ma chele sex সুন্দর শহরের ঝাপসা আলো – 30 Jupiter10

bangla ma chele sex choti. সে ঘটনার পর,দেখতে দেখতে আরও একটা মাস পেরিয়ে যায় ।সঞ্জয়ের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হতে আর মাত্র তিনটি মাস বাকি । সাথে জয়েন্ট এন্ট্রান্স ও । মামার দেওয়া তিন হাজার টাকা দিয়েই বাকি বইপত্র এবং ফর্মফিলাপ করে নিয়েছে সে । এখন স্কুল বিশেষ আর যেতে হয়না তাই এখানেই ধনঞ্জয়ের দশ বাই দশ ফুট রুমে জানালার ধারে একটা ছোট্ট টেবিল পেতে সর্বক্ষণ বই নিয়ে বসে থাকে । আর কখনও যদি পড়তে ভালো না লাগে তখন সে জানালা দিয়ে বাইরের দৃশ্য দেখতে থাকে।বাড়ির সামনে দিয়ে একটা সোজা রাস্তা বেয়ে গেছে ।

[সমস্ত পর্ব
সুন্দর শহরের ঝাপসা আলো – 28 Jupiter10]

যেটা পশ্চিমে আরও কিছু দূর গিয়ে মেইন রোডের সাথে মিশেছে । আর রাস্তার ওপাশে একটা স্ট্রিট লাইট একলা দাঁড়িয়ে রাতের অন্ধকার কে শ্বেতাভ রশ্মি দিয়ে চারপাশ টাকে আলোকিত করে রাখে । যার আলো জানালা বেয়ে ওদের ঘরের মধ্যে এসে পড়ে । জানালা দিয়ে তাকিয়ে এক মনে ভাবতে ভাবতে কোথায় যেন হারিয়ে যায় সঞ্জয় । নিজের অতীতের কথায় । ভবিতব্যের কথায় । তখনি চোখের সামনে দিয়ে মেসের মধ্যে থাকা মেয়ে গুলো স্কুল কলেজ এবং অনন্যাও জায়গায় যাবার উদ্দেশে গেট খুলে বেরিয়ে যায় । তাদেরকে দেখে সঞ্জয় মুখ সরিয়ে নেয় ।

ma chele sex

কারণ বেশ কিছু মেয়ে আছে ওরা ওকে দেখে কানে কানে কি যেন বলাবলি করে এবং হো হো করে হাসতে থাকে ।অনেক সময় ওরা দল মিলে এসে ওর জানালার সামনে দিয়ে আচমকা চিৎকার করে চলে যায় । যেগুলো দেখে সঞ্জয়ের অস্বস্তি বোধ হয় । ওদের তাচ্ছিল্ল ভরা চাহনি এবং মুচকি অট্ট হাসি ওকে অপমানিত করে তোলে ।ওর পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটে । প্রায় প্রতিদিন ওকে দিনে দুবেলা মেসের মেয়েদের খিল্লির পাত্র হতে হয় ।কারণ অজানা । সুন্দরী সতেজ ষোড়শী অষ্টাদশী বালিকারা সব ।

ওদের উত্থিত নব স্তন যুগল । এবং সদ্য ভরাট হয়ে আসা গুরু নিতম্ব ।হাঁটার তালে নিজের ছন্দে হিলতে থাকা । ওদের হাসি, ওদের চোখ, চুল দেখে অনেক বার সঞ্জয়ের মন খাঁচা ভেঙে উড়ে যেতে চাইলেও নিজেকে সংযম করে নেয় ।কারণ প্রেমের ছ্যাকা সে পেয়েছে একবার জীবনে । সুতরাং সে পথে আর নয় । আর ও এখন অন্য লক্ষ্যে নিজেকে নিয়োগ করেছে । মায়ের ইচ্ছা পূরণ করতে হবে । পড়তে পড়তে অনেক সময় সে হাফিয়ে পড়ে । আর রাত জেগে পড়তে পারেনা কারণ ধনঞ্জয়ের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে ওতে । ma chele sex

তাই সঞ্জয়ের মনেও অনেক সময় দুশ্চিন্তার বাদল ঘোরপাক খেতে থাকে । ভাবে সেকি অনেক বেশি আশা করে নিয়েছে নাতো এই জীবন থেকে?
মা তাকে প্রায়শই জিজ্ঞাসা করে পড়াশোনা ঠিক মতো করছে কিনা? কারণ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ট্রান্স এ তাকে উত্তীর্ণ হতেই হবে । কিন্তু মা জানে না যে এইসব পড়াশোনা কি পরিমান ব্যয়বহুল ।এতো টাকাপয়সা তারা কোথায় পাবে? এটা তাদের মতো মানুষের কাছে ছেঁড়া বিছানায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন দেখার মতো ব্যাপার ।

ভাবতে ভাবতেই চোখের সামনে কৌশিকের দেওয়া বইটা চোখে পড়ে যায় সঞ্জয়ের । think and grow rich! ভাবো আর ধনী হয়ে যাও।
বইটার শিরোনাম দেখেই সঞ্জয়ের হাসি পায় । কৌতূহল বসত বইটা নিয়ে নিয়েছিলো বটে কিন্তু পড়া হয়নি এখনো । তার উপর ইংলিশে লেখা । বস্তির ছেলে । এতো দিনেও ইংলিশ রপ্ত করে উঠতে পারেনি । তবে এখন মনে হচ্ছে বইটিকে একবার চোখ বুলিয়ে নেবার । এই রকম স্বপ্ন বেচা মানুষেরই প্রয়োজন ওর জীবনে । তাই রাত্রি বেলা জানালার ধারে একলা বসে স্ট্রিট লাইট এর আলোতে সে নেপোলিয়ন হিলকে পড়তে থাকে । ma chele sex

ওইদিকে সুমিত্রা সারাক্ষন নিজের কাজে ব্যাস্ত থাকে । ছেলের সাথে মন ভরে দুটো কথা বলবে তার উপায় নেই ।মেসের কড়া নিয়ম । ছেলের প্রবেশ নেই ।
সারাদিনে শুধু দুবার দেখা হয় । খাবার সময় । রাতের খাবার ছেলের সাথে করার ইচ্ছা থাকে । তবে সেটা পূরণ হয়না ।
ধনঞ্জয় একসময় এসে ওদের দুজনের খাবার নিয়ে যায় ।
সঞ্জয়ের কাছে এটাই তৃপ্তির ।যে মাকে কাছে না পেলেও মায়ের হাতের রান্না তার কপালে ঠিক জুটে যায় ।

সেদিন মা খিচুড়ি বানিয়েছিলো । সে বুঝতে পেরেছে যে এটাই মামার দেওয়া আতব চালের খিচুড়ি । বড়োই তৃপ্তি করে খেয়েছিলো সে । মা কিছু বিশেষ খাদ্যের পদ বেশ ভালো রান্না করে । খিচুড়ি তাদের মধ্যে অন্যতম ।মামারবাড়ির আতব চাল এবং মায়ের হাতের মিষ্টতা পেয়ে তার স্বাদ অতুলনীয় করে তুলে ছিলো ।এভাবেই গতানুগতিক ভাবে দিন গুলো পেরিয়ে যাচ্ছিলো । ma chele sex

তারপর একদিন ধনঞ্জয় বলে, “বাবু সঞ্জয় । তুমি তো সারাক্ষন এখানেই বসে থাকো । তো আমি কিছুদিনের জন্য বাড়ি যাবো ভাবছি । আশাকরি তুমি এইদিন কয়টি ঠিক সামলে নেবে”।

সঞ্জয় নিজের বই থেকে মুখ তুলে জিজ্ঞেস করে, “কতদিনের জন্য যাচ্ছেন মামাবাবু?”

ধনঞ্জয় মুচকি হেসে বলে, “বিহার দেশ আমার যেতে আসতেই দুটো দিন লেগে যাবে । তবে বেশি না । পাঁচ দিন মালকিনের কাছে ছুটি নিয়েছি । ঘরে গিয়ে কিছু পয়সা পাতি দিয়ে আসবো ওই আরকি”।

গার্ডের কথা শুনে সঞ্জয় দীর্ঘ শ্বাস ফেলে । মনে মনে ভাবে আর কিছু না হোক অন্তত এই কয়দিনে রাতের পড়াটা ঠিক মতো করতে পারবে সে ।

সে বলে আচ্ছা ঠিক আছে । আপনি যান । এবং নির্ধিদ্বায় ঘুরে আসুন । আমি এদিকটা ঠিক সামলে নেবো । ma chele sex

পরেরদিন সকাল বেলা ধনঞ্জয় বেরিয়ে পড়ে ।
আর সঞ্জয় ও একলা ঘরে একদিকে জানালা দিয়ে সারাদিন পাহারা দেয় এবং নিজের পড়া মুখস্ত করে।

এমন সময় কানের কাছে কারও হেঁটে আসার শব্দ শুনতে পায় সে । শব্দটা ওর দিকেই এগিয়ে আসছে । সেটা শুনে মনের মধ্যে একটা বিচিত্র বিরক্তি ভাব চলে আসে ওর । আবার হয়তো দস্যি মেয়ের দল ওর দিকে এগিয়ে আসবে আর বিদঘুটে শব্দ করে পালিয়ে যাবে ।
এগুলো সঞ্জয়ের মনকে কষ্ট দিলেও বিশেষ কিছু করার থাকেনা । মা কে বেশ কয়েকবার বলেছে।কিন্তু মা ওকে এড়িয়ে চলতে বলে । কারণ অন্যের দয়ায় ওরা এখানে থাকে । সেহেতু নিজের থেকে কোনো রকম গন্ডগোল করলে আখিরে ক্ষতি ওদেরই হবে । সুতরাং যে কটা দিন তারা এখানে থাকবে । একপ্রকার মুখ বুজে থাকতে হবে । ma chele sex

সেহেতু সঞ্জয় ও সেই পায়ে হাঁটার শব্দ তাকে এড়িয়ে চলে নিজের পড়ায় মনোযোগ দেয় ।
কিন্তু দরজার সামনে এসে পায়ের শব্দ যখন থেকে যায় তখন সে উঁকি মেরে তাকায় । আশ্চর্য হয় । আগন্তুক কে দেখে । সাথে মনে একটা প্রসন্নের জোয়ার ।
মুচকি হেসে সুমিত্রা দরজার সামনে দাঁড়িয়ে আছে । ছেলের মুখের দিকে তাকিয়ে বলে, “কি করছিস বাবু? ডিসটার্ব করলাম নাতো?”
ইদানিং তো মায়ের সাথে সেভাবে কথায় হয়না সঞ্জয়ের । সেহেতু মাকে সামনে পেয়ে সে বড়োই খুশি হলো । বলল, “না মা কোনো ডিসটার্ব নেই । তুমি এসো ভেতরে এসো । বসো আমার সামনে”।

সুমিত্রা চৌকাঠ পেরিয়ে সটান ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে ছেলেকে জড়িয়ে ধরে নেয় । শক্ত করে । বহুদিন পর ছেলেকে নিজের কাছে পেয়ে বুকের মধ্যে শক্ত করে আঁকড়ে ধরে । মনে একটা তৃপ্তির আভা পাওয়া যায় ।
সঞ্জয় ও মায়ের উষ্ণ কোমল বুকের মধ্যে নিজের হৃদয় স্পর্শ করে একটা আলাদা অনুভূতি হয় । মায়ের ভালোবাসার টান অনুভব করে সে । ma chele sex

বেশ কিছুক্ষন ছেলেকে নিজের বুকের সাথে জড়িয়ে ধরে থাকার পর সুমিত্রা বলে, “শুনছি নাকি তুই দিনরাত পড়াশোনা করছিস?”

মায়ের কথা শুনে সঞ্জয় মৃদু হাসে । সম্ভবত এই প্রথম মায়ের মুখ থেকে সে পড়াশোনার বিষয় নিয়ে প্রশংসা শুনছে ।
আনন্দিত হয় সে । যার জন্য এতো পরিশ্রম স্বয়ং সেই যদি প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয় তাহলে তো কোনো কিছু বলার অবকাশ রাখেনা ।

সঞ্জয়ও সেই প্রশংসাকে উৎসাহের ধ্বনি হিসাবে গ্রহণ করে । কারণ মা সচরাচর তার কোনো কাজে প্রশংসা করে থাকে না ।
সে হাসি মুখে উত্তর দেয় । বলে, “হ্যাঁ মা তোমাকে খুশি করার প্রণ নিয়েছি । পরিশ্রম তো করতেই হবে । আর তাছাড়া কোনো উপাই নেই মা । তুমিই তো এই পথ দেখিয়েছো । আশা জাগিয়েছো আমার মনে”।
সুমিত্রা ছেলের কথা শুনে হেসে পড়ে । সে ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে ছেলের বিছানার ধারে বসে বলে, “বাব্বাহ ছেলে তো বেশ ভারী ভারী কথা বলছে….। আমিও শুনি সে আরও কি বলতে চায়”। ma chele sex

মাকে অনুসরণ করে সঞ্জয়ও বিছানার পাশে বসে ।
তারপর মায়ের ডান হাত নিজের দুহাতের মধ্যে চেপে ধরে মনে মধ্যে জমানো বহুদিনের কিছু কথা সে জানাবো বলে প্রস্তুত নেয় ।
সেইদিনের কথা । যেদিন ওর মামা ওদেরকে দেখতে এসেছিলো । আর মা কেমন দুগ্ধ পিপাসু শিশুর মতো কান্নায় ভেঙে পড়ে নিজের আত্মবিলাপ করে ছিলো ।
জীবনে চেপে রাখা সমস্ত দুঃখ কষ্ট অভিমান এবং অভিযোগের বহিঃপ্রকাশ করে ছিলো ।

সেখানে নিজের দাদাকে, মা মুখ্য নির্বাচক এবং তার বাবাকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে ছিলো।
কিন্তু সঞ্জয়…? সেও তো সেই অপরাধীর পুত্র । সুতরাং সেও অপরাধীর পক্ষে পড়ে । এবং মাও সারাজীবন তারকাছে একটা মিথ্যা হাসির মুখোশ পরে তার সামনে সর্বদা থেকে এসেছে। তাকে মিথ্যা জানিয়ে এসেছে যে সে ভালই আছে । পরিস্থিতি হয়তো প্রতিকূল । সাময়িক । কিন্তু মনের অদম্য জোর নিয়ে সেগুলোর মোকাবিলা করে এসেছে । ma chele sex

তবে সেদিন মায়ের এভাবে ঢলে পড়া । এবং কান্নায় ভেসে পড়া । এর থেকেই বোঝো যায় মা অন্তর থেকে কতটা ব্যাথিত । কিন্তু তার বিন্দু মাত্র আভাস এবং অভিযোগ তার সামনে করেনি কোনোদিন ।
কি ভেবেছে মা? সেও কি ওর বাবার মতোই নির্দয় । অমানুষ ।মায়ের নজরে সেও কি সমরূপে অপরাধী?
যদি তাই মনে করে রেখেছে মা, তাহলে সে নিজের দিক থেকে তার উপযুক্ত সাফাই দিতে চায় । কারণ মায়ের ভুল ধারণা এটা । কারণ তার থেকে বেশি ভালোবাসা আর মাকে কেউ দিতেই পারে না ।

নিজের খেয়ালেই হারিয়ে ছিলো সঞ্জয় । মায়ের ডাকে তার টনক নড়লো ।

সুমিত্রা একটু আশ্চর্য হয়ে মৃদু হেসে ছেলেকে জিজ্ঞাসা করে, “কি হলো রে বাবু? মন কোথায় তোর? কোথায় হারিয়ে গেলি?” ma chele sex

অশ্রু ভেজা ছলছল চোখ নিয়ে সঞ্জয় মায়ের দিকে তাকায় । ঠোঁটের কোনে ম্লান হাসি । মায়ের হাত দুটো চেপে ধরে বলে, “আমার উপর তোমার অনেক অভিযোগ আছে তাইনা মা? আখিরে আমি সেই দুস্টু লোকটারই সন্তান । আমিও দুস্টু শয়তান । তোমার জীবনে পীড়া প্রদানকারী আরও একজন দুস্টু অমানুষ । সেটা ভেবেই হয়তো তুমি আমাকে নিজের মনের বেদনা প্রকাশ করতে দ্বিধা বোধ করো। আমাকে নিজের মনে করোনা ।আমাকেও বাবার মতো শয়তান মনে করো তাইনা মা?”

ছেলের কথায় আবার একটু বিস্মিত হয় সুমিত্রা । পাগল ছেলে কিসব বলে সবসময় । মনে মনে ভাবে সে ।

ওদিকে সঞ্জয় কিন্তু নিজের প্রশ্ন করে চাতক পাখির মত মায়ের মুখ পানে চেয়ে ছিলো । হালকা স্বরে আবার সে জিজ্ঞেস করলো, “বলোনা মা? চুপ করে আছো কেন?” ma chele sex

সুমিত্রা ও আনমনা হয়ে ছেলের দিকে তাকায় । কিছু বলে না সে । শুধু আরও একবার ছেলেকে বুকের মধ্যে টেনে নেয় । আলিঙ্গন করে তাকে । ছেলের শরীরের গন্ধ অনুভব করতে চায় । সন্তান যতই বড়ো হয়ে যাক । মায়ের কাছে সে ছোট্ট শিশুই থাকে । আর মা ছেলের শরীরের মধ্যে একটা আলাদায় টান থাকে ।
ছেলের মাথার মধ্যে নিজের চিবুক ঠেকিয়ে সুমিত্রা বলে, “তু্ই শুধু আমার সন্তান । আর কারও না”।

সঞ্জয়কে আর দ্বিতীয়বার প্রশ্ন করতে হয়না । মায়ের উত্তর পেয়ে গেছে সে ।

মায়ের শরীরের উষ্ণতা । কোমলতা । তার ঘামে ভেজা গায়ের সুগন্ধি । তার নরম বুকের তৃপ্তি দায়ক অনুভূতি । সঞ্জয় চায় মা যেন তাকে সারাক্ষন এই ভাবেই জড়িয়ে ধরে বসে থাকুক ।
ও নিজের হাত মায়ের নরম পিঠের মধ্যে রাখে । ব্লাউজে ঢাকা পিঠের অর্ধ বৃত্তাকার উন্মুক্ত স্থানে হাতের স্পর্শ লেগে সারা শরীরে একটা অকল্পনীয় সুখের অনুভূতি হয় । ma chele sex

সে নিজের ডান হাত মায়ের বাঁ বাহুর তলা দিয়ে জড়িয়ে তার পিঠকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে রেখেছে এবং ওপর হাত দিয়ে মায়ের পিঠের উন্মুক্ত অঞ্চল দিয়ে হাত বোলাতে বোলাতে নীচের দিকে নামতে থাকে ।
তারপর মায়ের পিঠের নীচের দিকে নামতে নামতে একেবারে শেষ পর্যায়ে যেখানে সুমিত্রার কোমর শুরু হয় । সেই পর্যন্ত সঞ্জয় নিজের বাম হাত স্পর্শ করে মাকে ভালোবাসতে চায় ।

তখনি সুমিত্রা তড়িঘড়ি ছেলের কাছে থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়ে বলে, “এই বাবু ছাড় আমায় । অনেকক্ষণ হয়ে গেলো । আমি কাজ ফেলে রেখে এসেছি । শুনলাম ওই দাদাবাবু নিজের বাড়ি গিয়েছেন । তাই তোকে দেখতে এলাম । আর মেসের মেয়ে গুলো বলে মাসি তোমার ছেলে তো সর্বক্ষণ বই নিয়ে বসে থাকে….”। ma chele sex

সঞ্জয় নিজের দুহাতের বাঁধন আলগা করে দেয় । মায়ের নরম শরীরের আস্বাদন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে ওর মন কেমন করে ওঠে ।
সে বিমর্ষ মন নিয়ে বলে, “তোমাকে তো আগেই বলেছি মা । ওইসব মেয়ে গুলো কেমন তাচ্ছিল্ল ভাব নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে হাসে । অসহ্য লাগে ওদের । মনে হয় মুখে এক ঘা দিয়ে আসি ওদের”।

ছেলের কথা শুনে সুমিত্রা মৃদু হাসে । সে ছেলের মাথায় হাত বুলিয়ে বলে, “না বাবু একদম না । ওদের সাথে একদম ঝামেলায় জড়াবি না । ওরা আছে বলেই আমরা আছি । সেহেতু ওরা যা করছে করুক । তোকে নিয়ে ইয়ার্কি ঠাট্টা করে, করতে দে ।আর তুইও দেখিয়ে দে । ভালো রেজাল্ট করে দেখাতে পারলে ওদের মুখ এমনিই বন্ধ হয়ে যাবে”।

মায়ের কথায় সঞ্জয় আস্বস্থ বোধ করে ।

সুমিত্রা উঠে দাঁড়ায় এবং সেখান থেকে বেরিয়ে যায় ।

ওদিকে সঞ্জয়ও পুনরায় নিজের পড়াশোনায় মনোযোগ দেয় ।

দেখতে দেখতে রাত্রি নেমে এলো । ma chele sex

সঞ্জয় ও ভাবে অন্যান্য দিনগুলো তে ধনঞ্জয় বাবু ওদের রাতের খাবার গুলো নিয়ে আসে এবং দুজন মিলে একসাথে বসে খায় ।কিন্তু আজকে কি করবে?
মাতো কিছুই বলে যায়নি দিনের বেলা । অতএব সে কি করবে ভেবে পায়না ।
ঘরের মধ্যেই বসে বাইরের দিকে চেয়ে থাকে । কি জানি মা খাবার নিয়ে আসবে? নাকি ওকেই যেতে হবে ওখানে ।
খিদের তাড়নায় আর পড়ায় মন বসে না ।

তখনি দরজায় টোকা দেওয়ার আওয়াজ পায় সঞ্জয় । খুশি মন নিয়ে দরজা খুলে দেখে মা সামনে দাঁড়িয়ে আছে ।হাতে থালা ঢাকা খাবার ।
সুমিত্রা ভেতরে ঢুকে মেঝেতে একপাশে খাবারটা রেখে উঠে দাঁড়ায় । ma chele sex

সঞ্জয় মায়ের দিকে তাকিয়ে তার সামনে এসে জড়িয়ে ধরে নেয় । সুমিত্রা সেসময় কিছুটা অপ্রস্তুত থাকলেও ছেলেকে বাধা দেয় না ।
দাঁড়িয়ে থেকেই সঞ্জয় মাকে নিজের হৃদয়ের সাথে আলিঙ্গন করে রাখে । সুমিত্রা একটু আশ্চর্য হয় তাতে । বলে, “কি হলো বাবু? খাবিনা, খিদে পায়নি তোর?”
সঞ্জয় মায়ের কাঁধের মধ্যে থুতনি রেখে তার গলায় আলতো করে চুমু খেয়ে নিয়ে বলে, “তোমাকে দেখে, তোমার স্পর্শ পেয়েই আমার খিদে তৃস্না মিটে গেছে মা”।

ছেলের কথা শুনে সুমিত্রা হাসে । বলে, “ধ্যাৎ পাগল । ছাড় আমায় । যেতে হবে ওদিকে । এখনো ঢের কাজ বাকি আছে”।
সঞ্জয় মায়ের গলা এবং ঘাড়ের মধ্যে নিজের নাক ঘষতে থাকে । মায়ের কোমল শরীরকে শক্ত করে ধরে রেখে এক অসীম সুখদ তৃপ্তি হয় তার মনে ।
সে বলে, “দাঁড়াও না মা একটু । তোমার গায়ের উষ্ণতা আর মিষ্টি গন্ধ আমাকে অনুভব দাও”।
সুমিত্রা বলে, “ইসসস অনেক হয়েছে এবার ছাড় । দেরি করে গেলে কাজ আরও বাড়বে বাবু। ছাড় আমায়”। ma chele sex

মায়ের তুলতুলে নরম শরীর থেকে নিজেকে পৃথক করতে চায়না সঞ্জয় । মনের ভালোবাসা এখন কামের বাসনায় রূপান্তরিত হয়েছে । প্যান্টের তলায় ঘুমন্ত লিঙ্গ এখন জাগ্রত হয়ে খোঁচা মারছে মা দেবীর দুই উরুর সন্দিক্ষণে ।
কামের তাড়নায় সে আরও শক্ত করে মাকে নিজের সামনে টেনে নেয় । উত্তীত লিঙ্গ দিয়ে কাপড়ের উপর থেকেই যোনি পৃষ্ঠকে অনুভব করতে চায়।
নিজের ঠোঁট এবার মায়ের ঘাড় থেকে গলা বেয়ে গালে স্পর্শ করেছে । নরম মসৃন গালে বহুদিন পর সে চুম্বন করলো ।

তাতে শরীর দিয়ে আনন্দ ধারা বয়ে চলছে । এবং মন তৃপ্তি ময় হয়ে উঠেছে । নিঃশ্বাসের গতি তীব্র হতে লাগলো । মায়ের সারা গা বেয়ে একটা মধুর সুগন্ধি । তার ঘন চুলের মধ্যে দিয়ে ফুলের মতো বেয়ে আসা একটা মিষ্টি সুবাস । যেটা নাকে আসতেই শরীরে শিহরণ জাগে । হৃদস্পন্দন দ্রুত হয় ।
ফলে মায়ের পিঠের মধ্যে লেপ্টে থাকা হাত দুটো আসতে আসতে নিচে নেমে তার স্ফীত উঁচু পাছার মধ্যে চলে যায় । উফঃ কোমলতার স্বর্গ রাজ্য যেন ।সুমিত্রার সুঠাম মাংসল নরম নিতম্ব । যার আকৃতি ওর ব্যাক্তিত্বকে প্রকৃত রূপে ফুটিয়ে তুলেছে । ma chele sex

শরীরের অন্যতম সুন্দরী অঙ্গ ওটা । যার ফলে সে দাঁড়িয়ে থাকলে তার পশ্চাৎদেশকে দেখলে একটা ইন্দ্রিয়পরায়ণ বস্তু বলে মনে হয় । শাড়ির উপর থেকে হাঁটার সময় ওর সুগঠিত নিতম্বের দাবনা দুটো এমন মৃদু ছন্দে দোলে সেটা যেকোনো পুরুষ মানুষের গোচরে এলে কাম ঈর্ষা ভাব জাগিয়ে তুলবে।

নিজের দুহাত দিয়ে শক্ত করে মায়ের কোমল পাছায় হাত দিয়ে তাকে টেনে নিজের শরীরের সাথে সাঁটিয়ে দেয় আর বাঁ গালের মধ্যে চুমু খেতে থাকে সঞ্জয় । জিভ দিয়ে চাটতে থাকে মায়ের মসৃন গাল খানাকে ।
ওদিকে পুরুষালি হাত দিয়ে খামচে ধরে রেখেছে মায়ের কোমলতম অঙ্গকে । আর মন্থর গতিতে সেটাকে মালিশ করে চলেছে ।
সঞ্জয়ের হৃদয় এবং মন জুড়ে একটা আনন্দের আভা । উফঃ মা তো ভালোবাসার নারীই । তাকে এভাবে ভালোবাসলে আর কিছুই চায়না জীবনে ।

তার শরীরের নরম অঙ্গ প্রতঙ্গ গুলোতে হাতের স্পর্শ করে একটা স্বর্গীয় অনুভূতি হয় তার । মা এক অতীব সুন্দরী নারী ।দেবদত্তা ।যার রূপ গুনের প্রভাবে যেকোনো পুরুষ আকৃষ্ট হবে ।
সে আসতে আসতে এবার ওর মায়ের শাড়ি খানা পেছন থেকে তুলতে থাকে । তারপর কোমর অবধি শাড়িটা তুলে পরনের প্যান্টি খানাও তরাৎ করে নিচে নামিয়ে দেয় । ma chele sex

সুমিত্রা সেটার আভাস পেয়ে লাফিয়ে ওঠে । তড়িঘড়ি সে ছেলেকে বাধা দেবার চেষ্টা করে । বলে, “কি করছিস বাবু । পাগল হয়ে গেলি নাকি? কেউ দেখে ফেললে কি হবে বলতো । ছাড় আমায় অসভ্য”।
মায়ের নগ্ন পাছা এখন সঞ্জয়ের হাতের মুঠোয় । এই চওড়া পান পাতার ন্যায় আকৃতি বিশিষ্ট নরম অঙ্গটাকে সে খুব ভালোবাসে । মায়ের শরীরের আধুলি ভাগ সৌন্দর্যতা এই অঙ্গটা ধরে রেখেছে ।

তারপর তার এই টিকালো নাকটা । যার পার্শ্ব দৃশ্য দেখলেই তার প্রেমে পড়ে যায় । অনেক সময় আনমনা হয়ে মায়ের দিকে চেয়ে মায়ের কাজ করা দেখতে দেখতে মায়ের প্রকৃত রূপে সুন্দরী পশ্চাৎদেশের আন্দোলিত হওয়া দেখে অনেক করুন লাগতো তাকে । ভালোবাসতে মন চাইতো সর্বদা ।

সুমিত্রার উন্মুক্ত নিতম্বের কোমলতা স্নিগ্ধতা এবং মসৃনতা অনুভব করে সঞ্জয় । নিজের হাতের তালু দিয়ে চারপাশটা বুলিয়ে নেয় একবার । তারপর গভীর খাঁজে হাত রেখে একটা হ্যাচকা টান মেরে নিজের দিকে টেনে নেয় সঞ্জয় ।
তাতে তীব্র বাধা দেয় সুমিত্রা । সে মুহূর্তে । ছেলেকে বলে, “উফঃ ছাড় কি সব নোংরামো করিস তুই বাবু”।
তারপর সেখান থেকে ছেলের হাত সরিয়ে প্যান্টিটা উপরে তুলে নিয়ে শাড়ি খানা নিচে নামিয়ে আবার বলে, “শীঘ্রই খেয়ে নে । নাত খাবার ঠান্ডা হয়ে যাবে”। ma chele sex

স্বর্গরাজ্য থেকে অধঃপতন হয়ে যেন মর্ত লোকে ফিরেছে সঞ্জয় । তার হৃদয় স্পন্দন তখনও তীব্র ছিলো । সে করুন স্বরে মায়ের কাছে আর্জি জানালো , “ মা একটা চুমু দাও না প্লিজ”।
সুমিত্রা একটু ধমক দিয়েই তাকে বলে, “একদম না । খাবার টা খেয়ে নিস্ । আমার দেরি হচ্ছে। আমি চললাম”।
সঞ্জয় মাকে বেরিয়ে যেতে দেখে বলে, “মা আজ রাতে এসো না গো দয়াকরে । বহুদিন তোমার বুকে মাথা রেখে ঘুমায়নি”।

ছেলের কথা শুনে  সুমিত্রা পিছন ফিরে তাকায় এবং বলে, “কি করে হবে বাবু? এটা তোর আমার ঘর না । যেখানে তুই যা খুশি করবি আর বলার কেউ থাকবে না”।

“না মা তবুও চেষ্টা করো । আর এখানে আমাদের উপর কেউ নজরদারি করে বসে নেই । তুমি শুধু আজকের মতো এসো একটি বার । আর পারলে আমার সাথে খেও”- পুনরায় নিজের মনের আকাঙ্খা জানায় সঞ্জয় ।
সুমিত্রা ছেলের কথায় কিছু বলে না । সে কিছু একটা ভাবে তারপর বলে, “দেখছি”। ma chele sex

মায়ের কথা শুনে হাফ ছাড়ে সঞ্জয় । নিরাশ হয় । ঘরের মধ্যে ঢুকে দরজা লাগিয়ে দেয় ।
টেবিলে রাখা এলোমেলো বই গুলো গুছিয়ে রেখে । হাতে জল নিয়ে খাওয়া আরম্ভ করে সে । নিশ্চিত মা আসবে না । সুতরাং অপেক্ষা করে কাজ নেই ।
সামনে মেঝেতে রাখা ডাল ভাত একটু একটু করে খেতে থাকে সে ।

আর খাবার শেষে নিজেই জল দিয়ে থালা বাসন গুলো মেজে একপাশে রেখে দেয় ।

বিছানার মধ্যে শুয়ে জানালার বাইরে স্ট্রিট ল্যাম্পটার দিকে তাকিয়ে থাকে । কত ঝিঁঝি পোকা ওটার মধ্যে ঘোরপাক করছে ।

তখনি দরজায় টোকার আওয়াজ পায় সে । লেপ সরিয়ে উঠে দরজা খুলে দেখে মা দাঁড়িয়ে আছে সামনে ।
তাকে দেখে সঞ্জয়ের মন খুশিতে ভরে যায় । হাসিমুখে সে বলে, “ভেবেছিলাম তুমি আসবে না । তাই শুয়ে পড়েছিলাম”।
ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে সুমিত্রা বলে, “আমি মাসি দের বললাম । আজ ছেলের কাছে থাকতে চাই । আর ওরাও মানা করলো না । তাই চলে এলাম”। ma chele sex

গায়ে ঢাকা চাদরটা একপাশে রেখে বিছানায় বসে পড়ে সুমিত্রা । ছেলেকে বলে, “জানালা টা বন্ধ কর বাবু শীত আসছে তো”।

সঞ্জয় মায়ের দিকে তাকিয়ে হেসে উত্তর দেয় । বলে, “থাকনা মা । আমি জোৎস্না সুন্দরী কে এই স্ট্রিট আলোয় মন ভরে  দেখতে চাই”।

ছেলের কথা শুনে সুমিত্রা তার দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসে । তারপর লেপের তলায় ঢুকতে যায় । দেওয়াল ঘেঁষে সে শুয়ে পড়ে । চিৎ হয়ে ।

সঞ্জয় ও তার মাকে অনুসরণ করে বিছানায় উঠে মায়ের ডান পাশে শুয়ে পড়ে । কিছুক্ষন চুপচাপ ওই ভাবেই তারা সিলিঙ্গের দিকে তাকিয়ে থাকে । একটা নিস্তব্ধ পরিবেশ তৈরী হয়েছিল ঘরটার মধ্যে । শুধু বাইরে ঝিঁঝি পোকার শব্দ এবং দুজনের নিঃশ্বাসের আওয়াজ ভেসে আসছিলো ।
দুজনের মনের মধ্যে কেমন একটা লাজুক অভিব্যাক্তি । ওরা স্বামী স্ত্রী নয় । ওরা মা ছেলে । এই বিস্তীর্ণ দুনিয়ায় একে ওপরের সঙ্গী । একে ওপরের অবলম্বন । ma chele sex

মায়ের নীরবতা দেখে সঞ্জয় প্রথম কথা বলে, “মা চুপ করে আছো কেন? বলো কিছু”।
ছেলের কথা শুনে সুমিত্রা নিজের ডান পাশ ফিরে তার চুলে হাত রেখে বলে, “কিছু বলার নেই বাবু । তুই আসতে বলে ছিলি, আমি এসেছি । এবার ঘুমিয়ে পড়”।

সঞ্জয় মায়ের কথা শুনে মনে মনে হাসে । তারপর বলে, “আজতো আমি তোমাকে ঘুমাতে দেবোনা। আজ সারা রাত তোমার সাথে গল্প করবো আর দুস্টুমি করবো”।

সুমিত্রাও আলতো করে ছেলের গাল টিপে বলে, “খুব মজা তাইনা? মা কে কাছে পেয়ে তোর অসভ্যতামো শুরু হয়ে যায়”।
“হ্যাঁ মা একদম । সামনে পেলেই আমার মন চাই তোমাকে একটু ভালোবাসতে একটু আদর করতে”- মায়ের দিকে তাকিয়ে তার দিকে পাশ ফিরে শুয়ে সঞ্জয় বলে । ma chele sex

তারপর নিজের মুখ খানা এগিয়ে নিয়ে গিয়ে মায়ের রসালো ঠোঁটের সাথে নিজের ঠোঁট মিলিয়ে দেয় । প্রথমে আলতো করে । তারপর জিভ দিয়ে মায়ের ঠোঁট দুটোকে চুষতে থাকে ।তার  সাথে সাথেই শরীরে একটা বিচিত্র তরঙ্গ বইতে শুরু করে দিলো । প্রবল শীতেও শিরদাড়া গরম হতে লাগলো সঞ্জয়ের । নিঃশ্বাসের বেগ ক্রমে নিজের অন্তরাল কমাতে শুরু করলো ।

মায়ের নরম গোলাপি ঠোঁট চুষে দারুন মজা পাচ্ছিলো সঞ্জয় । একবার সেটাকে সম্পূর্ণ মুখের মধ্যে প্রবেশ করিয়ে লালারসে ভিজিয়ে ছেড়ে দিচ্ছিলো । বেশ কয়েকবার চোখ খুলে দেখে নিচ্ছিলো মায়ের প্রতিক্রিয়া । সুমিত্রা ছেলের দিকে পাশ ফিরে শুয়ে বালিশে নিজের ডান গাল স্পর্শ করে চোখ বন্ধ করে একটা লাজুক ভাব নিয়ে শুয়ে ছিলো ।

ছেলে যে তাকে চুম্বন করে তার ওষ্ঠ মধু পান করছিলো তাতে সে বাধা দিচ্ছিলো না । আবার নিজের থেকেও বেহায়ার মতো সম্পূর্ণ ঠোঁট আলগা করে ছেলের নিষিদ্ধ প্রেমেও সাই দিচ্ছিল না । ব্যাস না আর হাঁয়ের একটা মধ্যবর্তী স্থানে দাঁড়িয়ে ছিলো সে ।
সঞ্জয় শুধু তার মায়ের সৌন্দর্যতা নিরীক্ষণ করছিলো । মায়ের সুন্দরী নাকের বাম পাশে স্ট্রিট আলোয় চকচক করতে থাকা নাকছাবি টার দিকে তাকিয়ে ছিলো । ma chele sex

আর ওর লালারস দিয়ে ভিজিয়ে দেওয়া মায়ের ফুলের পাঁপড়ির মতো ঠোঁট দুটো জ্বলজ্বল করছিলো । মা তখনও চোখ বন্ধ করে তার দিকে পাশ ফিরে শুয়ে আছে । কিন্তু কোনোরকম সাড়াশব্দ নেই । মা ঘুমায়নি কিন্তু । হয়তো লজ্জায় চোখ বন্ধ করে এমন ভাবে শুয়ে আছে । উফঃ হাইরে নারীর লজ্জা!!! । এটাও তাদের অলংকারের মতো । লাজুক নারীকে আরও সুন্দরী লাগে ।
সঞ্জয় এবার নিজের ডান হাত দিয়ে মাকে আরও একটু শক্ত করে জড়িয়ে ধরে নেয় ।

মায়ের নরম বাহু নিজের  পুরুষালি হাত দিয়ে শক্ত করে টিপে দেয় । তারপর তাকে নিজের বুকের মধ্যে টেনে নেয় । চুপচাপ চোখ বন্ধ করে শুয়ে থাকা মায়ের কপালে, গালে এবং চিবুকে চুমু খায় সঞ্জয় । অতীব সুখদ মধুর আস্বাদ পায় সে ।
তবে একটু আশ্চর্য হয় । মা এভাবে ঘুমোনোর ভান করছে । এতো লজ্জা কিসের? এটাতো তাদের মিলনের প্রথম রাত্রি নয় । তাহলে মা কেন এমন করছে? ma chele sex

সাতপাঁচ মাথায় আসলেও সেগুলো ভেবে সময় নষ্ট করতে চায়না সঞ্জয় । দুই বাহুর মধ্যে সুন্দরী রমণী কে পেয়েছে । তাকে রমণ করেই আজ রাত পার করতে চায় সে । কারণ এই সুযোগ আবার কোন সংযোগে আসবে তা জানা নেই ।

মাকে বুকের মধ্যে টেনে তার কপালে চুমু খেয়ে নিজের মুখ নিচে নামাতে শুরু করে সে । মায়ের দুই স্তনের ভরাট সন্দিক্ষণে নিজের মুখ রাখে । একটা মধুর সুগন্ধি ভেসে আসে সেখান থেকে । তৃপ্তি ভরা সুখের অনুভূতি হয় মায়ের ভারী স্তনের মাঝ খানে মুখ রেখে । জিভ দিয়ে চেটে ভিজিয়ে দেয় সেখান টাকে । উফঃ দিনের আলোয় মায়ের এই অংশটা চাছা ছোলার মতো দেখতে লাগে।

এবার ডান হাত দিয়ে শক্ত করে ব্লাউজের উপর থেকেই মায়ের বাম স্তনকে টিপে দেয় সঞ্জয়। ছেলের নিষিদ্ধ ছোঁয়ায় সুমিত্রা একটু নড়েচড়ে ওঠে ।
এক হাত দিয়ে মায়ের দুই স্তনকে আলাপালা করে টিপতে থাকে সঞ্জয় । আর মায়ের ওভাবে লাজুক স্বরূপ নিয়ে চোখ বন্ধ করে চুপচাপ শুয়ে থাকা দেখে তাকে আরও ভালোবাসতে এবং আদর করতে মন চায় ওর । ma chele sex

মায়ের বুকের দুই পীনোন্নত স্তন যুগলে হাতের স্পর্শ রেখে তার ঠোঁটে আরও একবার চুমু দিতে চায় সঞ্জয় । কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলো এবার ওর চুম্বনের সমরূপ প্রতিক্রিয়া তার মায়ের দিক থেকেও আসছে । সুমিত্রাও ছেলের তরুণ ঠোঁটের আস্বাদন করে নিতে চায় । সেও ছেলের ঠোঁটকে নিজের ঠোঁটের মধ্যে বিলীন করে নিতে চাইছে ।
মায়ের নরম রসালো মিষ্টি ঠোঁট এবং নিঃশ্বাসের উষ্ণতায় সঞ্জয়ের মন চনমনে হয়ে উঠছে ।

সে নিজের ডান হাত দিয়ে একটা নির্দিষ্ট অন্তরালে মায়ের কোমল বক্ষস্থলকে টিপে চলেছে আর ঠোঁট দিয়ে মায়ের মধুর লালারস চেটে খেয়ে নিচ্ছে ।
সুমিত্রার ও তৃপ্তি হচ্ছে অনেক দিন পর ওর নিটোল স্তনে কোন এক পুরুষের স্পর্শ পাচ্ছে । শিরা উপশিরা শিহরিত হচ্ছে জোয়ান ছেলের চওড়া হাতের মর্দনে । মন বলতে চাইছে আরও শক্ত করে টিপে দে না বাবু নিজের মায়ের দুধ দুটোকে । যেগুলো চুষে তু্ই বড়ো হয়েছিস । যেগুলো থেকে দুগ্ধ পান করে তু্ই পোষিত হয়েছিস মায়ের সেই স্তন দুটোকে ভালোকরে শক্ত হাতে টিপে দে । ma chele sex

মন ব্যাকুল হয়ে উঠছে ছেলের নিষিদ্ধ আবদারে । স্তন মর্দনের আনন্দ নিচ্ছে রূপসী যুবতী মাতা সুমিত্রা ।
তবে ব্লাউজের উপরে এবং ব্রার আড়ালে ছেলের স্পর্শ বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে । আর সেটা মুখ ফুটে বলতেও পারছেনা সুমিত্রা । শুধু ছেলের আগামী পদক্ষেপের অপেক্ষায় শুয়ে আছে সে ।

যতবার মাকে নিজের কাছে পায় সঞ্জয়, ততবারই মনে হয় যেন প্রথমবার পেয়েছে সে । তাই একটা আড়ষ্ট ভাব চলেই আসে অনায়াসে ।মাকে উদাম স্পর্শের আগে ভেবে নিতে হয় বারবার । কি জানি মা কি ভাববে এতে ।

মায়ের স্তনে হাত রেখে ঠোঁটে চুমু খেতে খেতে বেশ কয়েকবার চোখ তুলে তাকিয়ে দেখে নেয় সে । মা বিরক্ত হচ্ছে না তো? কিন্তু মায়ের নীরবতাকে মায়ের আসকাড়া মনে করে সে ।
তারপর ডান হাত দিয়ে মায়ের ব্লাউজের হুঁক একটা একটা করে খুলতে থাকে সঞ্জয় । আর মাঝে মধ্যে মায়ের মুখের ভাব লক্ষ্য করে সে । চোখ বন্ধ মায়ের । কিন্তু জেগে আছে শতশতাংশ । ma chele sex

সম্পূর্ণ ব্লাউজ খুলে ফেলার পর ব্রার গন্ডি অতিক্রম করতে হবে তাকে । আর সেটা করা বেজায় কঠিন । কারণ মায়ের ব্রার হুঁক কোন দিকে সেটাই সে খুঁজে পায় না । বহু চেষ্টার পর যখন ছেলে নাকাল হয়ে পড়ে তখন সুমিত্রায় নিজে থেকে বলে, “দাঁড়া আমি খুলে দিচ্ছি ।“
আর ওটা সঞ্জয়ের কানে আসতেই তরাৎ করে লিঙ্গ বাবাজি ঠাটিয়ে ওঠে । শিরার মধ্যে একটা টান অনুভব করে সে । মনে মনে ভাবে উফঃ মায়ের এই কথা তাকে কতইনা সুখ দিয়েছে তার বহিঃপ্রকাশ করার ভাষা নেই তারকাছে ।

দীর্ঘ নিঃস্বাস ফেলে নিজের হাত সরিয়ে দেয় সেখান থেকে ।
সুমিত্রা বিছানায় উঠে বসে ব্লাউজ এবং ব্রা খুলে দিয়ে উন্মুক্ত বক্ষস্থল নিয়ে পুনরায় শুয়ে পড়ে ।
মায়ের সুডোল স্তন যুগল তার চোখের সামনে উঁকি মারছে । সুন্দর শহরের ঝাপসা আলোয় মায়ের স্তন দুটোর সৌন্দর্যতা নিরীক্ষণ করতে অসুবিধা হচ্ছেনা সঞ্জয়ের । ma chele sex

গোল দুটো স্তনের মাঝখানে খয়েরী বর্ণের বৃন্ত গুলো দেখে অনেক দূরে হারিয়ে যায় সঞ্জয় । সেই ছোটবেলায় এগুলো থেকে তার মুখ সরতোই না । সুযোগ পেলেই মায়ের কোল বেয়ে ব্লাউজ তুলে স্তন পান করে নিতো ছোট্ট সঞ্জয় ।
আর এখন সেই স্তন মর্দন করে পুরুষালি সুখ নিচ্ছে সে ।

বিছানার মধ্যে শুয়েই সুমিত্রার নীরব আদেশ, ছেলে যেন মুখ দিয়ে ওগুলকে চোষে । যেমন টা সে শিশু অবস্থায় করতো ।
কিন্তু অবাক করার বিষয় সঞ্জয় তাইই করলো । মায়ের স্তন যুগলের একটা বৃন্ত মুখে পুরে আনন্দের সাথে চুষতে থাকে । তবে দুগ্ধ ক্ষরণের আস্বাদ সে পায়না । বরং তার থেকেও বেশি কিছু । কামানন্দ । যার বিকল্প হয়না ।

দামাল ছেলের স্তন চোষণে শিউরে ওঠে সুমিত্রা । কাম তাড়না তার রন্ধ্রে রন্ধ্রে দৌড়োয় । জোরে জোরে নিঃস্বাস ফেলতে থাকে সে । যোনিতে একটা শক্ত ভাব অনুভব করে সে ।
মনে হয় আর দেরি নয় ছেলে যেন তাকে মৈথুন করুক খুব শীঘ্রই । ma chele sex

মায়ের এভাবে উৎফুল্লতা দেখে সঞ্জয় মনে মনে খুশি হয় । বলে এইতো দেবীকে বসে আনতে পেরেছে সে ।
মায়ের উন্মুক্ত স্তন মর্দন করতে করতে এক হাত দিয়ে নিজের প্যান্ট খুলে দন্ডায়মান লিঙ্গকে মায়ের হাতে ধরিয়ে দেয় । সুমিত্রাও ঝাপতে ধরে ছেলের পুরুষাঙ্গ টাকে । তারপর মন্থর গতিতে ওঠানামা করে ।

সুমিত্রার কোমল মসৃন হাতের ছোঁয়ায় সঞ্জয়ের লিঙ্গের শিরায় শিরায় রক্ত টগবগ করে ফুটতে লাগলো । মায়ের হাতের উষ্ণতা তার পুং দণ্ডে পারিবাহিত হচ্ছে । যেন লোহা কে গরম করে তার দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি ঘটানো হচ্ছে ।
সে আর থাকতে না পেরে মাকে আরও টাইট ভাবে জড়িয়ে ধরে নেয় । হাঁফাতে হাঁফাতে বলে, “আর পারছিনা মা, এবার করতে চাই”।
সুমিত্রা ছেলের কথায় মুখ নামিয়ে চোখ বন্ধ করে শুধু, “হুম” বলে উত্তর দেয় । ma chele sex

লেপে ঢাকা অবস্থায় সঞ্জয়, সুমিত্রার শাড়ি কোমর অবধি তুলে দেয় । তারপর মায়ের সহায়তায় তার প্যান্টি খানা খুলে বিছানার শেষে রেখে দেয় ।
মা এখন উলঙ্গ হয়ে ওর সামনে শুয়ে আছে । এটা ভেবেই গায়ে একটা শিহরণ জাগছে । শিরদাড়া ঠান্ডা হয়ে আসছে । উত্তেজনায় গা কাঁপতে লাগছে ।
সে আর থাকতে পারছেনা । মায়ের সর্বোচ্চ সুন্দরী অঙ্গটাকে দেখার জন্য মন অস্থির হয়ে উঠছে ।তাই এই প্রচন্ড শীতেও সে বিছানায় বসে মাকে চিৎ হয়ে শুতে বলে তার শাড়ি টাকে খুলতে থাকে ।

সুমিত্রা তাতে বাধা দেয় । বলে, “কি করছিস বাবু? আমার শীত করে না বুঝি? ছাড় অমন করিস না । যা করার এতেই কর”।
মায়ের কথা শুনে চঞ্চল হয়ে সে  বলে, “দাও না মা । তোমার সুন্দরী শরীর টাকে একটিবার দেখতে”।
“এখন না পরে যখন আমাদের নিজস্ব ঘর হবে তখন আমাকে সম্পূর্ণ উলঙ্গ করিস”। সুমিত্রার না ভেবে চিন্তে জবাব । ma chele sex

সঞ্জয় এক আশ্চর্য ভ্রুকুটি তে দেখতে থাকে তার দিকে ।খুশি হয় সে । যদি সেরকম কোনো অবকাশ আসে জীবনে তাহলে তো কিছু বলার নেই । মা ছেলে মিলে সম্পূর্ণ বিবস্ত্র হয়ে আদিম অবৈধ খেলায় মেতে উঠবে ।

ছেলেকে কথা গুলো বলেই সুমিত্রা লেপ ঢাকা নিয়ে চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে । সঞ্জয় আবার মায়ের পাশে এসে শুয়ে তাকে নিজের মনের নিবেদন জানায় । বলে, “তাহলে আমার ওটা একবার তোমার মুখে নাও”।
সুমিত্রা আবার অস্থির ভঙ্গিতে বলে, “না সব পরে হবে । তুই যা করার শীঘ্রই করে নে”।

মায়ের কথা শুনে সঞ্জয় তার মুখের দিকে তাকিয়ে গালে নাক ঘষে বলে, “তুমি ইচ্ছুক তো মা? আমি তোমাকে জোর করছি নাতো?”
সুমিত্রা ছেলের মাথায় হাত বুলিয়ে বলে, “ধ্যাৎ আমি কিছু জানিনা । কাল সারাদিন আমার কাজ আছে জানিস তো? ভোর বেলা আমাকে বেরিয়ে যেতে হবে”। ma chele sex

সঞ্জয় বুঝতে পারে মায়ের সীমাবদ্ধতা কোথায় । সে আর কথা বাড়ায় না । সুন্দরী মায়ের সুকোমল শরীরে নিজেকে ঢলে দিতে চায় ।
মায়ের কোমর অবধি ওঠানো শাড়ির নিচে হাত রেখে সেটাকে আসতে আসতে আরও দক্ষিণ প্রান্তে নিয়ে যেতে থাকে । সুগঠিত উরুর সন্দিক্ষণে ত্রিকোণ অঙ্গটার উপর হাত রেখে সেটাকে রগড়াতে থাকে । ফোলা নরম যোনি বেদীর উপর মখমলের মতো মুলায়ম কোঁকড়ানো যোনিকেশ গুলোকে আঙুলের ফাঁকে নিয়ে খেলা করতে থাকে সে । আর চোখ বন্ধ করে তার শোভা কে অনুভব করতে থাকে ।

সত্যিই নারীর মাথায় যেমন ঘন চুল তার সৌন্দর্যতার অবিচ্ছেদ অঙ্গ । ঠিক সেই রকম নারীর যোনিকেশ ও নারীর নারীঅঙ্গ কে লাবণ্যতা প্রদান করে ।
বেশ কিছুক্ষন মাতৃঅঙ্গে ক্রীড়া করার পর সঞ্জয় মায়ের দুই উরু ফাঁক করে নিজের ডান হাত নিয়ে যায় সেখানে । অতীব আশ্চর্য হয় সে । সত্যিই নারীর বৈচিত্র বোঝা পুরুষের সাধ্যি নয় । মায়ের দুই উরুর সন্দিক্ষণের উত্তাপ যেন কয়লার আগুনের থেকেও তীব্র । নরম গরম স্থান সেটা । ma chele sex

আর যোনি মুখ কাম রসে ভিজে জবজব করছে । বোঝায় যায় মা কত উত্তেজিত হয়ে আছে । তার নারীত্বের ধারা প্লাবিত হচ্ছে । জ্বলন্ত লাভার মতো লালসা বেরিয়ে আসছে মাতৃ যোনি থেকে । অথচ মায়ের মুখ দেখে অনুমান করা যায়না সেখানে কি চলছে । মায়ের সুশ্রী এবং শান্ত মুখমন্ডল ।

তা দেখে সঞ্জয় আবার নিজের মায়ের মুখের মধ্যে নিজের মুখ মিলিয়ে দেয় । জিভ দিয়ে মায়ের জীভ স্পর্শ করে নিজের হৃদস্পন্দন বৃদ্ধি করে সে ।

সুমিত্রা তড়িঘড়ি নিজের মুখ সরিয়ে হাঁফাতে হাঁফাতে বলে, “আর পারছি না বাবু । কিছু একটা কর তুই”।
মায়ের আদেশ পেয়ে সঞ্জয় তার গায়ের উপর শুয়ে পড়ে আর মায়ের ভারী উরু দুটো পৃথক করে সেখানে নিজেকে স্থাপন করে ।
সুমিত্রাও জানে আনাড়ি ছেলে হয়তো এবারও অন্ধকারে যোনি ছিদ্র হাতরাবে । তাই সে নিজের থেকেই ছেলের পুরুষাঙ্গকে যোনি গহ্বরে বসিয়ে ছেলেকে ধাক্কা দিতে বলে । ma chele sex

সঞ্জয় ও চোখ বন্ধ করে নিজের  কোমর দিয়ে বল প্রয়োগ করে সুখের সুড়ঙ্গে প্রবেশ করে ।
ওদিকে অনায়াসে সুমিত্রার  মুখে “ওহঃ মাগো” শব্দ বেরিয়ে আসে। অনেক দিন পর একটা কঠোর কামদন্ড তার শরীরে প্রবেশ করলো । ছেলের লিঙ্গ বেশ মোটা এবং লম্বা । এখন মনে হচ্ছে ওর দৈর্ঘ্য এবং প্রস্থ্য এর বৃদ্ধি ঘটেছে এই কয় দিনে ।

মায়ের এই ভাবে চিৎকার । ওর হৃদয় কে তার প্রতি প্রেমভাব আরও কয়েকগুন বাড়িয়ে তোলে । সে জানে যে কাম সুখ বসত মায়ের এই মধুর চিৎকার ।
ওর নিজেরই  একটা অলীক সুখদ স্পর্শানুভূতি হচ্ছে । যেন জীবনে প্রথমবার কোনো নারীর সাথে যৌন মিলন করছে । আর সেটা নিজের জন্মদায়িনী মা । তার চিন্তা করতেই পায়ের নিচে মাটি সরে বাতাসে ভাসছে বলে মনে হচ্ছে । ma chele sex

মায়ের নরম যোনির ভেতরে নিজের লিঙ্গ পৌঁছে যেন কোনো এক স্বর্গ রাজ্যে পা রেখেছে বলে মনে হচ্ছে । কোমর উঁচু নিচু করে মা সুমিত্রার সাথে সঙ্গম লীলায় মেতে উঠেছে সে ।
গরম এবং মসৃন স্বর্গরাজ্যে ।
যতই সময় পার হচ্ছে ততই তার হৃদয়ের গতি বৃদ্ধি পাচ্ছে ।

চোখ তুলে মায়ের মুখের দিকে তাকায় সে । মা চোখ বন্ধ করে চিবুক তুলে অবৈধ মৈথুনের আনন্দ নিচ্ছে ।
এই শীতেও মায়ের মাথায় বিন্দু বিন্দু ঘাম । সে দেখে নিজের বাম হাতের তালু দিয়ে মুছিয়ে দেয় । এবং মায়ের উজ্জ্বল কপালে চুমু খেয়ে বলে, “আয় লাভ ইউ সুমিত্রা”। ma chele sex

নিজের নাম ছেলের মুখে শুনে চোখ মেলে তাকায় সুমিত্রা । আর  নিজের ডান হাত দিয়ে  ছেলের মাথায় হাত বুলিয়ে বলে, “আয় লাভ ইউ টু সঞ্জয়”।তারপর পুনরায় নিজের চোখ বন্ধ করে যৌন মিলনের আনন্দ নিতে থাকে ।
মায়ের মুখে এমন মিষ্টি রোমান্টিক ইংলিশ শব্দ শুনে একটু অবাক হয় । তারপর ভাবে এ এমন কোনো ভারী শব্দ নয় । এটা যে কেউ বলতে পারে । তবে মায়ের বুদ্ধিমত্তা তাকে অনেক কিছু শিখিয়ে দিয়েছে পড়াশোনা তেমন না জানলেও ।

যাইহোক মায়ের উরুর সংযোগ স্থলে পুনরায় মনো নিবেশ করে সে  । এক অসীম অনন্ত সুখদ সাগরে ভাসতে থাকে সঞ্জয় । সত্যিই মায়ের এই অঙ্গ দিয়ে তার জন্ম । ভেবেই অবাক হয় । সেখানে আবার সে প্রবেশ করতে পারছে ।
কোমর হিলিয়ে আপন মায়ের সাথে যৌন সংযোগ করছে । ma chele sex

মায়ের দীর্ঘ নিঃশ্বাসের শব্দ । তার শিরশিরানি । তার মধু মন্থর গলার স্বর শুনে সে কতইনা পুলকিত হচ্ছে । মায়ের শরীরের গভীরে তার দীর্ঘ লিঙ্গ খানা পিচ্ছিল গতিতে ঢুকছে আর বেরোচ্ছে । মসৃন অলীক অতুলনীয় অপার্থিব দ্বার সেটা ।

মায়ের সাথে যৌন স্থাপনের সাথে সাথেই তার প্রতি ভালোবাসা আরও প্রগাঢ় হতে শুরু করে দিয়েছে । তার শরীরের সাথে লেপ্টে থেকে তার বগলের তলা দিয়ে নিজের হাত প্রবেশ করে মায়ের কাঁদ চেপে ধরে অবিরাম গতিতে তার লিঙ্গ চালনা করছে সঞ্জয় ।
মায়ের সুন্দরী মুখে মাঝে মাঝে নিজের ঠোঁট ঘষে দিচ্ছে । তার নরম গালে নিজের গাল থেকেই আশ্চর্য অনুভূতি হচ্ছে সঞ্জয়ের ।
আর নীচের দিকে মায়ের ত্রিকোণ মূল্যবান অংঙ্গকে জয়ী করে মনে হচ্ছে যেন পৃথিবীর সর্ব সুখ গ্রহণ করে নিয়েছে সে । ma chele sex

ওপর দিকে সুমিত্রাও ছেলের হাত ধরে তার সাথে নিষিদ্ধ কামনায় মেতে উঠেছে । অনেক সময় নিজের নারীত্ব এগুলোকে বাধা দিয়ে থাকে কিন্তু সে সেই বাধা অতিক্রম করে চলে এসেছে । ছেলেই তার আপন । তারসাথে সে যা খুশি করতে পারে । সেই ভেবেই এগিয়ে এসেছে ।
এখন শুধু কামের আনন্দ নিতে চায় সে । সুন্দরী যুবতী কামুকী নারী সুমিত্রা । বর শুধু তাকে পাশবিক নির্যাতন করে এসেছে । এখন সেই পথ ভুলে অন্য এক পথ অবলম্বন করেছে । মনকে বলে দেখেই নি এই পথে আছে কি তার আসল সুখ ।

ভাবতে ভাবতে নিজের থেকেই ছেলেকে দুই বাহু দিয়ে শক্ত করে ধরে নেয় । তারপর কানের কাছে মৃদু কণ্ঠে বলে, “মাকে দারুন সুখ দিচ্ছিস । আমার খুব ভালো লাগছে । কিন্তু এবার একটু তাড়াতাড়ি করলে ভালো হয়”।
মায়ের মধুর শব্দ শুনে সঞ্জয়ের লিঙ্গ আরও স্ফীত হতে লাগলো । টান মেরে মায়ের যোনির মধ্যে সজোরে বেশ কয়েকটা ঠাপ মেরে দিলো ।
ফলে সুমিত্রাও চিৎকার করে উঠলো । “মাগো, বাবাগো আর পারিনা” বলে উঠল সে । ma chele sex

সঙ্গে সঙ্গে সঞ্জয়ের ও বীর্যস্খলন হয়ে গেলো । মায়ের মুখের মধ্যে নিজের মুখ রেখে দীর্ঘ চুম্বন করে সে বলে, “আমি তোমাকে খুব ভালোবাসি মা । তোমাকে ছাড়া বাঁচবো না”

তারপর দুজনেই হাঁফাতে থাকে । তাদের নিঃশ্বাস প্রশ্বাসের আওয়াজে ঘর ঘমঘম করে ওঠে ।

তার প্রায় আধ পর আবার তারা স্বাভাবিক হয় ।মায়ের গালে চুমু খেয়ে সঞ্জয় আবার তার স্তন চেপে ধরে । সুমিত্রা আশ্চর্য হয় তাতে । সে প্রশ্ন করে কি হলো বাবু আবার কি করছিস?

মায়ের কথা শুনে আদুরে গলায় সঞ্জয় বলে, “আরেকবার দাও না মা । তোমাকে আদর করতে আমার খুব ইচ্ছা করছে”। ma chele sex

ছেলের কথায় সুমিত্রা ন্যাকা স্বরে বলে, “একবারে মন ভরেনি বুঝি?”
সঞ্জয় ও মুখ নামিয়ে লাজুক ভাবে বলে, “না । বারবার নিতে ইচ্ছা করছে”।
সুমিত্রা ছেলের মাথায় হাত বুলিয়ে বলে, “আর নয় বাবু । এবার করলে তোর ভাই অথবা বোন চলে আসবে আমার গর্ভে”।

সেটা শুনেই সঞ্জয় হেসে ফেলল । সাথে সুমিত্রাও ।
সঞ্জয় মায়ের দুস্টুমি বুঝতে পারছে । সে আবার মাকে কাছে টেনে মায়ের শাড়ি উপরে তুলে তার যোনিতে প্রবেশ করতে যায় । সুমিত্রা তীব্র বাধা দেয় তাকে উবুড় হয়ে শুয়ে  । কিন্তু হাসি মুখেই বলে আর নয় বাবু । বললাম না আমার পেট হয়ে যাবে বারবার করলে । ma chele sex

মায়ের তিরস্কারে সঞ্জয় মায়ের পায়ের পাশে বসে থাকে । তারপর আচমকা ওর হাতে মায়ের খুলে রাখা প্যান্টিটা এসে পড়ে । সেটাকে হাতে নিয়ে নাকের কাছে নিয়ে যায় । মায়ের প্যান্টি শুঁকে নেয় । আহঃ মাতৃ সুবাস অতুলনীয় ।
ওতে ওর লিঙ্গ আবার সাড়া জেগে ওঠে । আবার হৃদয় লাফাতে শুরু করে ।
সুমিত্রা উবুড় হয়ে শুয়ে থেকে তা দেখে লজ্জায় লাল হয়ে গেলো ।

সঞ্জয় ও নাছোড়বান্দা মায়ের সামনে এসে পেছন থেকে মায়ের শাড়ি উপরে তুলে তার চওড়া নিতম্বে হাত বুলিয়ে তার সুদৃঢ় নিতম্বের গভীরে নাক ঢুকিয়ে শুঁকতে থাকে ।
সঙ্গে সঙ্গে সুমিত্রাও খিলখিলিয়ে হেসে পড়ে । সে বলে, “উফঃ শয়তান কি অসভ্য কি অসভ্য”। ma chele sex

সঞ্জয় ও মায়ের কথায় হার মেনে নেওয়া ছেলে নয় । সে মায়ের দুই পায়ের মাঝখানে বসে নিজের লিঙ্গ আবার মাতৃ যোনিতে প্রবেশ করিয়ে রতি সুখ নিতে থাকে ।
ওদিকে আবার আচমকা নিজের টাইট যোনিতে ছেলের লিঙ্গ স্থাপনে শিউরে ওঠে । আবার মুখ দিয়ে শব্দ করে, “উহ্হঃ মাগো মরে গেলাম”।

সেরাতে দুইবার মা ছেলে নিষিদ্ধ মিলনে মেতে উঠে ছিলো ।

তারপর আবার বিস্তর ব্যবধান ।

আজ সঞ্জয়ের জয়েন্ট এন্ট্রান্স এক্সাম । সুমিত্রাও বেশ চিন্তিত । সামনের মন্দিরে পুজো দিয়েছে। তার প্রসাদ ছেলের মুখে দিয়ে ভগবানের কাছে প্রার্থনা করেছে । ছেলে যেন সফল হয় । ma chele sex

সকালে বেরোনোর সময় সঞ্জয় মায়ের পা ছুঁয়ে প্রণাম করে । মায়ের আশীর্বাদ চায় ।
ছেলের মুখের দিকে তাকিয়ে সুমিত্রা মৃদু হেসে বলে, “যদি এই পরীক্ষায় সফল হোস তাহলে একটা উপহার দেবো তোকে”।

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

কেও এখনো ভোট দেয় নি

7 thoughts on “ma chele sex সুন্দর শহরের ঝাপসা আলো – 30 Jupiter10”

  1. এই গল্পের মধ্যে এই পার্ট টা সবথেকে ভালো লাগলো।গুড ওয়ার্ক ম্যান।

    Reply
  2. ভাই আজ তো আপডেট দিলেনই না। দয়া করে আপডেট দিন প্রতিদিন…

    Reply

Leave a Comment