের সকল চেতনা দিয়ে শুষে নেয় নিরুচ্চারে। এখন কোন কথা নয়।

এই সময় কোন বাক্য ব্যয় অতিরিক্ত মনে হয়। এখন কেবল অনুভবের সময়। সেই অদৃশ্য সেতারি আলাপ শেষ করে ঢুকে পড়েছেন জোড়ে। চারিপাশের অসংখ্য পাখির দল তাদের কলকাকলিতে ভরে তুলেছে আকাশ। সারি দিয়ে উড়ে বেড়াচ্ছে তারা। সারা আকাশে অপসৃয়মান কালো রেখা বার বার তৈরি করে, আবার ভেঙ্গে ফেলছে তারা বারবার। আকাশের লাল পটভূমিতেসেই কালো রেখাগুলি মোহময় ছবি এঁকে চলেছে অবিরাম। পাখিদের কলতান মিলে মিশে এক হয়ে যায় অদৃশ্য সেতারির বাদনের সঙ্গে। romantic sex choti

জলখাবার শেষ করে স্থির হয়ে এ প্রকৃতির এ অপূর্ব রূপে তারা যেন নিমজ্জিত হয়ে যায় কতক্ষণ। তারপর তারা আবার তাদের পূর্বের স্থানে ফিরে গিয়ে বসে। সেতারের জোড় শেষ হয়েছে। ঝালায় ঢুকে পড়েছেন সেই অদৃশ্য সেতারি। সন্ধ্যা ছটার দিকে ঝপ করে নেমের এল অন্ধকার। সুমিত্রার হঠাৎ মনে হল সেতারের এ রাগ যেন তার ভীষণ চেনা। কবে যেন শুনেছে এ বুক মুচড়ে ওঠা গভীর সুর। সূর্যের বিদায় ক্ষণের হাহাধ্বনি যেন তার হৃদয়ের তন্তুতে তন্তুতে আঘাত করে।

তার মনে পড়ে যায় এই গান সে শুনেছিল ছাত্রীনিবাসে সেই গানপাগল মেয়েটির কাছে। শুনে শুনে তুলে নিয়েছিল সে সেই গান। রবি ঠাকুরের গান।
খোলা গলায় সে গেয়ে ওঠে,
“সন্ধ্যা হল গো ওমা, সন্ধ্যা হল বুকে ধর
অতল কালো স্নেহের মাঝে ডুবিয়ে আমায় স্নিগ্ধ করো”। romantic sex choti

ছেলের বাম কাঁধে মাথা হেলিয়ে দেয় সুমিত্রা। আরো গেয়ে চলে সে
আমায় ঘিরি আমায় চুমি, কেবল তুমি কেবল তুমি
আমার বলে যা আছে মা তোমার করে সকল হরো।।

সঞ্জয় স্তব্ধ হয়ে যায়। সে কোনওদিন জানত না যে তার মা এমন সুন্দর গান গাইওতে পারে। তার গলায় এত সুর। এত মিষ্টি তার গায়কী। সে যেন তার মাকে চিনত না কোনদিন। তার মনে হয় কোন্ কিন্নর দেশ থেকে এসেছে এই নারী। সে ভরিয়ে দিচ্ছে তাকে। সে নীরবে তার ডান বুলিয়ে দেয় মায়ের ডান বাহুর উপর। মার গান বারবার গাওয়ার পরও শেষ হয়ে যায় একসময়। সেতারের ঝালা এখন দ্রুত তালে বেজে চলেছে। ওই তো তেহাই পড়ল। পেছন দিকে মিউজিক সিস্টেম থেকে বেয়ে আসা মৃদু সঙ্গীতের সঙ্গে দূরে কোথাও শঙ্খ এবং মন্দিরের ঘণ্টি বাজার শব্দও কানে আসে। romantic sex choti

চরাচরে এখন নিবিড় অন্ধকার মেনে এসেছে। মাঝিদেরকেও ভাল করে দেখা যায় না। কেবল বোঝা যায় যেন দূরে অস্পষ্ট কালো অবয়ব।
এই নিবিড় আঁধারে সঞ্জয় কেবল অনুভব করে তার ঘাড়ে হেলান দিয়ে রাখা মায়ের মুখ। তার প্রিয়তমা নারীর মুখ। সে মনে মনে এখন বড় তৃপ্ত। সে বুঝতে পারে অন্য কোথাও না গিয়ে তারা এখানে এসে ভালোই করেছে। অন্তত তার মায়ের খুব ভালো লেগেছে এখানে এসে।
সে মায়ের কপালের উপর আলতো করে চুমো খায়।

তাতে সুমিত্রার ধ্যান ভাঙ্গে। সে যেন ডুবে ছিল তার গানে। সে ডান হাত দিয়ে নীরবে জড়িয়ে ধরে ছেলের কোমর। ছেলের কাঁধ থেকে মাথা সরিয়ে তার বুকে গুঁজে দেয় নিজের মুখ। বাম হাত স্থাপন করে ছেলের বুকে। আঙুল দিয়ে তার বুকের রোম নিয়ে খেলা করে সে। অনুচ্চ স্বরে বলে, “বড় ভাল লাগছে রে। মনে হয় যেন এই নৌকা যাত্রা কখনও শেষ না হয়!” romantic sex choti

সঞ্জয়ও মার বাম কোমরে হাত রেখে আরও শক্ত করে জড়িয়ে ধরে নেয় তার শরীর। তারপর তার হাত মার শাড়ির আঁচলের তলা দিয়ে নিয়ে গিয়ে আদর করে ব্লাউজের উপর দিয়ে মার বাম স্তনে। সে আদরে সুমিত্রা দ্রবীভূত হয়ে যায়। ফিসফিস করে বলে, “আরো আদর কর সোনা!” সে সঞ্জয়ের ডান স্তনবৃন্তে আঙুল দিয়ে আদর করে।

সঞ্জয় কোন কথা না বলে তার বাম হাত নিয়ে যায় আর তালু দিয়ে আদর করে মায়ের নগ্ন উদরে। শাড়ির তলা দিয়ে হাত ঢুকাতে একবার চেষ্টা করে সে। বিফল হয়ে হাতে চাপ বাড়ায় সে। সুমিত্রা পেট টেনে ধরে, তবুও হাত ঢুকানো শক্ত। সুমিত্রা অনুচ্চস্বরে হাসে, “দাঁড়া সোনা ঢিলে করে দিই!”
সে কোমরের কষি ঢিলে করে দিতে সঞ্জয় অনায়াসে এবারে ঢুকিয়ে দেয় তার হাত। শাড়ি, শায়া ও প্যান্টির নিচে। মুঠো করে ধরে সে মার যৌনকেশ। তার মনে হয় যেন বিরাট প্রান্তরে সে একা দাঁড়িয়ে। romantic sex choti

সেই প্রান্তর আকীর্ণ ঘন দীর্ঘ দূর্বা ঘাসে। মাঠের মধ্যে বয়ে চলেছে একাকিনী নদী। সেই স্বচ্ছতোয়া নদীতে ডুব দেবে সে। সে তার তালু মেলে দেয়। তার হাতের নিচে ঘাসের মদির ঘ্রাণ পায় যেন সে। এমন ভাবে চুপ করে বসে থাকে তারা দুজন। যেন অনন্তকাল।
তারা জানতে পারেনা কখন নৌকা মুখ ঘুরিয়ে তাদের ফিরিয়ে নিতে যায় যে ঘাট থেকে তারা যাত্রা শুরু করেছিলে সেইখানে।
চকিত ভাঙ্গে দুজনের যখন ঘাটের উজ্জ্বল বৈদ্যুতিন আলো চোখে পড়ে তাদের। তারা নিজেদের সংবৃত করে তৈরি হয় নৌকাবিহার সমাপ্তির।

সন্ধ্যা পৌনে সাতটায় অটোচালককে তার পাওনা মিটিয়ে দিয়ে হোটেলে প্রবেশ করে ওরা। অসম্ভব খিদে পেয়েছে । সেই বেলা আড়াইটার সময় তারা হোটেলে এসে লাঞ্চ করে গেছে। ভাগ্যিস তাদের হোটেলটা দল মাদল পাড়ায়। হোটেল থেকে দলমাদল কামানের কাছে হেঁটে যেতে মিনিট দশেক।
হোটেলের প্রবেশ দ্বার দিয়ে ঢুকতে ঢুকতে মার দিকে চেয়ে হাসে, “থালা ঘটি বাটি খেয়ে না ফেলি”। romantic sex choti

সুমিত্রা তার ডানহাত দিয়ে ছেলের বাম হাত ধরে, “আমাকে দিলেই আমি খেয়ে ফেলব, চামচ, কাঁটা চামচও,” এক মুখ হেসে বলে, “নৌকায় বসে চা খেয়ে মনে হয় খিদেটা আরও বেড়ে গেছে!”
সঞ্জয় গিয়েই হোটেলের রিসেপশনে জিজ্ঞেস করে, ডিনার সার্ভড হয়েছে কিনা।

“আমাদের স্যার ডিনার সন্ধে সাতটায়। ডিনার সাজানো শুরু হয়ে গেছে,” রিসেপসনিস্ট ছেলেটি বলে। তারপর তার পাশে দাঁড়ান সুমিত্রার দিকে চেয়ে বলে, “ম্যাডাম, আপনারা টেবিলে গিয়ে বসুন, আমরা সার্ভ করার ব্যবস্থা করছি”।
ওয়াশ বেসিনে হাত মুখ ধুয়ে সঞ্জয় ও সুমিত্রা একটি একান্ত টেবিলে গিয়ে বসে মুখোমুখি। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই একটি নবীন ওয়েটার এসে কাচের গ্লাসে জল ঢেলে দিয়ে যায়। তারপরেই আসে পোস্ত বড়া এক প্লেট। হেসে বলে, “আমাদের বিষ্ণুপুর স্পেশাল। আপনাদের জন্য”। romantic sex choti

সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার মধ্যে ওরা ডিনার শেষ করে দোতলার নিজেদের রুমে ফিরে গেল। জুতো খুলে ঘরে ঢুকেই সঞ্জয় এসিটা চব্বিশ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে চালিয়ে দিয়ে লাফ দিয়ে গিয়ে বিছানায় চিতপাত হয়ে শুয়ে পড়ল। তার দুই হাত মাথার উপর ছড়ান। দুই চোখ বোজা। ওষ্ঠাধরে সুখের হাসি।
সুমিত্রা বিছানার সামনের পড়ার টেবিলে ঠেস দিয়ে দাঁড়িয়ে হাসতে হাসতে তাকে মৃদু বকুনি দেয়, “অ্যাই ছেলে, কতবার বলেছিনা, বাইরে থেকে এসে প্রথমে হাত পা ধুয়ে পরিষ্কার হয়ে তবেই বিছানায়?”

সঞ্জয় চোখ বুজেই অলস সুখী স্বরে বলে, “আহ্ মা, এক্ষুনি তো চান করব আমরা। এসোনা তুমি ততক্ষণ আমরা আরাম করি!”
সুমিত্রার মনের বাঁধ ভেঙ্গে যায়। সেও বাইরের পোশাকেই ছেলের ডান পাশে চিত হয়ে শুয়ে পড়ে বিছানায়। আজ কত কিছু তার জীবনে প্রথম। চল্লিশ বছরে আজ তার প্রথম ভালবাসার বিষয়টি, ইতিহাসকে আবার খুঁজে পেয়েছে সে। কত কিছু আছে জানার এই বিরাট বিশ্বে। সেই কবে, কোন কুয়াশাচ্ছন্ন অতীতে কোন্ সে পরাক্রমশালী বীর তৈরি করেছিলেন ইঁট দিয়ে বিষ্ণুপুরের দুর্গ, ভাবলে তার রোমাঞ্চ হয়। romantic sex choti

বিষ্ণুপুরের আবার বিশেষ সিল্কের শাড়ি আছে নাকি? কি তার নাম? সেতার অতরকমের হয় সে কোনোদিনও জানত না এখানে না এলে। এই প্রথম সে জানল প্রিয়তম পুরুষের সঙ্গে একান্তে অন্ধকারাচ্ছন্ন সন্ধ্যায় নৌকাবিহার কেমন অভিজ্ঞতা! তার জানা ছিলনা, নৌকা থেকে শাড়ি গুটিয়ে জলে পা নামালে কেমন স্বর্গসুখ! মনে হয় যেন স্বর্গের অপ্সরাবৃন্দ তার পায়ে শীতল জল সিঞ্চিত চামর ব্যজন করছিল। পরম সুখে সে শিউরে উঠেছিল বারংবার।
ঘরে এতক্ষণে ছড়িয়ে পড়েছে এসির শীতলতা। তাদের শরীরের সারাদিনের ঘাম শুকিয়ে এখন অনেকটা ঝরঝরে লাগছে।

সে বামে পাশে কাত হয়ে শোয় সঞ্জয়ের শরীর ঘেঁসে। তার টি-শার্ট আর গেঞ্জির তলা দিয়ে ডান হাত ঢুকিয়ে তালু বিছিয়ে দেয় ছেলের রোমাবৃত বুকে। হাতের আঙুলগুলো ছড়িয়ে দিয়ে নখ দিয়ে আলতো আঁচড় কাটে তার বুকের নগ্ন ত্বকে। বুড়ো আঙুল দিয়ে ছেলের বাম স্তনাগ্রে ঘসে ধীরে ধীরে কয়েকবার। ছেলের ঘাড়ের কাছে মুখ নিয়ে এসে সে নাক গুঁজে দেয় তার চুলে। বুক ভরে নেয় প্রিয় চেনা ঘ্রাণ। romantic sex choti

চুপিচুপি বলে, “হ্যাঁরে, বিষ্ণুপুরে কি বিশেষ সিল্ক পাওয়া যায় রে?”
সঞ্জয় মার দিকে ঘুরে তার গালে দ্রুত চুমু খায়, আঁচলের নিচ দিয়ে বাম হাত ঢুকিয়ে নিয়ে তার নরম তলতলে উদরে স্থাপন করে, “আমি ভাবছিলাম প্রথম মাইনে পেয়ে তোমায় একটা শাড়ি কিনে দেব, এত শাড়ি ভালবাস তুমি – জানতাম না কোন্ শাড়ি। আজ জানলাম”।

সুমিত্রা বাচ্চা মেয়ের মত খুশিতে হিহি করে হাসে, “ইস, কি করে জানল আমার মানিকচাঁদ?” সে মাথা তুলে চুক করে চুমু খায় ছেলের ঠোঁটে। আবার মাথা নামিয়ে আনে বিছানায়।
সঞ্জয় ভান করে ভাবার। সে মায়ের নাভিরন্ধ্রের ভিতরে তার বাম হাতের বুড়ো আঙুল দিয়ে খেলতে খেলতে সিলিং এর দিকে তাকিয়ে চোখ পিটপিট করে। হাত দিয়ে দলন করে মার নাভির চারপাশের নরম মেদ। romantic sex choti

তারপর ডান কনুইয়ে ভর দিয়ে সামান্য শরীর উঠিয়ে আচম্বিতে পূর্ণ চুম্বন করে মার ওষ্ঠাধরে। একইসঙ্গে সে তার বাম হাত প্রসারিত করে ঢুকিয়ে দেয় সুমিত্রার শাড়ি,শায়া ও প্যান্টির নিচে। মুঠো করে খামচে ধরে মায়ের যৌনাঙ্গের ঘন চুল।
“এই, এই, বুঁবুঁবুঁ, উম,উমম্,বুবুঁবুঁ…” কপট ত্রাসে সুমিত্রা মাথা নাড়ায় ঘনঘন, দুই পা দাপায় বিছানায়, তার পুরো শরীর ঝাঁকে। হোটেলের বিছানা কাঁপে।

সঞ্জয় ওসব অবজ্ঞা করে চুম্বন আরো গভীর করে। মার ওষ্ঠ চুষে খায় সে, জিভ দিয়ে আদর করে মার উপরের দাঁতের সারি, জিভ তুলির মর বুলিয়ে নেয় মার দাঁতের উপরে সিক্ত নরম মাড়ি, জিভ দিয়ে আদর করে মার ঠোঁটের নিচের নরম তুলতুলে লালাসিক্ত ঝিল্লি। এবারে সে টের পায় মা মুখ হাঁ করে তাকেও চুমু খাওয়া শুরু করছে। সঙ্গে সঙ্গে সে তার অশান্ত জিভ প্রবেশ করিয়ে দেয় মার মুখবিবরে। সুমিত্রা দুই হাত দিয়ে তার পিঠ জড়িয়ে ধরে ছেলের জিভ চুষে খেতে শুরু করে ক্ষুধার্তের মত। romantic sex choti

তার দুই পা আর বিছানায় ছটফট করছে না। তার সারা শরীরে আর ভূকম্পের প্রবল আন্দোলন নেই। কেবল সঞ্জয় যখন বাম হাতের মধ্যমা আঙুলটি দিয়ে তার যোনিদ্বারে ঘষছে, তখন তার শরীরের যেন মুচড়ে উঠছে, নিংড়ে নিংড়ে যোনিরমধ্যে সঞ্চারিত হচ্ছে রতিরস।
খানিকক্ষণ পরে মুখ তোলে ওরা। দুজনের মুখেই হাসি। দুজনের চোখেই উল্লাসের ঝিলিক। দুজনেই হাঁফাতে হাঁফাতে দম নিচ্ছে।
সুমিত্রা দুহাতে সঞ্জয়ের বুকে ধাক্কা মারে, “রাক্ষস একটা!”

সঞ্জয় হাসতে হাসতে আবার মার পাশে চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে, “মা, আমি ভাল রাক্ষস না?” আবার হাসে সে।
“শুধু ভাল না, আমার সাত রাজার ধন এক মানিক!” সুমিত্রা হেসে জিভ ভেঙায় ছেলেকে। তারপর বুকের আঁচল ফেলে চট করে বিছানায়। শাড়ির গিঁট খুলতে খুলতে বলে, “এবারে চান করে আসি আয়।”
বিছানা থেকে উঠে মেঝেতে দাঁড়িয়ে সুমিত্রা শাড়ি খুলে স্তূপ করে বিছানায় রাখে। তারপর দ্রুত হাতে শায়া ও প্যান্টি খুলে শাড়ির স্তূপের উপর ছুঁড়ে দেয়। romantic sex choti

সঞ্জয় তবু বিছানায় শুয়ে তার দিকে তাকিয়ে আছে দেখে ভ্রূভঙ্গি করে বলে, “কিরে ওঠ?” বলে ব্লাউজ খুলতে শুরু করে সে।
সঞ্জয় মৃদু হেসে উঠে টেবিল থেকে “ডু নট ডিসটার্ব” কার্ডটা হাতে নিয়ে মাকে বলে, “তুমি বাথরুম ঢোক, আমি দরজা বাইরে এই কার্ডটা লাগিয়ে এসে জামাকাপড় ছাড়ব।”
“ওটা কি?” সুমিত্রা আবার ভ্রূভঙ্গি করে। সে তার ব্লাউজ ব্রেসিয়ার খুলে বিছানায় ছুঁড়ে দিয়ে ঘুরে দাঁড়ায়।

“আমাদের ডিসটার্ব কোর না,” সঞ্জয় মায়ের সম্পূর্ণ নগ্ন শরীরের দিকে তাকিয়ে ইঙ্গিত করে। সে টের পায় প্রিয়তমা নারীর প্রতি তার আকাঙ্ক্ষা আবার তার শরীরে দ্রুত কাঠিন্য নিয়ে আসছে।
সুমিত্রা গাঢ় স্বরে বলে, “তাড়াতাড়ি চান করতে আয় সোনা!” romantic sex choti

মা বাথরুমে ঢুকতেই সঞ্জয় দরজা খুলে বাইরে কার্ডটা লাগিয়ে দিয়ে ঘরে এসে দরজা ছিটকিনি দিয়ে বন্ধ করে দেয়। দ্রুত সমস্ত পোষাক ছেড়ে বিছানায় ফেলে দিয়ে সে নগ্ন হয়ে বাথরুমের দরজা ঠেলে ভিতরে ঢোকে।
মা তার জন্যে যেন অধীর প্রতীক্ষায় দাঁড়িয়ে ছিল বাথরুমের ভিতরে। সে ঢুকতেই দুই হাতে তার গলা জড়িয়ে ধরে সুমিত্রা তার মাথা টেনে আনে নিজের অধরোষ্ঠে। তীব্র আগ্রাসে চুষে খায় তার অধর।

সঞ্জয় মুখ খুলতেই টের পায় তার মুখের মধ্যে প্রবেশ করেছে মার নরম সিক্ত জিভ। সে দুই চোখ বুজে ফেলে আবেশে। চুষে খায় সেই সজীব মাংসপিন্ড। তার পেটে পিষ্ট হয় সুমিত্রার স্তোকনম্র পীন স্তনদুটি। তার হাত দুটো যেন তাদের স্ব ইচ্ছায় নিচে নেমে আসে। মুঠো করে ধরে তার মায়ের নগ্ন নিতম্বের কোমল চূড়াদ্বয়। সে তার কেঠো কেঠো পরুষ আঙুলগুলি বারবার মুঠো করে পীড়ন করে সেই নরম মাংস। শুনতে পায় মার মুখে অস্ফুট শীৎকার ধ্বনি। অনেকক্ষণ পরে সে মার জিভটিকে বন্দীদশা মুক্ত করে। romantic sex choti

মুক্তি পেয়ে সুমিত্রা হাঁ-হাঁ করে হাঁফায়। সে টের পায় তার ঊরুসন্ধিতে এখন কামনার অবিরাম ক্ষরণ হয়ে চলেছে। তার উদরে, নাভির কাছের নরম মেদে চেপে বসেছে ছেলের উত্তপ্ত কঠিন কামদন্ড। ছ্যাঁকা লাগছে তার। সে কোনামতে বলতে পারে, “বাবু আমার ভিতরে আয়, এখুনি আয়!”
সুমিত্রা ছেলের গলা থেকে হাত নামিয়ে ঘুরে বাথরুমের ওয়াশ বেসিনের কাউন্টারের সামনে দাঁড়ায়। কাউন্টারের টেবিলে দুই হাত রেখে কোমর ভেঙ্গে ঊর্ধাঙ্গ মেঝের সঙ্গে সমান্তরাল করে উবু হয়ে দাঁড়ায়।

দুই পা ছড়িয়ে দেয় দুদিকে। নিঃশ্বাসপ্রশ্বাসের সঙ্গে আবার বলে সে, “ঢুকিয়ে দে দুষ্টুটাকে মায়ের ভিতরে!”
সঞ্জয় দেখে মা মাথা পিছনের দিকে করে তার দিকে তাকিয়ে আছে আকুল অপেক্ষায়। সে সঙ্গে সঙ্গে সুমিত্রার পিছনে গিয়ে দাঁড়ায়। বাথরুমের উজ্জ্বল আলোতে মার ঊরুসন্ধির ঘন কালো চুল প্রকটভাবে দৃশ্যমান। ঘন চুলের আবরণের ভিতর দিয়ে যোনিরন্ধ্র দেখা যায় না। বাম হাত মার প্রসারিত দুই ভারী ঊরুর মাঝে নিয়ে যায় সে। romantic sex choti

তালু চিৎ করে সে মার যোনিবেদীতে আদর করে। যোনিবেদীর কর্কশ কেশে তার হাত ভিজে যায় ভীষণভাবে। দুই হাত তুলে সে স্থাপন করে মার নিবিড় নিতম্বশিখরে। দুই বুড়ো আঙুল দিয়ে চেপে দুদিকে প্রসারিত করে দেয় দুই নিতম্বচূড়া। চুল সরে গিয়ে সিক্ত যোনিদ্বার, পেরিনিউয়াম ও পায়ুছিদ্র প্রকাশিত হয়। রক্তাভ যোনিমুখে মদনজল ক্ষরিত হয়ে চলেছে।
সুমিত্রা বুঝতে পারে। সে ঘন নিঃশ্বাস ফেলে বলে, “এই তো সোনা, এবারে ঢুকিয়ে দে তো দুষ্টুটাকে!”

সঞ্জয় ডান হাতে নিজের উদ্ধত লিঙ্গটি ধরে স্থাপন করে মার যোনিদ্বারে ও কটিদেশের এক মৃদু আঘাত করে সামনের দিকে। ওই আঘাতেই তার পুরুষাঙ্গের সম্পূর্ণ দৈর্ঘ্য নিমেষে অন্তর্হিত হয় মার যোনিবিবরে। সুমিত্রার প্রশস্ত নিতম্বের নরম তুলতুলে মাংস মনোরম এক প্রহার করে ছেলের তলপেটে।
মার মুখে অস্পষ্ট সুখধ্বনি কানে যেতে সঞ্জয় মৃদু হেসে বলে, “মা আমার দুষ্টুটাকে তোমার মিষ্টিটার ভিতর পুরো ঢুকিয়ে দিয়েছি!” romantic sex choti

সুমিত্রা যেন শুনতেই পায়নি ছেলের মুখের বিশ্রম্ভালাপ। সে প্রবল সুখানুভূতিতে দুই চোখ বুজে তার নিতম্ব বার বার অন্দোলিত করে। বারংবার তার পশ্চাদ্দেশ কোমল আঘাত করে সঞ্জয়ের দুই ঊরুতে, লিঙ্গমূলে ও তলপেটে। তাদের পরস্পরের যৌনকেশ ঘর্ষিত হয় প্রতিবার।
গত সোমবার রাতের পর থেকে গত পরশু, বৃহস্পতিবার অবধি পরপর তিনদিন সঞ্জয় তার মাকে পিছন থেকে রমণ করেছে। বিছানায়, সোফায় ও বাথটবে চান করার সময়।

এই তিন জায়গায়। কিন্তু প্রতিবারই হাঁটু গেড়ে বসে। সুমিত্রা রমণের সময় বড় চুম্বন পিপাসিনী হয়ে ওঠে। তারা এই আসনেও গভীরভাবে চুমু খাওয়ার বিভিন্ন উপায় আবিষ্কার করে নিয়েছে। সঞ্জয় আরও একটি জিনিস আবিষ্কার করেছে। সে জেনেছে যে এই আসনে তার পুরুষাঙ্গ যখন সম্পূর্ণ মাতৃযোনিতে প্রবিষ্ট, তখনই মার পায়ুরন্ধ্র সবচেয়ে উন্মুক্ত। মার গুহ্যছিদ্র তখনই গ্রহণ করার জন্যে সবচেয়ে বেশি প্রস্তুত। romantic sex choti

সঞ্জয় মার কোমরের দুপাশে হাত দিয়ে চেপে ধরে ও তার কামদন্ডটি আবার ঢুকিয়ে দেয় মাতৃশরীরে। মার পায়ুদ্বার ফুলে প্রস্ফুটিত হয়ে উঠতে দেখে সে তার ডান হাত নিয়ে যায় সেখানে। আঙুল দিয়ে আদর করে। মার পায়ুমুখের চারপাশের নরম রোমে আদর করে সে। তারপর দুহাতে বেড় দিয়ে জড়িয়ে ধরে মায়ের নরম মেদাবৃত উদর। ডান হাতের তালু দিয়ে আদর করে সুমিত্রার নাভিমূলে। একই ছন্দে পুরুষাঙ্গ নিষ্কোশিত করে আবার প্রবিষ্ট করে দেয় মার যোনির অভ্যন্তরে।

সুমিত্রা নিবিড় সুখে শিউরে ওঠে। তার সারা শরীর দলিত মথিত হওয়ার সুখে এক গভীর কামনা স্বতোৎসারিত হয়। সে ডান হাত নিজের পেটের কাছে নিয়ে যায়। ছেলের ডান হাতটি ধরে স্থাপন করে নিজের পায়ুমূলে।
সঞ্জয় মার ইঙ্গিতে উৎসাহ পায় আরও। গত তিনদিনই পিছন থেকে রতিক্রিয়া করার সময় সে মার পায়ুছিদ্রে নিজের আঙুল প্রবেশ করিয়েছে। প্রথম দিনের মত দুই আঙুল ঢুকায়নি অবশ্য। romantic sex choti

এবার বুড়ো আঙুল দিয়ে আদর করে মায়ের গোপন ছিদ্রের চারপাশে। সেখানের দীর্ঘ কালো রোম গুলিকে বড় প্রিয়, বড় আপন মনে হয় তার। জিভ দিয়ে চাটতে ইচ্ছে করে।ছেলের বুড়ো আঙুলের আদরের ছন্দে ছন্দে তাল মিলিয়ে সুমিত্রা তার নিতম্ব আগুপিছু করে ছেলের প্রেমদন্ডে নিজের রস সংপৃক্ত যোনিগহ্বর মন্থন করে অবিরাম। সঞ্জয় বের করে নেয় নিজের পুরুষাঙ্গ মার কামালিন্দ থেকে। তর্জনী ও মধ্যমা ঢুকিয়ে দেয় সেখানে। আহরণ করে আনে মায়ের রতিরস।

সেই পিচ্ছিল রস ভাল করে সিঞ্চন করে সিক্ত করে মার মলদ্বার। তারপর পুনরায় নিজের লিঙ্গদণ্ড প্রোথিত করে মার রতিগহ্বরে। সুমিত্রার মুখে উদ্গত হয় রতিকূজন, “উমম্ সোনা, উমম্, আহহ, ওহহ, আঙুলটা ঢুকিয়ে দে?!”
মার মুখে সুখধ্বনি ওঠার আগেই সঞ্জয় তার তর্জনীর এক কর অবধি ঢুকিয়ে দেয় মার পায়ুছিদ্রে। একেবারে সঠিক সময়ে। ঠিক যখন মা তার পাছা ঠেলে গ্রাস করে নিল তার লিঙ্গ, ঠিক সেইসময়। romantic sex choti

সুমিত্রা তার কোমর সামনের দিকে টেনে নিয়ে গিয়ে আবার উদ্গীরণ করে ছেলে লিঙ্গাংশ। পিছন দিকে সে তার পাছা আবার ঠেলে দেওয়ার সময় কাতরে ওঠে, “আরেকটু সোনা, উওহহ, ওহহ!”
সঞ্জয়ে বাম হাতে শক্ত করে মার ঊরু ধারণ করে, ডান হাতের তর্জনী পুরোটা প্রবেশ করিয়ে দেয় মার শরীরে। তার আঙুলের চারিপাশে নরম, কোমল উষ্ণ অনুভূতি। পুরো আঙুলটি সে এক টানে বের করে নেয়। আবার ঢুকিয়ে দেয় এক মসৃণ গতিতে।

সুমিত্রা মাথা নাড়ে, “আস্তে আস্তে কর সোনা, খুব আস্তে”
“খুব আস্তে মা?” সঞ্জয় আঙুলটা একদমই স্থির রাখে পায়ুগহ্বরে।
“হ্যাঁ সোনা, পাছুর চারপাশে হাতের মুঠো আস্তে আস্তে নাড়া!” romantic sex choti

তর্জনী পুরো ঢুকে থাকার ফলে সঞ্জয়ের অন্য আঙুলগুলির গাঁট এখন মার পায়ুমুখের সন্নিহিত দেয়ালে লেগে রয়েছে। সে মার কথামত সেইরকম নাড়াতেই সুমিত্রা বলে, “হ্যাঁ, হ্যাঁ, এই তো, এই তো!” ছেলের আঙুলের গাঁটের ঘষা লেগে তার পায়ুদ্বারের কাছে অতি সংবেদনশীল স্নায়ুগুলিতে তীব্র সুখানুভূতিতে মাতাল হয়ে যায় তার মন। মার যোনিগর্ভে তো তার শরীরের একটি অঙ্গ প্রবিষ্ট, তার কামাঙ্গ। আর মলনালীতে পুরোটা ঢুকিয়ে দিয়েছে নিজের তর্জনী। মলনালী কি বেশি আঁটোসাটো? প্রায় একই ধরনের সুখানুভূতি।

সঞ্জয় পার্থক্য ধরতে পারেনা। তবে কোমল সিক্ততা যেন যোনিতে বেশি। মলনালীর সিক্ততা যেন কোমল, সিক্ত, তবে আঠালো। আঙুলের চারিদিকে বিচরণে যেন সামান্য বেশি বল প্রয়োগ করতে হয়। সে চারপাশে আরো বড় ব্যাসার্ধে চক্রাকারে ঘুরায় আঙুলটি। মায়ের মুখে প্রেমধ্বনি গুঞ্জরিত হয়। তার কানে দৈব সঙ্গীতের মত বাজে সেই মায়ের গলার সুর। romantic sex choti

সঞ্জয় হঠাৎই সচেতন হয়ে ওঠে যে তার আঙুলে আরেকটি অনুভূতি। সেটি হল মার যোনিনালীতে তার পুরুষাঙ্গের গমনাগমনের অনুভব। তার মনে হয় যদি সে তার পুরো হাত মার মলনালীতে ঢুকিয়ে দিতে পারতো, হয়ত সে মুঠো করে ধরতে পারত নিজের পুরুষাঙ্গ। তার আর কিছু খেয়াল থাকে না। মনে হয় তার জীবনে একটি মাত্র উদ্দেশ্য। কেবল কোমর দিয়ে ভীষণ ভীষণ ভীষণ প্রহার করা সম্মুখের ওই কোমল নিতম্বে, আর বারবার প্রোথিত করা তার পৌরুষ ওই মনোহারিণী সিক্ত সুড়ঙ্গে।

তার কটিছন্দে সুমিত্রার নরম নিতম্বের মাংসে উন্মাদ তরঙ্গ ওঠে। তরঙ্গে বারবার নিতম্বের মাংস যেন থলাৎ থলাৎ ছন্দে তার দেহের বাইরে, চারপাশে ছড়িয়ে পড়তে চায়। আর প্রবল প্রহারে শব্দ ওঠে থপাত থপাত। সুমিত্রা অনুভব করে তার যোনিভ্যন্তর যেন আলৌকিকভাবে পর্বতের গুহার মত বড় হয়ে গেছে, সেখানে ঝর্ণা বয়ে চলেছে। আর তার প্রিয়তম পুরুষের কামদন্ড প্রকান্ড শালবৃক্ষের মত। তার ভিতরে মন্থন করে চলেছে আবহমান কাল ধরে। সে তার পাছা আবার পিছনে ঠেলে নিয়ে যায়। romantic sex choti

মাগো এসুখ যেন কোনওদিন শেষ না হয়। তারপরই তার সব কিছু চিন্তা এলোমেলো হয়ে যায়। মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়ে তীব্র সুখানুভূতি। ডুকরে ওঠে সুমিত্রা, “আরো জোরে দে সোনা, ভিতরে পুরোটা ঢুকিয়ে দে!” সঞ্জয় কাতরে ওঠে, “মা, সুমিত্রা, আমার সুমিত্রা…”আর কিছু বলতে পারে না সে। সে অন্ধ হয়ে যায়, তার দুই চোখের পিছনে তীব্র সাদা আলো! অনুভব করে তার লিঙ্গমুখ থেকে ধ্বক ধ্বক করে বেরিয়ে গেল দেহের নির্যাস। নিঃশেষ হয়ে গেল সে। স্থাণু হয়ে মার দেহে প্রোথিত হয়ে সে দাঁড়িয়ে থাকে অনেকক্ষণ।

ডান হাতের আঙুলটি বের করে নিয়ে ধুয়ে নেয় সে ওয়াশ বেসিনে। তারপর দুই হাত নিয়ে মার যোনির ঠিক নিচে ধরে ও অর্ধশিথিল পুরুষাঙ্গ বের করে নেয়। তপতপ করে শুক্ররস গড়িয়ে পড়ে তার হাতের তালুতে। সুমিত্রাও যোনিমুখ ডান হাতে চেপে ধরে দাঁড়ায় আর ঘুরে বাম হাত দিয়ে ছেলেকে জড়িয়ে ধরে। দুজনে এগিয়ে যায় শাওয়ারের তলায়। romantic sex choti

প্রাণভরে স্নান করে দুজনে প্রায় আধঘন্টা পরে তাদের শোয়ার ঘরে ফিরে এল। নগ্ন সুমিত্রার মাথায় কেবল হোটেলের সাদা তোয়ালেটা জড়ান। সঞ্জয় সম্পূর্ণ নগ্ন। ওই তোয়ালেটা দিয়েই তারা গা মুছেছে। ঘরে ঢুকে সঞ্জয় চট করে একটা স্যান্ডো গেঞ্জি ও বক্সার প্যান্ট পরে নেয়। চিরুনি দিয়ে মাথা আঁচড়ে নেয় তারপর। সুমিত্রা শরীরে একটা সুতির নাইটি গলিয়ে চুল আঁচড়াতে শুরু করে।

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

কেও এখনো ভোট দেয় নি

5 thoughts on “romantic sex choti সুন্দর শহরের ঝাপসা আলো – 48 Jupiter10”

Leave a Comment