romance books শেষের পাতায় শুরু – 24 by Pinuram

bangla romance books choti. ঝিনুকের কোলবালিশ নিয়ে ঘুমানোর অভ্যেস, নতুন বাড়ি নতুন জীবনে পদার্পণ করার পরে সেই কোলবালিশ পায়নি, তবে একটা বালিশকে কোল বালিশ বানিয়ে বুকের কাছে জড়িয়ে ধরে লেপের তলায় একটু কুঁকড়ে রোজদিন ঘুমাতো। ভোরের বেলায় আধোঘুমে আধো জাগরনে ওর মনে হল সেই কোলবালিশ আর ওর পাশে নেই। মাথার নিচে চির পরিচিত বালিশের অনুপস্থিতি অনুভব করতে পেরে পদ্মকুড়ির মতন চোখ জোড়া মেলে ঘুমন্ত রিশুর দিকে তাকায়।

গতকাল কখন যে রিশুকে জড়িয়ে ধরে এই ভাবে ঘুমিয়ে পড়েছিল খেয়াল নেই। রিশুর একদিনের না কাটা খোঁচা খোঁচা দাড়িভর্তি গালের ওপরে আঙ্গুল বুলিয়ে রিশুর বাহু বেষ্টনীর আগল ভাঙতে চেষ্টা করে। হাতের ওপরে টান পড়তেই ঘুম ঘুম চোখ মেলে তাকায় রিশু, চোখের সামনে সুন্দরী প্রেয়সীর মিষ্টি মুখবয়াবের দর্শন পেয়ে মুচকি হাসি দেয়। গত রাতে নেশামত্ত প্রেমিকাকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে পরার কথা মনে পড়তেই বাহুবেষ্টনি আরো নিবিড় করে বেঁধে ফেলে ঝিনুকের নধর দেহপল্লবের ওপরে।

romance books

ঝিনুক রিশুর মুখের ওপরে আলতো উষ্ণ ফুঁ দিয়ে মিহি কন্ঠে বলে, “ওঠ গো, রোজি চলে আসবে একটু পরে।”

রিশু ভীষণ ভাবেই ঝিনুককে জড়িয়ে ধরে মিহি কন্ঠে বলে, “ভোর হয়ে গেল?”

হেসে ফেলে ঝিনুক, অন্যদিনে ঝিনুকের আগেই রিশুর ঘুম ভেঙ্গে যেত আর সেইদিন রিশুর ঘুম ঘুম চোখ দেখে ভীষণ ভাবেই প্রেমাবেগ পেয়ে বসে ওকে। বাঁ হাতের কোমল চাঁপার কলি আঙ্গুল মেলে রিশুর মুখের ওপরে আঙ্গুল বুলিয়ে মিষ্টি করে বলে, “আচ্ছা তুমি শুয়ে থাকো আমি চা বানিয়ে আনছি।”

মুখের ওপরে কোমল আঙ্গুলের পরশে সর্বাঙ্গের রোমকূপ একত্রে উন্মিলিত হয়ে মিলনেচ্ছুক হয়ে ডাক ছাড়ে, “উমমমম… আর একটু…”

পাতলা টপ ফুঁড়ে পীনোন্নত স্তন যুগল রিশুর প্রসস্থ ছাতির ওপরে পিষে যায়। ঝিনুকের হৃদয়ের মৃদু ধুকধুকানির কম্পন অনায়াসে নিজের ছাতির ওপরে অনুভব করে বিহ্বল হয়ে পরে রিশু। রিশুর বুকের ছোঁয়া পেয়ে ঝিনুকের স্তনাগ্র জোড়া তপ্ত নুড়ি পাথরের মতন কঠিন হয়ে ওঠে, রিশুর ছাতি জ্বালিয়ে দিতে তৎপর হয়ে ওঠে সুগোল নিটোল স্তন জোড়া। romance books

রিশুর পেটের সাথে ঝিনুকের পেট মিশে যায়, নিজের তুলতুলে নরম পেটের ওপরে রিশুর তপ্ত পুরষত্ত্ব নিজের অস্তিত্বের অবস্থানের জানান দেয়। দিল্লীর ভোরের এই ঠান্ডায় দুই কামড়ার ছোট এক ফ্লাটের ছোট একটা ঘরের মধ্যে এক বিছানায় ধিকিধিকি করে প্রেমের আগুন জ্বলতে শুরু হয়।

ঠিক সে সময়ে কলিং বেলের টুং টাং আওয়াজে হেসে ফেলে ঝিনুক, “বেশ হয়েছে, এবারে আমি চললাম।” যদিও প্রেমিকের উষ্ণ বাহুডোর ছেড়ে একদম উঠতে ইচ্ছে করছিল না তাও বহু কষ্টে উষ্ণ বাহুপাশ ছাড়িয়ে লেপ ছেড়ে উঠে পরে বলে রিশুকে উত্যক্ত করার জন্য নাক কুঁচকে ইয়ার্কি মেরে বলে, “ডাক্তার বাবু হসপিটাল যেতে হবে।”

অগত্যা রিশুকে বিছানা ছেড়ে উঠে পড়তে হয়। গায়ের ওপরে একটা কারডিগান চাপিয়ে মাথার চুল মাথার পেছনে একটা এলো খোঁপায় বেঁধে রিশুর গায়ের ওপরে লেপ টেনে দিয়ে মুচকি হেসে বলে, “উঠতে হবে না, আমি চা নিয়ে আসছি।”

বিছনায় চা খাওয়ার অভ্যেস নেই ওর। বাড়িতে থাকলে মায়ের বকুনির ফলে আগে দাঁত ব্রাশ করতে হয় তারপরে বসার ঘরে সবাই মিলে বসেই সকালের চায়ের পর্ব চলে। প্রেয়সীর হুকুম অমান্য করার সাধ্য এই পৃথিবীতে কারুর নেই, অগত্যা রিশু ঘুম জড়ানো চোখেই নধর দেহপল্লবে ঢেউ তুলে ওর মাধবীলতাকে সদর দরজার দিকে এগিয়ে যেতে দেখে। romance books

সদর দরজা খুলে কাজের মেয়েকে বাড়ির মধ্যে ঢুকিয়ে ঝিনুক রান্নাঘরে ঢুকে পরে চা বানানোর জন্য। চায়ের জল চাপিয়ে মনে মনে হেসে ফেলে, রাতের কথা ভাবতেই বুকের রক্ত চঞ্চল হয়ে ওঠে। রিশুর উষ্ণ পরশে কখন ঘুম এসে গিয়েছিল খেয়াল নেই, শীতের রাতে এক লেপের তলায় সাপের মতন একে ওপরকে আষ্টেপিষ্টে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে পরার আনন্দ অনুভতি ওর সারা অঙ্গে মাখোমাখো ভাবে লেগে। চায়ের জল চাপিয়ে দিয়ে বাথরুমে ঢুকে ব্রাশ সেরে ফেলে ঝিনুক। কাজের মেয়েটা ঘরের কাজে লেগে পরে।

বিছানায় শুয়ে রিশু নিজের বাম বাজু দেখে, এই বাজুর ওপরে মাথা রেখে ওর নববিবাহিতা স্ত্রী সারা রাত ঘুমিয়েছে, ওর নাকে এখন ঝিনুকের গায়ের মিষ্টি গন্ধের রেশ ভেসে আসে। মাখনের মন্ডের মতন কোমল ঝিনুকের দেহপল্লব, পিচ ফলের মতন নরম গালে চুমু খাওয়ার ইচ্ছেটা ওই কাজের লোক এসে ভেস্তে দিল। ধ্যাত, এইভাবে শুতে ভালো লাগে নাকি? কোথায় গেল মেয়েটা, চা বানাতে এত সময় লাগে নাকি? romance books

আড়ামোড়া ভেঙ্গে বিছানা ছেড়ে শেষ পর্যন্ত উঠে পড়ল রিশু। শোয়ার ঘর থেকে বেড়িয়ে রান্নাঘরে উঁকি মেরে ঝিনুকের দিকে তাকিয়ে দেখে যে ও চা ছাঁকতে ব্যাস্ত। গলা খ্যাঁকরে নিজের জানান দিতেই ঘাড় ঘুরিয়ে ওর দিকে তাকিয়ে থাকে ঝিনুক, কি হল উঠে পরলে যে? এই প্রশ্নটা ওর চোখে মুখে স্পষ্ট। মুখ বেঁকিয়ে ইশারায় উত্তর দেয়, তুমি নেই একা একা বিছানায় শুয়ে কি করব।

ব্যাথা বুঝতে পেরে ঝিনুক হেসে ফেলে, “আচ্ছা বাবা, যাও ফ্রেশ হয়ে নাও চা তৈরি।”

বাথরুমে ঢুকে ব্রাশে পেস্ট নিয়ে জিজ্ঞেস করে, “তুমি ব্রাশ করেছ?”

মাথা দোলায় ঝিনুক, “হ্যাঁ।”

ব্রাশ করে বাথরুম থেকে বেড়িয়ে সোফায় বসে পরে রিশু। দুটো কাপে চা নিয়ে একটা ওর হাতে ধরিয়ে পাশ ঘেঁষে বসে পরে ঝিনুক। “কাল রাতে শেষ পর্যন্ত ঘুমিয়েই পরলে।” চোখে মুখে ভীষণ একটা আদুরে দুষ্টুমির হাসি।

চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে উত্তর দেয়, “যাঃ বাবা, আমার আগে তুমি ঘুমিয়ে পড়লে তার বেলায় কিছু না।”

রিশুর কাঁধের ওপরে মাথা রেখে ওর দিকে ঘুরে তাকিয়ে নিচের ঠোঁট দাঁতে কেটে ফিসফিস করে বলে, “ওইভাবে জড়িয়ে ধরলে কার না ঘুম পায় বলো।” romance books

রেশমি চুলের মধ্যে নাক ঘষে প্রেয়সীর গায়ের সুঘ্রাণ আস্বাদন করে জিজ্ঞেস করে, “তুমি তাহলে আজকে শপিং করতে যাচ্ছও?”

একটু ভেবে ঝিনুক উত্তর দেয়, “এখন ঠিক জানি না, রিতিকা ফোন করলে তবে বুঝতে পারবো।”

মাথা দোলায় রিশু, “সাবধানে যেও, আর হ্যাঁ ওর ফোন নাম্বারটা আমাকে দিয়ে যেও।”

ফিক করে হেসে ফেলে ঝিনুক, “কেন আমার ওপরে বিশ্বাস নেই নাকি?”

রিশু উত্তরে বলে, “যার ওপরে তোমার বিশ্বাস নেই তার ওপরে আমার কি করে বিশ্বাস থাকবে বলো।”

কথাটা ঠিক ভাবে বুঝতে পারল না ঝিনুক, “মানে?”

রিশু বুঝিয়ে বলে, “কেন, গতকাল রাতে তুমি বললে যে রিতিকা তোমার ব্যাচমেট, এর বেশি তোমাদের মধ্যে সেই ভাবে বন্ধুত্ত ছিল না কোনদিন।” মাথা দোলায় ঝিনুক, একদম ঠিক। রিশু বলে, “তাই বলছি।”

চা শেষ করতেই রিশুর ফোন বেজে ওঠে, অপর প্রান্তে ওদের ডিপারটমেন্টের এইচওডি ধিলোন স্যার, “হ্যালো গুড মর্নিং, মেইল চেক করেছ?”

হটাত করে কি হল, “না স্যার, কিছু হয়েছে কি?”

রিশুকে ফোনে কথা কাজের কথা বলতে শুনে একটু তফাত হয়ে বসে। রিশু ওকে ইশারায় জানিয়ে দেয় যে ওর এইচওডি ফোন করেছেন।

ডক্টর ধিলোন হেসে বলেন, “লন্ডন থেকে তোমার লেটার এসে গেছে।” romance books

ওর ডাক্তারির ক্যারিয়ারের জন্য এই সেমিনারে যাওয়া ভীষণ ভাবেই জরুরি, কিন্তু এখন এই বিষয়ে ঝিনুককে কিছুই বলা হয়নি। উচ্ছাস চেপে ফোনে উত্তর দেয়, “ওহ তাই নাকি স্যার? আচ্ছা আমি চেক করে নেব।”

ডক্টর ধিলোন বলেন, “তোমার পাসপোর্টটা এডমিন ডিপার্টমেন্টকে আজকেই দিয়ে দিও। এই সপ্তাহের মধ্যে তোমার ভিসা এসে যাবে। জানুয়ারির ফার্স্ট উইকে স্পাইন এন্ড নেক ইঞ্জিউরির ওয়ার্কশপ তারপরে দুইদিন সেমিনার।”

কথাটা শুনে ভীষণ ভাবেই অপ্রস্তুত হয়ে পরে রিশু, “কিন্তু স্যার, সেমিনার সেকেন্ড উইকে হওয়ার কথা ছিল যে।”

ডক্টর ধিলোন বলেন, “সেমিনার সেকেন্ড উইকে তবে ওয়ার্কশপটা ওরা এগিয়ে দিয়েছে।”

মাথা দোলায় রিশু, “ওকে স্যার, আমি পাসপোর্ট নিয়ে আসবো।”

ধিলোন স্যারের ফোন রাখার পরে ঝিনুকের দিকে তাকিয়ে দেখে, ওর চোখে হাজার প্রশ্ন, “তুমি কোথাও যাচ্ছও?”

প্রশ্ন শুনে একটা অপরাধবোধ জেগে ওঠে রিশুর মধ্যে, হয়ত ওকে আগেই এই ব্যাপারে জানিয়ে দেওয়া উচিত ছিল। মাথা দোলায় রিশু, “হ্যাঁ, নেক্সট মাসের শুরুতে লন্ডনে আমার একটা ওয়ার্কশপ আর সেমিনার আছে।”

কথাটা শুনে ভীষণ ভাবেই আহত হয় ঝিনুক, ছলছল চোখে সোফা ছেড়ে উঠে ওর দিকে দেখে বলে, “এতদিন জানাওনি তো?”

ঝিনুকের ছলছল চোখ দেখে ভীষণ ভাবেই ব্যাথিত হয় রিশুর বুক। প্রেয়সীকে সান্ত্বনা দিয়ে বলে, “লেটার আজকে এইমাত্র এসেছে। না আসা পর্যন্ত কি করে তোমায় বলি?” romance books

গভীর চোখে রিশুর চোখের দিকে তাকিয়ে থাকে, সত্যি বলছে না মিথ্যে বলছে? কিন্তু এইমাত্র রিশুর এইচওডি তাই জানালো যে লেটার এই মাত্র এসেছে। গুটিগুটি পায়ে রিশুর সামনে এসে দাঁড়িয়ে ওর দিকে মুখ তুলে শুকনো গলায় বলে, “আর আমি…”

ঝিনুকের দুই কাঁধে হাত রেখে কাছ টেনে বলে, “আমি তোমাকে কোলকাতা রেখে আসবো, এই মাত্র কয়েকদিন।”

নাহ, এই তো সবে ওদের মাঝের বরফ গলতে শুরু করেছে আর এর মধ্যেই আবার দূরে সরে যাবে? বিরহ বেদানায় মুখ পাংশু হয়ে আসে ঝিনুকের, “না আমি কোথাও যাবো না।”

কাজের মেয়ের রান্না শেষ হয়ে গেছে, ওর সামনে ঝিনুককে জড়িয়ে ধরতে লজ্জা লাগে রিশুর, তাও সেই লজ্জার মাথা খেয়ে প্রেয়সীর চিবুকে আঙ্গুল দিয়ে নিজের দিকে তুলে ধরে বলে, “প্লিজ একটু বুঝতে চেষ্টা কর। এখানে একা থাকবে কি করে?”

মাথা ঝাঁকিয়ে কচি বাচ্চার মতন অভিমান করে বলে, “আমি কিছু জানি না, বাট আমি কোলকাতা যাবো না।”

ঝিনুকের মুখখানি আঁজলা করে নিজের দিকে তুলে ধরে বলে, “আচ্ছা আমি শালিনীর সাথে কথা বলে দেখি, তুমি না হয় ওই কদিন ওদের সাথে থেকে যেও।”

চুপ করে রিশুর মুখের দিকে একভাবে তাকিয়ে থাকে, দূরত্ব ব্যাবধান বিরহ হয়ত এই ওর কপালে লেখা। ত্বকের থেকে এখন রিশুর উষ্ণ ওমের রেশ মুছে যায়নি তার আগেই বিরহের সুর বেজে উঠেছে। ডাক্তার সত্যি ওকে অনেক ভালোবাসে, ওর যাতে ঠান্ডা না লাগে তাই প্লেন থেকে নেমে সুটকেস খুলে একটা শাল বের করে গলায় মাথায় জড়িয়ে দিয়েছিল। romance books

ওর সামনে দাঁড়িয়ে মানুষটা শুধু মাত্র ওর প্রেমিক ওর স্বামী নয়, সে একজন নামকরা হসপিটালের অরথপেডিক সার্জেন। বুকে যদিও একটু ব্যাথার সুর বাজছে কিন্তু এইভাবে কান্নাকাটি করা ঠিক নয় সেটা বুঝতে ওর দেরি হয় না।

চোখের কোল মুছে ঠোঁটে হাসি টেনে বলে, “আচ্ছা আমি মামনিকে ফোন করে জিজ্ঞেস করে নেব।”

টুক করে কোমল গালের ওপরে একটা চুমু খেয়ে বলে, “এই তো, আমার দুষ্টু মিষ্টি সব বোঝে।”

গালে যেখানে রিশুর ঠোঁট ছুঁয়েছিল সেখানে আঙ্গুল ছুঁয়ে মিষ্টি হেসে বলে, “এবারে হসপিটালের জন্য দেরি হচ্ছে না?”

চোখে মুখে অপ্রস্তুতের হাসি মাখিয়ে বলে, “যাচ্ছি বাবা।”

অন্যদিনে সকালের চা পাঁচ মিনিটে খাওয়া হয়ে যায়, সেদিন ঘুম থেকেই উঠতে অনেক দেরি হয়ে গিয়েছিল, তারপরে এইভাবে কোল ঘেঁষে প্রেয়সীকে বসিয়ে চা খেতে খেতে অনেকটা সময় কেটে যায়। তাড়াতাড়ি স্নানে ঢুকে পরে রিশু। অন্যদিন সকালে ঝিনুক বেশির ভাগ সময় নিজের শোয়ার ঘরের মধ্যেই কাটিয়ে দেয়, শুধু মাত্র রিশু বেড়িয়ে যাওয়ার সময় একটু বেড়িয়ে দরজা বন্ধ করে একটু বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকে। romance books

কিন্তু সেদিন, আলমারি খুলে রিশুর জন্য কাচা জামা কাপড় বের করতে প্রস্তুত হয়ে যায়। কাজের মেয়ে সকালের খাবারে রুটি আর আলুর তরকারি বানিয়েছিল সেটা একটা প্লেটে করে খাওয়ার টেবিলে সাজিয়ে রাখে। রিশুর ঘরে ঢুকে ওর স্টেথোস্কোপ আর এপ্রন গুছিয়ে দেয়। স্নান সেরে বেড়িয়ে ঝিনুককে দেখে রিশুর অবাক হওয়ার পালা, ওর জন্য জামা কাপড় বিছানার ওপরে তৈরি করে রাখা, স্টেথো আর এপ্রন গুছিয়ে রাখা।

ঝিনুককে ছেড়ে যেতে কিছুতেই ইচ্ছে করছিল না রিশুর, কাজের মেয়েটা কাজে না থাকলে হৃদয়ের আগল মুক্ত করে চুম্বনে চুম্বনে ভরিয়ে তুলতো প্রেয়সীকে। কোমল টসটসে গালে চুমু খেয়ে ঠিক মন ভরেনি ওর। হাতে এখন সময় নেই না হলে বাহুপাশে বদ্ধ করে ঝিনুককে উড়িয়ে নিয়ে চলে যেত কোন অজানা প্রান্তরে।

জামা কাপড় পড়তে পড়তে ঝিনুককে জিজ্ঞেস করে, “এই কয়দিনে অনেক কিছু দেখে শিখে গেছো?”

বুক ভরে শ্বাস নিয়ে মিষ্টি হেসে মাথা দোলায় ঝিনুক, “কাল রাতেই তো বললে তুমি নাকি আমার ঘুড়ির লাটাই।” ওর বুকের কাছে সরে এসে জামার বোতাম গুলো এক এক করে লাগাতে লাগাতে বলে, “সুতো যেদিকে নড়বে ঘুড়ি সেদিকেই উড়বে, তাই না।”

জামাকাপড় পরে তৈরি হয়ে কোন মতে সকালের জলখাবার খাওয়া সারে রিশু। সারাটা সময় ওর আশেপাশে ঘুরঘুর করছিল ঝিনুক, কিছুতেই ছাড়তে ইচ্ছে করছিল না। romance books

অফিসে বেড়িয়ে যাওয়ার আগে, ঝিনুকের দিকে একটু ঝুঁকে কপালে কপাল ঠেকিয়ে মৃদু হেসে বলে, “তুমি দশ পর্যন্ত গুনো দেখবে আমি তার মধ্যে চলে আসব।”

সিঁড়ি দিয়ে নেমে যাওয়া পর্যন্ত দরজা খুলে ওর দিকে নিস্পলক চোখে তাকিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল ঝিনুক। সিঁড়ির ল্যান্ডিঙ্গে দাঁড়িয়ে আরো একবার প্রেয়সীর দিকে ঘুরে তাকায়।

মনে মনে খুব তাড়াতাড়ি গুনতে শুরু করে, এক-দুই-তিন-চার-পাচ-ছয়-সাত-আট-নয়… ডান হাত তুলে একটু নাড়িয়ে হৃদয় নিঙরে ঝিনুকের ঠোঁট থেকে বেড়িয়ে আসে, “দশ…”

প্রেয়সীর সুমিষ্ঠ গলা শুনে ঘুরে দাঁড়ায় রিশু। মাথা নাড়িয়ে মনে মনে বলে, আজকে আমাকে হসপিটাল যেতেই দেবে না। বড় বড় পা ফেলে এক দৌড়ে নিজের ফ্লাটের দরজায় উঠে চলে আসে। সব কিছু ভুলে ওকে দেখতে পেয়ে দৌড়ে এসে বুকের ওপরে ঝাঁপিয়ে পরে ঝিনুক। ল্যাপটপের ব্যাগ মেঝেতে রেখে, আঁজলা করে সুন্দরী ললনার মুখ নিজের দিকে তুলে ধরে। বড় বড় কাজল কালো চোখ মেলে তাকিয়ে থাকে রিশুর দিকে।

ঝিনুকের প্রসাধনিহীন নরম গোলাপি ঠোঁট জোড়া আসন্ন প্রেমের আবেগের বশে তিরতির করে কাঁপতে শুরু করে দেয়। রিশুর মাথা নেমে আসে ঝিনুকের মুখের ওপরে। দুই হাতে রিশুর জ্যাকেটের কলার চেপে ধরে ওর মাথা টেনে নামিয়ে আনে নিজের ঠোঁটের কাছে। অন্তর্বাসহীন নিটোল পীনোন্নত স্তন যুগল পিষে ধরে দয়িতের প্রসস্থ বুকের ওপরে। রিশুর উষ্ণ শ্বাসের ঢেউয়ে ভরে ওঠে ঝিনুকের মুখমন্ডল। romance books

তৃষ্ণার্ত কপোতের অধর মিশে যায় কপোতীর কোমল অধরে। ঝিনুকের নিচের ঠোঁট আলতো করে দুই ঠোঁটের মাঝে নিয়ে আলতো চুষে ধরে। তিরতির করে সারা শরীর কেঁপে ওঠে ঝিনুকের, রিশুর প্রথম চুম্বনে হারিয়ে যায়। মাথা একদিকে বেঁকিয়ে দিয়ে গোলাপি জিব ঠেলে দেয় রিশুর মুখের মধ্যে। রিশু একবার ঝিনুকের নিচের ঠোঁট আলতো করে চুষে দেয় তারপরে নিচের ঠোঁট ছেড়ে উপরের ঠোঁট চুষতে শুরু করে।

প্রেমের অতিশজ্যে নিজেকে আর ঠিক রাখতে পারে না ঝিনুক, ওর শ্বাস বন্ধ হয়ে আসে, চোখ বন্ধ করে কামড়ে ধরে রিশুর নিচের ঠোঁট। সময় থমকে দাঁড়িয়ে পরে প্রেমে বিভোর দুই কপোত কপোতীর অধর ওষ্ঠ মিলনের দৃশ্যে।

বেশ কিছুক্ষন পরে প্রগাড় চুম্বন ভঙ্গ করে বুকের কাছে সুন্দরী ললনাকে জড়িয়ে ধরে মিহি কন্ঠে বলে, “দুষ্টু মেয়ে…”

রিশুর বুকের বাম দিকে একটা কিল মেরে মিষ্টি লাজুক হেসে বলে, “শয়তান…”

বহুকষ্টে সেই প্রাগড় প্রেমের বাহুপাশ কাটিয়ে হসপিটালের উদ্দেশ্যে বেড়িয়ে পড়ল রিশু। ডিসেম্বরের শেষের দিক, দিনের বেলা হলেও কুয়াশার রেশ কাটেনি তখন। শীতকালে দিল্লীতে কুয়াশার চেয়েও যেটা ভয়ঙ্কর সেটা হল আশে পাশের রাজ্যের মাঠে জ্বালানো খড়কুটোর ধোঁয়া, এই ধোঁয়া দিল্লীর বাতাসে মিশে দুষিত করে তোলে, মানুষের জীবন দুর্বিষহ করে তোলে। বাইকে কিক মারার আগে নিজের ফ্লাটের বারান্দায় চোখ চলে যায়। ওর ঠোঁটে ওর বুক জুড়ে তখন প্রেয়সীর প্রথম প্রেমের চুম্বনের পরশ মাখা। romance books

ওর রূপসী তন্বী স্ত্রী ওর জন্য বারান্দায় দাঁড়িয়ে। দরজা বন্ধ করার আগের মুহূর্ত পর্যন্ত গায়ে ঘেঁষে ছিল, কিছুতেই যেন ওকে ছাড়তে চাইছিল না। হেলমেট পরার আগে, ঠোঁট কুঁচকে ছোট এক চুমুর ইশারা করে প্রেয়সীর দিকে। অন্যদিন এতটা ফাঁকা ওর লাগত না, কিন্তু সেদিন বারান্দায় দাঁড়িয়ে রিশুকে বাইক স্টার্ট করতে দেখে হুহু করে ওঠে ওর বুকের পাঁজর।

কিছু একটা যেন হারিয়ে যাচ্ছে ওর জীবন থেকে। যতবার নিজেকে বুঝাতে চেষ্টা করে, তোর ডাক্তার তোর কাছেই আছে শুধু মাত্র হসপিটাল যাচ্ছে। ধ্যাত পোড়া মন, এতদিন পরে খুঁজে পাওয়া প্রেমের আবেগ এইভাবে নিমেষের মধ্যেই শেষ হওয়া যায় নাকি?

ডাক ছেড়ে ওঠে ওর বুকের পাঁজর, “সাবধানে যেও।”

রাস্তার বাঁকে রিশুর বাইক হারিয়ে না যাওয়া পর্যন্ত বারান্দায় দাঁড়িয়েছিল ছিল ঝিনুক।

এতদিন একটা দুঃস্বপ্নের মধ্যে যেন ওর জীবনটা কাটছিল, এই বদ্ধ ঘরের মধ্যে মাঝে মাঝেই শ্বাস আটকে আসতো ওর। সেই এক দেয়াল, সেই এক বিছানা তাও যেন সবকিছুর মধ্যে মুক্তির আভাস পায়। অন্যদিনে রিশু বেড়িয়ে যাওয়ার পরে বাড়িটা ভীষণ ভাবেই ওকে চেপে ধরতে আসতো, কিন্তু সেদিন মনে হল এই দেয়াল এই সোফা এই চেয়ার টেবিল এই বিছানা সব যেন ওর কতদিনের চেনা পরিচিতি। ওর পা যেন আর মাটিতে পড়ছে না, বদ্ধ জীবন আর বদ্ধ নয়, ঝিনুক যেন খাঁচা ছাড়া এক পাখি। romance books

গতকাল বিকেলের পরে আর বাড়িতে ফোন করা হয়নি। গতকাল বিকেল থেকেই একটা নেশার ঘোরের মধ্যে যেন ওর সময় কেটে গেছে। বোনের সাথে বেশ কয়েকদিন ভালো করে কথা বলা হয়নি, এতদিনের একটা দুঃস্বপ্নের অবসান ঘটেছে। গতকাল সকালে ওর মা বলছিল যে দিয়া নাকি ওদের বাড়িতে রাতে আসবে।

বোনকে ভিডিও কল করল ঝিনুক, “কি রে কি করছিস?”

বড়দিন উপলক্ষে এক সপ্তাহের জন্য স্কুল ছুটি তাই বাড়িতেই ছিল ঝিলিক, সকাল সকাল দিদির ফোন পেয়ে বেশ আশ্চর্য হয়ে বলে, “ওহ বাবা, আজকে সকাল সকাল আমার কথা মনে পড়ল?” বলেই খিলখিল করে হেসে ফেলে ষোড়শী তন্বী তরুণী।

পাশের থেকে রিশুর বোন দিয়া বান্ধবীর তালে তাল মিলিয়ে উত্তর দেয়, “মনে পড়ল তাহলে?”

কিঞ্চিত লজ্জিত হয়েই উত্তর দেয় ঝিনুক, “নারে আই মিন টু সে, তোদের না মনে করে কি থাকা যায় নাকি?”

দিয়া প্রশ্ন করে, “আজকে ওপিডি আছে তো। দাদাভাই বেড়িয়ে গেছে?”

উত্তর দেয় ঝিনুক, “হ্যাঁ, এই একটু আগেই বেড়িয়ে গেছে। তোরা কি করছিস?”

ঝিলিক উত্তর দেয়, “বাঙালি আর কি করবে, শুয়ে শুয়ে ইন্সটা এফবি দেখছি আর ল্যাদ খাচ্ছি।”

দিয়া পাশ থেকে হেসে উত্তর দেয়, “আন্টি আজকে চিকেন বিরিয়ানি বানাচ্ছে। আমরা তোমাকে দেখিয়ে দেখিয়ে খাবো।”

ঝিনুক জিজ্ঞেস করে, “তোদের পড়াশুনা নেই?” romance books

দিয়া খিলখিল করে হেসে ফেলে, “কে বলেছে পড়া নেই, এই তো মাঝে মাঝেই এরতার সাথে প্রেমে পড়ছি, কখন বিছানা থেকে পড়ছি, কখন শুয়ে পড়ছি আর শোনার কথা…”

ঝিলিক ওর বান্ধবীর কথার রেশ টেনে বলে, “সারাদিন আন্টির আর মায়ের ঘ্যানর ঘ্যানর শুনছি…” বলেই হিহি করে ফেলে।

দুই বান্ধবীর কথা শুনে ঝিনুক হেসে ফেলে, “তোরা দুটো মহা শয়তান।” যদিও দিয়ার সাথে আগে থেকে সেই ভাবে পরিচয় হয়নি ঝিনুকের তাও এই কয়দিনে ফোনে একটু কথাবার্তা বলে অনেকটা সহজ হয়ে গেছে।

দিয়া ঝিনুককে জিজ্ঞেস করে, “কাল বিকেলে দাদাভাই ফোন করেনি কেন?”

ইসস, এদের সাথে কথা বলতে বলতে গতকালের কথা একদম ভুলে গেছিল ঝিনুক, “না রে কাল আর সময় পায়নি তোর দাদাভাই। ইন্দ্রজিতদা আর শালিনীদি এসেছিল ওদের সাথেই ডিনার করতে বেড়িয়েছিলাম আর কি।”

ঝিলিক চুকচুক করে বলে, “ইসস ডিনারে শুকনো কিছুই গিলতে হল তোকে?”

বোনের কথা শুনে ঝিনুক হেসে ফেলে, “না রে কালকে দুই গ্লাস ফ্রেঞ্চ ওয়াইন খেলাম তারপরে কি যেন এক উদ্ভট নামের হুইস্কি খেলাম।”

দিয়া আর ঝিলিক ভীষণ আশ্চর্যচকিত হয়ে সমস্বরে প্রশ্ন করে, “জিজুর সামনে তুই হুইস্কি খেলি? তোকে খেতে দিলো?”

লাজুক হেসে উত্তর দেয় ঝিনুক, “তোর জিজু একদম ভিজে বেড়াল…”

কথাটা বুঝতে না পেরে দিয়া জিজ্ঞেস করে, “মানে? দাদাভাই ড্রিঙ্ক করে নাকি?”

ঝিনুক সঙ্গে সঙ্গে বাধা দিয়ে বলে, “না না তোর দাদাভাই ড্রিঙ্ক করে না, আমি সে কথা বলতে চাইনি।” তারপরে নরম গলায় বলে, “মানে আমাকে বারণ করেনি।” বলেই লাজুক হাসি হাসে। romance books

ঝিলিক খিলখিল করে হেসে বলে, “তাহলে তোর পোয়াবারো। তুই কি লাকি মাইরি। জিজু ড্রিঙ্ক করে না কিন্তু পেয়ারের বউ ড্রিঙ্ক করলে বারণ করে না। ইসসস ভাগ্যে যদি আমার একটা এমন বর জুটতো।”

ঝিনুক ড্রিঙ্ক করেছে শুনে দিয়ার মুখের ভাব ক্ষনিকের জন্য বদলে যায় তবে সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে সামলে নিয়ে হেসে বলে, “আমার দাদাভাই ইস দ্যা বেস্ট দাদাভাই অফ দ্যা ওয়ার্ল্ড।”

মাথা দোলায় ঝিনুক, কলেজে পড়ার সময়ে অনেকের সাথেই মেলামেশা করেছে, এমন কি একজনের সাথে ছলনার প্রেমে জরিয়েও পড়েছে তবে ডক্টর অম্বরীশের মতন ঠান্ডা মাথার মানুষ আর দুটো দেখেনি। মানুষটা কথা না বলেও ভালবাসতে জানে, আর যখন ভালোবাসে তখন বাঁধ ভাঙা ভালোবাসে। ননদিনী আর বোনকে বলে, “তোরা দিল্লী চলে আয়।”

দিদির কথা শুনে ঝিলিক নেচে ওঠে, “হ্যাঁ হ্যাঁ, আমি তো এক পায়ে খাড়া, জিজু কবে আসছে নিতে?”

দিয়াও সেই সাথে নেচে ওঠে, “ঠিক ঠিক, দাঁড়াও আমি দাদাভাইকে ফোন করে বলছি।”

ঝিনুক কিছুক্ষন থেমে একটু ভেবে বোনকে বলে, “তোর জিজু নেক্সট মান্থে লন্ডন যাচ্ছে…”

অবাক হয়েই দিয়া প্রশ্ন করে, “মাম্মা জানে?”

ঝিনুক উত্তর দেয়, “আজ সকালে ওর এইচওডির ফোন এসেছিল তখন জানতে পারলো যে জানুয়ারিতে লন্ডনে কোন এক সেমিনার আছে, এক সপ্তাহের জন্য লন্ডন যেতে হবে। তোরা তার আগেই আমার এখানে চলে আয়।” romance books

দিয়া মাথা দুলিয়ে হেসে বলে, “আমি দাদাভাইকে ম্যানেজ করে নেবো আর দাদাভাই মাম্মাকে ম্যানেজ করে নেবে।”

ঝিলিক চোখ বড় বড় করে দিয়াকে জিজ্ঞেস করে, “একা একা দিল্লী যাবো নাকি, জিজু আমাদের নিতে আসবে না?”

দিয়া কাঁধ ঝাঁকিয়ে বুক ফুলিয়ে হেসে বলে, “একা না যাওয়ার কি আছে, ফ্লাইটে যাবো অসুবিধে কি?”

উচ্ছ্বাসিত হয়ে ঝিলিক বলে, “উফফফ মাইরি, দিল্লী গিয়ে খুব ঘুরবো আর খুব শপিং করব।”

দিয়ার কাছে দিল্লী এখন পাশের পাড়ার মতন মনে হয়, সেই ছোটবেলা থেকে যখনি ওদের ছুটি হত তখনি ওর মা ওকে আর ওর ভাইকে নিয়ে দিল্লীতে ওর দাদাভাইয়ের কাছে চলে যেত। বান্ধবীর উচ্ছ্বাসিত কন্ঠ শুনে হেসে বলে, “করিস তবে অনেক বারগেনিং করতে হয়।” তারপরে ঝিনুককে জিজ্ঞেস করে, “তোমাকে শপিং করাতে কোথায় নিয়ে গিয়েছিল?”

হেসে ফেলে ঝিনুক, “মারকেটের নাম তো ভুলে গেছি।”

ঝিলিক খিলখিল করে হেসে দিয়ার কাঁধে ধাক্কা মেরে বলে, “তোর দাদাভাই কি কঞ্জুস মাইরি। আমার দিদিকে শপিং মলে শপিং না করিয়ে কোন এক নাম না জানা এঁদো মারকেটে নিয়ে গেছে শপিং করাতে।”

দিয়া হেসে বলে, “ওইখানে শপিং মলের চেয়ে ভালো জিনিস মারকেটে পাওয়া যায়।” চোখ টিপে বলে, “আমার একটা লিভাইসের জিন্স আর থাইহাই বুটস পাওনা আছে।” romance books

ঝিলিক দিদিকে একটু ঠেস মেরে হেসে বলে, “তোর তো রান্নাবান্নার বালাই নেই, গায়ে হাওয়া লাগিয়ে দিব্বি আছিস। কাজের মেয়ে রান্নাবান্না করে ঘরের কাজ করে চলে যায়।”

মুচকি হাসে ঝিনুক, “তোর জন্য এমন একটা খুঁজে আনবো।”

ফিক করে হেসে ফেলে দিয়া, “দাদাভাইকে ওয়ান এন্ড ওনলি পিস বানিয়েছিল ভগবান, তারপর সেই ডাইস ভেঙ্গে ফেলেছে।”

ঝিলিক মুখ বেঁকিয়ে দিয়াকে বলে, “উফফফ পারি না, তোর শুধু দাদাভাই আর দাদাভাই। আমার দিদি কি বানের জলে ভেসে এসেছে নাকি?”

দিয়া ঠোঁট কুঁচকে মোবাইলের মাধ্যমে ঝিনুকের দিকে চুমু ছুঁড়ে দেওয়ার ভঙ্গি করে বলে, “একদম নয়, ঝিনুকদি ইস দ্যা মোস্ট হটেস্ট বেব ইন দ্যা ওয়ার্ল্ড।”

ঝিনুক একটু লজ্জিত হয়ে বলে, “হ্যাঁ হ্যাঁ অনেক হয়েছে। তোরা প্যাকিং শুরু কর আমি মামনির সাথে কথা বলে নেবো।”

দিয়া ঠোঁট বেঁকিয়ে বলে, “তোমার মামনি যন্তর পিস কিন্তু। তবে হ্যাঁ, ভাই যদি সাথে যায় তাহলে আমাদের মজা করা লাটে উঠে যাবে। সব কথা কিন্তু মাম্মাকে বলে দেবে।” বলেই হিহি করে হেসে ফেলে।

ঝিনুক হেসে ফেলে বলে, “বাঃ রে, আমার দশটা নয় পাঁচটা নয় একটা মাত্র ছোট্ট আদরের দেওর।”

দিয়া হিহি করে হেসে বলে, “তোমার পেয়ারের দেওর না আস্ত একটা বাঁদর।” romance books

ঝিনুক মিষ্টি হেসে বলে, “ওর চিৎকারের শুনেই তোর দাদাভাই কোলকাতা ছুটে গিয়েছিল। ওকে না নিয়ে এলে কি করে হবে।”

দিয়া মুখ বেঁকিয়ে বলে, “ধ্যাত, আমি ভাবলাম এই প্রথমবার একা একা ঘুরতে গিয়ে একটু মস্তি করব তা না।”

ঝিনুক ওকে জিজ্ঞেস করে, “দিপ যদি বায়না ধরে তখন কি করবি?”

দিয়া একটু ভেবে বলে, “মাম্মা এখন বাড়ি ছেড়ে যেতে পারবে না, তাই দিপ ও যেতে পারবে না। বাকিটা তুমি দাদাভাইকে বুঝিয়ে বলো দাদাভাই মাম্মাকে ম্যানেজ করে নেবে।”

ঝিনুক একটু ভেবে উত্তর দেয়, “আচ্ছা আমি দেখি মামনির সাথে কথা বলে কি বলে তারপরে তোদের জানাচ্ছি।”

ঝিলিক একটু ভেবে বলে, “হ্যাঁ তুই আন্টির সাথে কথা বল, আন্টি মাকে বলে দিলে মা আর তাহলে না করতে পারবে না। সব কিন্তু এখন তোর হাতে।”

ঝিনুক মৃদু হেসে উত্তর দেয়, “আচ্ছা বাবা, বলছি তো তোরা প্যাকিং শুরু কর, আমি মামনিকে ম্যানেজ করে নেব।”

ঝিনুক ফোন রেখে বিছানায় উপুড় হয়ে শুয়ে বুকের নিচে বালিশ চেপে মোবাইল খুলে ওদের বিয়ের ছবি দেখতে শুরু করে। যদিও এর আগে মাঝে মাঝে মোবাইলে ওদের বিয়ের ছবি দেখেছে, তবে সেদিন ওর কাছে সব কিছুই যেন একটা ঘোরের মতন। বিয়ের সময়ের নিজেদের শুভ দৃষ্টির কথা মনে পড়তেই ভীষণ লজ্জায় হাসি পেয়ে যায় ঝিনুকের, সামনে কে আছে দেখার দরকার নেই, ওকে যেন সবাই ধরে বেঁধে কসাইয়ের হাতে তুলে দিয়েছে। romance books

প্রথম দেখার ঘটনা মনে পরে যায়, কেউ কি ওইভাবে গালের দিকে দেখে বলে নাকি, এমা কি হয়েছে, অয়েন্টমেন্ট লিখে দেবো লাগিও। ওর অবচেতন হৃদয় সেই মুহূর্তে জোড়া লেগে গিয়েছিল। ঠোঁটে এখন রিশুর তীব্র প্রেমঘন চুম্বনের পরশ লেগে। সারা শরীর জুড়ে ভালোবাসার প্রথম ছোঁয়ার আবেগ অনুভূতি ঢেউ খেলে বেড়ায়। নিটোল স্তন জোড়া ভীষণ ভাবেই পিষে ধরে বালিশের ওপরে, দুই পা ভাঁজ করে দুলিয়ে দুলিয়ে রিশুর ছবি দেখে আর লাজুক হাসি হাসে।

রিশুর ছবিতে নাক ঘষে দুষ্টুমি করে বলে, “তুমি না মহা শয়তান। আগে কেন দেখা করতে আসোনি আমার সাথে? তুমি যদি আগেই আমার জীবনে আসতে তাহলে কি আর এই অঘটন হত নাকি? নাহ তুমি পালিয়ে চলে গেলে কোথায়, সেই রাঁচি। না হলে কেমন বেশ ছোটবেলায় দেখা হয়ে যেত, একটু লুকিয়ে চুরিয়ে দুষ্টু মিষ্টি প্রেম করতে পারতাম। তা না, মাঝ রাতে কোথা থেকে উড়ে এসে জুড়ে বসলে আমার জীবনে।” romance books

ঠিক সেই সময়ে রিতিকার ফোন এলো, “হ্যালো কি রে কি করছিস?”

রিশুর ছবি দেখতে দেখতে এক প্রকার মোহাচ্ছন হয়ে পড়েছিল ঝিনুক, হটাত করে ফোন এসে যাওয়াতে সেই মোহাবেশ কেটে যায় ওর। “এই কিছু না রে। তোর কি খবর? আজকে কি সত্যি আমরা যাচ্ছি?”

রিতিকা হেসে বলে, “তুই বল, আমি তো অফিস থেকে লিভ নিয়ে নিয়েছি।”

কিছুক্ষন ভেবে উত্তর দেয় ঝিনুক, “আচ্ছা ঠিক আছে তাহলে।”

রিতিকা বলে, “ওকে ডারলিং, আমি এই বারোটার মধ্যে তোর বাড়ি পৌঁছে যাবো।”

হেসে উত্তর দেয় ঝিনুক, “ওকে।”

বিছানা ছেড়ে উঠে পড়ল ঝিনুক, ঘড়িতে এগারোটা বাজে, হাতে মাত্র এক ঘন্টা সময়। বিয়ের কয়েকদিন আগে সেই একবার বিউটি পার্লার যাওয়া হয়েছিল তারপরে দিল্লীতে এসে সেইভাবে নিজের পরিচর্যা করা হয়নি। পায়ে লোম গজিয়ে গেছে, ভুরু জোড়া একটু মোটা হয়ে গেছে। আশেপাশে পার্লারের খোঁজ জানে না, ওয়াক্সিং থ্রেডিং ম্যানিকিওর পেডিকিওর ইত্যাদি করাতে হবে। স্নান সারার জন্য জামা কাপড় নিয়ে বাথরুমে ঢুকে পরে ঝিনুক।

রিতিকা আসার আগেই তৈরি হয়ে নিতে হবে। রিতিকাকে নিয়ে রিশুর হসপিটালে যাবে দেখা করতে, একেবারে চমকে দেবে ওকে। অন্যদিনে স্নানের তাড়া থাকে না, ওর হাতে অঢেল সময় থাকে। অন্যদিনে বাথরুমে ঢুকে আয়নায় নিজের দিকেই অনেকক্ষণ শুন্য দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে থাকে। সেদিনও বাথরুমে ঢুকে আয়নায় নিজেকে দেখেই ফিক করে হেসে ফেলে। ওর জীবনের গতিপথ বদলে গেছে। romance books

গিজার চালিয়ে শাওয়ারের নিচে দাঁড়িয়ে গুনগুন করে গান ধরল ঝিনুক, Can I touch you? I can’t believe that you are real, How did I ever find you? You are the dream that saved my life You are the reason I survived।

স্নান সেরে শোয়ার ঘরে ঢুকে হেয়ার ড্রাইয়ার চালিয়ে চুল শুকাতে শুকাতে একবার ফোনের দিকে দেখে নেয়, এতক্ষনে নিশ্চয় রিশু হসপিটাল পৌঁছে গেছে। ওপিডি ডিউটি, খুব ব্যাস্ত নিশ্চয়, না আর এখন মেসেজ করে লাভ নেই। একেবারে সোজা চমক দেবে প্রেমিককে। ঠিক তখনি রিতিকার ফোন আসাতে একটু ব্যাস্ত হয়ে পরে, ফোনেই রিতিকাকে বাড়ির ঠিকানা আর রাস্তা বুঝিয়ে দেয়। আলামারি খুলে বেশ কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে থাকে, কি পোশাক পড়বে সেটাই ঠিক করতে পারছে না।

গতকাল জিন্স পড়ার ইচ্ছে ছিল কিন্তু প্রথমবার রিশুর সাথে বাইরে কোথাও ডিনারে যাচ্ছে ভেবেই শেষ পর্যন্ত শাড়ি পড়েছিল। তবে আজকে রিশু নয় বান্ধবীর সাথে মারকেটে যাচ্ছে শপিং করতে তাই একটা টরন স্টোন ওয়াশ নীল রঙের জিন্স আর একটা উঁচু গলার সাদা রঙের সোয়েটার বের করে। শীতকাল, সকালেই বারান্দায় বেড়িয়েই বুঝে গেছে বাইরে কত ঠান্ডা তাই জিনসের নিচে একটা স্কিন কালারের ইনার লেগিন্স পরে নেয়। চাপা জিন্স কোমরের নিচ থেকে পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত আঠার মতন ওর ত্বকের সাথে লেপটে যায়। romance books

দুই ঊরু কাছে বেশ ছেঁড়া, হাঁটুর নিচেও একটু ছেঁড়া এটাই বর্তমান ফ্যাশান। হাইনেক সোয়েটার পরে জিনসের ভেতরে বাকিটা গুঁজে নেয়। পাতলা কোমরে একটা বেল্ট লাগিয়ে নেয়। আয়নাটা বিশেষ বড় নয় তাই নিজেকে সম্পূর্ণ দেখতে একটু অসুবিধে হয় ঝিনুকের। বাম হাতের কবজিতে সোনার পাতে মোড়া লোহা বাঁধানো, ইচ্ছে করেই পোশাকের সাথে মিলিয়ে হাতের শাঁখা পলা বাঁধানোটা খুলে ফেলে। দুই কানে বড় গোল রিং পরে নেয়, গলায় একটা পাতলা সোনার চেন।

মাথার চুল একপাশ করে আঁচড়ে নিয়ে মুখমন্ডলের প্রসাধনির জন্য ছোট আয়নার সামনে বসে পরে। মেকআপ বাক্স খুলে চোখের পাতার ওপরে হাল্কা কালচে আইশ্যাডো লাগিয়ে চোখ জোড়া একটু স্মোকি করে তোলে, দুই চোখের পাতায় আইল্যাশ আঠা দিয়ে আটকে চোখের পলক গুলো একটু বড় করে তোলে, চোখের নিচে কাজল পরে চোখের আকার আরো একটু টানাটানা করে তোলে। একগাদা লিপস্টিক খুলে বসে পরে, কি লাগালে এই পোশাকের সাথে মানাবে সেটা ভাবতে ভাবতেই ওর দরজায় কলিং বেল বেজে ওঠে। romance books

দরজা খুলতেই রিতিকা ওকে দেখে আশ্চর্য হয়ে যায়, “ইয়ো বেব ইউ আর লুকিং হট।” বলেই ঝিনুক কে জড়িয়ে ধরে।

রিতিকার পরনে চাপা কালো রঙের জিন্স, গায়ে একটা লম্বা কালো রঙের জ্যাকেট আর তার নিচে একটা লাল রঙের শারট। ঠান্ডার জন্য মাথায় একটা ক্যাপ পড়েছে তবে সেটা ঠান্ডা আটকানোর জন্য নয় সেটা স্টাইলের জন্য। মনে মনে নিজেকে রিতিকার পাশে দাঁড় করিয়ে একবার প্রতিদ্বন্দ্বী অবচেতন মন যাচাই করে নেয় কে বেশি সুন্দরী। কলেজের সেই রেষারেষি এখন ঠিক ভাবে কাটেনি, ভাবতেই মনে মনেই হেসে ফেলে ঝিনুক।

হেসে ফেলে ঝিনুক, “কাম অন ইয়ার, কতদিন পরে দেখা বলতো।”

রিতিকা বাড়ির চারপাশে চোখ বুলিয়ে সোফায় বসে ওকে জিজ্ঞেস করে, “আর তোর কি খবর বল?”

ঝিনুক সোফায় বসে উত্তর দেয়, “আই এম ইন ক্লাউড নাইন…”

রিতিকা ওর দিকে গভীর ভাবে তাকিয়ে দেখে মিষ্টি হেসে বলে, “বিয়ের পরে তুই যেন আরো হট হয়ে গেছিস।”

লজ্জায় ঝিনুকের গালে লালচে আভাস দেখা দেয়, সকালের রিশুর প্রথম চুম্বন এখন ওর ঠোঁট থেকে মুছে যায়নি। লাজুক হেসে উত্তর দেয়, “ইউ সে। হোয়াট এবাউট হরিশ?”

মৃদু হেসে রিতিকা উত্তর দেয়, “আমাদের অনেকদিন আগেই ব্রেকআপ হয়ে গেছে।”

ভুরু কুঁচকে ঝিনুক প্রশ্ন করে, “কি হল?”

রিতিকা উত্তর দেয়, “নাথিং মাচ, ছাড় না ওর কথা।” romance books

চোখ কুঁচকে একবার রিতিকাকে জরিপ করে বলে, “ওকে একটু দাঁড়া আমি একটু সেজেই বেড়িয়ে পড়ছি।”

চোখ বড় বড় করে হেসে ফেলে রিতিকা, “আরো সাজ বাকি?”

মাথা দোলায় সুন্দরী ললনা, “এই জাস্ট লিপস্টিক লাগিয়ে বেড়িয়ে যাবো।”

তর্জনী আর মধ্যমা নিজের ঠোঁটে ছুইয়ে ঝিনুকের দিকে একটা ছোট চুম্বন ছুঁড়ে দিয়ে বলে, “তুই এখন সেই ঝিনুক আছিস।”

মনে মনে হেসে ফেলে ঝিনুক, ডুবে গেছিলাম রে ও না থাকলে কোথায় যে তলিয়ে যেতাম নিজেই জানিনা। লাজুক হেসে উত্তর দেয়, “দাঁড়া লিপস্টিকটা লাগিয়ে আসছি।”

শোয়ার ঘরে ঢুকে ঠোঁটে গাড় বাদামি রঙের একটা লিপস্টিক লাগিয়ে আয়নায় নিজেকে একবার জরিপ করে বেড়িয়ে পরে ঝিনুক। গায়ে গাড় নীল রঙের রিশুর কিনে দেওয়া ওভারকোট চাপিয়ে নেয়, পায়ে থাই হাই গাড় বাদামি রঙের বুট। বেরনোর আগে রিতিকা ওর আপাদমস্তক চোখ বুলিয়ে জিজ্ঞেস করে, কাকে ঘায়েল করতে চলেছে? romance books

রিতিকা প্রশ্ন করলে উত্তরে বলে, সব থেকে আগে এইএমএস যাবে ওর নতুন “বয়ফ্রেন্ড”কে একটা চমক দিতে। নতুন বয়ফ্রেন্ডের কথা শুনে রিতিকা বেশ চমকে যাওয়াতে হাসিতে ফেটে পরে ঝিনুক। ক্যাবে বসে রিশুর হসপিটালের দিকে যেতে যেতে একটা মেসেজ করে জানিয়ে দেয় যে ওরা দুইজনে শপিং করতে বেড়িয়ে পড়েছে, কিন্তু এটা জানায় না যে ওরা রিশুর সাথে দেখা করতে আসছে।

শেষের পাতায় শুরু – 23 by Pinuram

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

কেও এখনো ভোট দেয় নি

2 thoughts on “romance books শেষের পাতায় শুরু – 24 by Pinuram”

Leave a Comment