new sex panu আয়ামিলাইজড – পর্ব – 16 by আয়ামিল

bangla new sex panu choti. কালিহরি থেকে ফিরে জামিল ওর বাবা আজমলকে বলল মিনুর শ্বশুড়বাড়ির কথা। যদিও জামিল জানে সেটা পুরা বানোয়াটও হতে পারে। সম্ভবত জামিলকে নিজের জালে আনার জন্য শেফালি পুরো ঘটনাটা ফাঁসিয়েছে। তাই জামিল দায়সারাভাবে আজমলকে সবকিছু বলে মুক্তি নিল।বাড়ি ফিরে দেখে এরই মধ্যে ফারজানা চলে গেছে। একদিনের মধ্যেই চলে যাওয়ায় জামিল খুব অবাক। তখন জানতে পারে ওর দুলাভাই নাকি হঠাৎ এসে ফারজানাকে নিয়ে গেছে। জামিল অবশ্য এগুলো নিয়ে তেমন মাথা ঘামাল না। ওর চিন্তা করার জন্য অনেক কিছু আছে।

[সমস্ত পর্ব
আয়ামিলাইজড – পর্ব – 15 by আয়ামিল]

বিশেষ করে বিশুর ভাগিনী মেহেরিনের খোঁজ পেয়ে জামিলের মনের ভিতর অনেক কিছুই আসতে শুরু করেছে।তিন চারদিন চলে গেল। তারপর যেন জামিলের জীবনকে আরেকবার পাল্টে দেবার জন্য ফুলকির সাথে দেখা হল। জামিলদের গ্রাম কট্টই থেকে একটু দূরে গরীবপাগলার মাজার। এটা সীমান্তশা জেলার খুবই বিখ্যাত জায়গা। নিজের জীবনের অদ্ভুত সব অভিজ্ঞতা কোন খারাপ কিছুর ইঙ্গিত দিতে পারে ভেবে, মাজারে এসে দোয়া করতে এসে জামিল ফুলকিকে দেখতে পারে সাবরিনার সাথে।

new sex panu

ফুলকি জামিলকে দেখে কেন জানি খুবই অবাক হয়। জামিলের বুকে সাথে সাথে প্রথম রিজেকশনের ব্যাথাটা জেগে উঠে। সে অপেক্ষা করতে থাকে ফুলকির সাথে একা কথা বলার জন্য। বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর সাবরিনা মাজারের ভিতরে চলে গেল। ঠিক তখন জামিল ফুলকিকে ডাক দিয়ে কুশলাদি জিজ্ঞাস করতে থাকে। তারপর আবার জিজ্ঞাস করে,
– আমার প্রশ্নের উত্তর তাহলে দিবে না ফুলকি?

– উত্তরটা আমি দিয়ে দিয়েছি জামিল ভাই। এই বিষয়ে আর কোন কথা বলবেন না দয়া করে। তাহলে আপনার সাথে যতটুকু পরিচয় আছে সেটাও নষ্ট হয়ে যাবে।
জামিল আবার কষ্ট পেল। কোন মেয়ে জাতিই ওর প্রতি সদয় না দেখে জামিলের প্রচন্ড হতাশা লাগল। ঠিক তখনই সাবরিনা মাজারের ভিতর থেকে চলে আসল। জামিল আর ফুলকিকে একসাথে দেখে সাবরিনা ভ্রু কুঁচকে ওদের দিকে আসল আর ফুলকিকে মাজারের ভিতরে যেতে বলল। জামিল তখন সাবরিনার দিকে তাকিয়ে আরেকবার মুগ্ধ হল। তারপর বলল….. new sex panu

– আপু ভালো আছেন?
সাবরিনা জামিলকে চেনার চেষ্টা করল। তারপর চিনতে পেরে বলল,
– তুমি তো ফারজানার ভাই? তাই না?
– জ্বি আপু।

হেসে উত্তর দিল সাবরিনাকে। সাবরিনার বয়স ২৮/২৮ হবে। তাই পূর্ণযৌবনা বলা যেতে পারে তাকে। সাবরিনাকে দেখে তাই জামিল আবার ঢোক গিলল। বিশুর ভাগিনী মেহেরিনের চেয়েও সুন্দরী সাবরিনা। আর তাতেই জামিল সাবরিনার প্রেমে পড়তে পড়তে নিজেকে আটকাল। সাবরিনা বলল,
– ফুলকির প্রেমে পড়েছ নাকি?
– না… না… না! কি বলেন! ফুলকি একবার আমাকে সাহায্য করেছিল। তাই আমার আর ওর পরিচয় আছে। সেইজন্য আর কি ওর সাথে কথা বললাম।

– হুম, সেদিন তোমাদের বাড়ির উঠানেও তো দেখেছি কীভাবে কথা বলছিলে। তবে তোমাকে আমি এটাই বলব ফুলকি থেকে দূরে থাকো। এতে তোমারই ভাল হবে। new sex panu

– মানে? বুঝলাম না!

সাবরিনা যেন কি ভাবল। জামিলের আপাদমস্তক একবার তাকিয়ে বাঁকা হেসে বলল,

– ফুলকির আরেকটা প্রেমিক আছে। তবে প্রেমিকের চেয়েও বলতে পারো অবিবাহিত স্বামী। আশা করি বুঝতে পারছ কি বলতে চাচ্ছি?

জামিল কোন কথা বলল না। সাবরিনা বলল,

– ফুলকি সেই জন্য তোমাকে কোনদিনও দাম দিবে না। হয়ত তোমার প্রতি সে দুর্বল হয়ে যাবে। কিন্তু কোনদিনও সাড়া দিবে না।

– কার সাথে? মানে ফুলকির প্রেমিক… টা… কে?

সাবরিনার চোয়াল শক্ত হয়ে গেল। যেন রেগে যাচ্ছে! তারপর নিজেকে সামলে বলল,

– সেটা তোমাকে বলা ঠিক হবে না। তবে এটা বলতে পারি… আমার শাশুড়ির বাড়ি থেকে পালিয়ে যাবার পিছনেও ফুলকির হাত আছে। new sex panu

জামিল চমকে উঠে। সাবরিনার শাশুড়ি মানে তো পাগলি! জামিল কি যেন বুঝতে পারে।

– আপনার স্বামী… না না না… আপনার শ্বশুর?

সাবরিনা মিষ্টি করে হাসে। বলে,

– বুদ্ধিমানের জন্য ইশারাই যথেষ্ট। তুমি ঠিকই ধরেছ। আমার শাশুড়ি পাগল হলেও নিজের স্বামীকে যখন তার নাতনীর বয়সী কারো সাথে… দেখে, তখন বুঝতেই পারছ। এই জন্য প্রায়ই আমার শাশুড়ি পালিয়ে যায়। তবে তোমাকে সেগুলো নিয়ে না ভাবলেও চলবে। ফুলকি আর আমার শ্বশুরের সম্পর্কের কথা আমাদের পরিবারের সবাই জানে।

পরিবারের বাইরে বলতে তুমি জানলে। ফুলকি আমার শ্বশুরের সাথে ইমোশনালি কানেক্টেড। তাই তুমি হাজার চেষ্টা করেও ওকে টলাতে পারবে না। তবে এটা অস্বীকার করবো না বড় হবার সাথে সাথে ফুলকি বুঝতে পারছে ওদের সম্পর্কটা কতটা অস্বাভাবিক। কিন্তু বুঝতেই পারছ মাত্র ১৭ বছরের একটা গরীব মেয়ের করারই বা কি আছে! new sex panu

জামিল কোন কথা বলল না। ওর ভিতরটা খানখান হয়ে যাচ্ছে। ওর চোখের সামনে যেন ভেসে আসছে ফুলকির ১৭ বছরের দেহটাকে খুবলে খাচ্ছে একটা বৃদ্ধ কামুক পুরুষ। জামিল কিছু বলতে পারল না। সাবরিনা বলল,

– তাই বলি ফুলকিকে ভুলে যাও। অন্য কিছুতে মন দাও। ফারজানার সাথে আমার সম্পর্ক ভাল দেখে আমি চাইনা ওর ভাই হয়ে ফুলকির মতো মেয়ের জন্য তুমি তোমার জীবনটা নষ্ট কর।

জামিল কোন উত্তর দিতে পারল না। কিছুক্ষণ পর ফুলকি এসে গেল। সাবরিনা তখন ফুলকিকে নিয়ে চলে গেল। ফুলকি আর জামিলের চোখাচোখি হল একবার। ফুলকির চেহারার কোন পরিবর্তন নেই দেখে জামিল আবার কষ্ট পেল। এরপর থেকে জামিলের জীবন খুবই সাদামাটা কাটতে লাগল। কবরীর সাথে দেখা আর হয় না ওর।

বাড়িতে শবনমের সাথেও ওর একটা দেয়াল তৈরি হয়েছে অনুভব করে জামিল। যেন আগের সেই শবনম এখন আর নেই। জামিলের মাথায় শুধু ফুলকির সম্পর্কে বলা সাবরিনার কথাগুলোই ভাসতে লাগল। কিন্তু সত্যি হিসেবে এগুলো বিশ্বাস করতে না চাইলেও জামিল বুঝতে পারে অযথাই জামিলকে মিথ্যা বলার কোন প্রয়োজন নেই সাবরিনার। ফলে ফুলকির জীবনের সবচেয়ে গোপন তথ্যটা জানার পর জামিল আর স্বাভাবিক থাকতে পারল না। new sex panu

নিজেকে ঠিক করতে দোকানের কাজে মন দিল জামিল। আজমল খুবই অবাক হয় দোকানে ছেলের মন দেখে। কিন্তু সে মনে মনে খুশিই হয়। তবে জামিল দোকানে কাজে এসেছে ওর মনকে শান্ত করাতে। কেননা কবরী, ফুলকি, বিশুকে নিয়ে ভাবতে ভাবতে জামিলের পাগল হবার যোগাড়।

এভাবে ঘটনাবিহীন কেটে যায় আরো দুইটা মাস। জামিল পুরোদমে দোকানে ব্যস্ত। কবরীর সাথে এই দুই মাসে একদিনের জন্যও দেখা করেনি জামিল। জামিল এক কথায় পাগলির সাথে দেখা হবার আগের ঘটনাবিহীন দিনে ফিরত আসল। তারপর হঠাৎ একটা সুসংবাদ আসল।

প্রথমে জামিল বিশ্বাসই করল না। ফারজানার পেটে অবশেষে সন্তান এসেছে। জামিলের সন্তান। বিষয়টার গভীরত্ব কল্পনাও করতে পারল না জামিল। তবে সবাই খুশি দেখে জামিলও খুশি হয়ে গেল। ফারজানাকে দেখতে গেল সবাই মিলে। জামিল, শবনম আর আজমল। ফারজানার শ্বশুরবাড়িতে তো আনন্দের আমেজ। তবে জামিল ওর দুলাভাই আতিককে খুশিতে প্রায় নাচতে দেখে মনে মনে খুবই অনুশোচনা অনুভব করল। তবে ফারজানা যখন ওকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে ফেলে, তখন জামিলের সব অনুশোচনা চলে যায়। new sex panu

জামিল বুঝতে পারে ফারজানাকে সে দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ উপহার দিয়েছে। তাই জামিলের আফসোস আর রইল না। ফারজানার মা হবার সংবাদ জামিলের ভিতর কেন জানি বিরাট এক পরিবর্তন করিয়ে দিল। জামিল হঠাৎ অনুভব করল ও চাইলেই সবকিছু করতে পারে। সে খুব সহজে হাল ছেড়ে দিয়েছে সবকিছুতে। ফুলকির দিকে হয়তো আর এগুতে ওর মন সায় দিচ্ছে না। তবে কবরীর প্রতি আরেকবার চেষ্টা করবে বলে ঠিক করে। শুধু কবরীকে পাবার জন্য না। বরং বিশুকে শায়েস্তা করার জন্যও।

ফুর্তি মনে ফারজানাদের বাড়িতে থেকে নিজেদের বাড়িতে যেদিন আসল জামিলেরা, সেদিন বিকালেই ওদের বাড়িতে একটা কার্ড আসল। বিয়ের দাওয়াতের কার্ড। শবনমের চাচাত ভাইয়ের মেয়ের বিয়ে। শবনমদের সবাইকে দাওয়াত দিয়েছে। জামিল ওর এই চাচাতো মামাকে ঠিকই চিনে, তবে ওদের মধ্যে তেমন সম্পর্ক নেই। কিন্তু শবনম যখন জামিলকে নিয়ে যাবে বলে আজমলকে বলল, জামিল তখন কেন জানি রাজি হয়ে গেল। কবরীর প্রতি ওর দ্বিতীয় চেষ্টার আগে মনটা ফুরফুরে করার জন্য একটা বিয়ে খেলে মন্দ হবে না বলে ঠিক করল জামিল। new sex panu

তবে… জামিল হয়ত জানে না এই বিয়ের দাওয়াত, ওর জীবনে চেইন রিঅ্যাকশনের মতো অনেক নতুন ইকুয়েশন এনে ঠেলে দিবে।

শেষবার কবে নিজের নানা বাড়ি এসেছিল তা মনে নেই জামিলের। জামিলের নানা নানীর মৃত্যুর পর থেকে নানা বাড়িতে তেমন আসা হয় না জামিলের। শবনমও ইদানীং নিজের পরিবার নিয়ে ব্যস্ত থাকে। তাই এদিকে আসা হয় না। অথচ কট্টই থেকে দখিন্দার দূরত্ব বেশি না। দুই তিন ঘন্টাতেই পৌঁছানো যায়। কিন্তু আসা হয়না অনেকদিন। জামিলের কোন মামা নেই। এক খালা আছে। তবে সেই খালা সীমান্তশা পার হয়ে পাশনা-তে থাকে। তাই কট্টই থেকে বেশ দূরে বলে কোন উপলক্ষ্য ছাড়া যাওয়া হয় না। তাই বলতে গেলে শবনম ওর ছোট বোনের সাথে দেখা করার অযুহাত পেয়ে বিয়েতে এসেছে।

বিয়ে বাড়িতে এসে জামিলরা দেখে জামিলের খালা দিলরুবা কিংবা খালাত বোন প্রভা আসেনি। এটা শুনে শবনম খুব অবাক হয়। জামিলের কোন মামা না থাকায় জামিলদের নানা বাড়িটা দেখাশুনার জন্য শবনমের এক দূর সম্পর্কের ফুফুকে রাখা হয়েছে। সেই ষাটোর্ধ বৃদ্ধা, রতনের মা জানাল যে দিলরুবার স্বামী, মানে জামিলের খালু মোজাহেদের সাথে নাকি বিয়ের পাত্রীর বাবার কি বিরোধ হয়েছিল গত পরশুদিনই। সেই জন্য দিলরুবা রাগ করে আসেনি। কথাটা শুনে শবনম খুবই অবাক হল। এ বিষয়ে সে কিছুই শুনেনি। বোনের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ হলেও এটা শুনেনি দেখে শবনম অবাকই হল। new sex panu

গায়ে হলুদের সন্ধ্যায় এসেছে জামিলেরা। তাই শবনম খুব হতাশ হল দিলরুবাকে না দেখতে পেয়ে। এদিকে পাত্রীর বাবা শবনমকে এসে অনুরোধ করল দিলরুবাকে আনানোর ব্যবস্থা করতে। শবনম খুবই মুশকিলে পড়ল। দিলরুবাকে ফোনের পর ফোন দেওয়া হল। কিন্তু সে কিছুতেই ফোন ধরে না। শেষে শবনম জামিলের দিকে ফিরে অনুনয় করে বলল,

– তোর খালাকে গিয়ে আনবি?

জামিল খুবই বিরক্ত হয়। বিয়ের অনুষ্ঠান হচ্ছে জামিলদের নানাবাড়ি দখিন্দা। সেখান থেকে পাশনা অনেক দূর। তার উপর শবনম বলছে আজ রাতের মধ্যেই নিয়ে আসতে। এত মানুষের সামনে জামিলকে বলায় জামিল না করার সুযোগ পর্যন্ত পেল না। ফলে জামিলকে একজনের সাথে তুলে দেয়া হল মোটরসাইকেলে। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ ওরা রওনা হয়ে গেল। পরে ইজিবাইক নিয়ে এসে পড়বে, না হলে পরদিন ভোরে। জামিল বিরক্ত হলেও বাঁধা দেবার সুযোগ না পেয়ে মোটরসাইকেল করে পাশনার পথ ধরল। new sex panu

মোটরসাইকেল বেশ ভালো গতিতে চললেও রাত সাড়ে নয়টা বেজে গেল পাশনা যেতে যেতে। দিলরুবাদের বাড়ির সামনে জামিলকে নামিয়ে দিয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে সাথের লোকটা চলে যেতেই জামিল খুবই অস্বস্তি অনুভব করল। জামিল কেন জানি দিলরুবার সাথে প্রতিবার দেখার সময়ই অনুভব করে যে দিলরুবা ওকে তেমন পছন্দ করে না। অবশ্য এর জন্যই কিছু কারণ আছে।

দিলরুবার স্বামী সরকারী চাকরী করে এবং অন্য জেলায় বদলী থাকলেও নিজের বাড়ি ঘর তুলে বেশ সেটেলড অবস্থায় আছে বলা চলে। আর্থিক দিক বিবেচনায় দিলরুবাদের অবস্থা জামিলদের চেয়ে অনেক ভাল। সম্ভবত সেই কারণে কয়েকবছর আগে শবনম যখন জামিল আর প্রভার বিয়ের কথা বলেছিল, তখন দিলরুবা সরাসরি তাতে না করে দেয়। অথচ প্রকাশ্যভাবেই প্রভা জামিলকে পছন্দ করত এবং জামিলের চরিত্রের উপর দাগ দেয়ার মতো কিছুই নেই। কিন্তু তবুও দিলরুবা বলে সে জামিলকে পছন্দ করে না। তাই মেয়ের বিয়ে সে দিতে চায় না জামিলের সাথে। new sex panu

ঐ ঘটনার পর থেকে জামিল আর দিলরুবার মুখোমুখি সাক্ষাতের ঘটনা খুবই কম। অন্যদিকে শবনম আর দিলরুবার মধ্যেও সামান্য দূরত্ব চলে আসে। সময়ের সাথে সাথে দিলরুবা আর শবনমের সম্পর্ক স্বাভাবিক হলেও জামিলের সাথে দিলরুবার সম্পর্ক এখনও স্বাভাবিক হয়নি। তাই জামিলকেই দিলরুবাকে নেবার জন্য পাঠানোতে জামিল তেমন স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছে না। তার উপর বিয়ের পাত্রীর বাবার সাথে দিলরুবার স্বামীর অন্য জেলাতে দ্বন্দ্বটাও জামিলকে ভাবচ্ছেে। পাত্রীর মামার দোকানে নাকি রেইড চালায় দিলরুবার স্বামী। তখন সেখানে উপস্থিত ছিল পাত্রীর বাবা। তাতে কথা কাটাকাটি হতে হতে ঝগড়াতে রূপান্তরিত হয়।

দিলরুবাদের বাড়িটা দুই তলা। বাড়িটা দেখে শেফালিদের বাড়িটার কথা মনে পড়ে যায় জামিলের। মনে মনে ভাবে শেফালির বাড়িতে গেলে বরং আরামে দিন কাটাতে পারত। দীর্ঘশ্বাস ফেলে গেইটের কলিংবেলে নক দেয় জামিল। প্রায় পাঁচ মিনিট দাড়িয়ে থাকার পর ‘কে’ এসেছে জিজ্ঞাস করতে জামিল ওর পরিচয় দেয় এবং তারও দুই তিন মিনিট পর এসে দরজা খুলে দিলরুবা। জামিলকে দেখে খুবই অবাক হয়ে দিলরুবা জিজ্ঞাস করল,

– এত রাতে? তুই না বিয়ে বাড়িতে?

– তোমাদের নেবার জন্য আম্মা পাঠিয়েছে। new sex panu

– কেন? আমরা তো কাল সকালেই যাচ্ছি বিয়েতে!

জামিলের মাথায় বাজ পড়ল যেন। সে প্রচন্ড হতাশ হয়ে দিলরুবাকে পুরো ঘটনা বলল। দিলরুবা হাসতে লাগল। তারপর গেইট বন্ধ করে জামিলকে নিয়ে ওদের দুই তলার লিভিংরুমে আসল। জামিলকে দেখে প্রভা তো প্রায় লাফিয়ে উঠে। প্রভাকে দেখে জামিল হাসল। তারপরই জামিলের নাকে তীব্র গন্ধ ঢুকল। কড়া গন্ধটা পরিচিত লাগল। জামিল প্রভাকে জিজ্ঞাস করল,

– কিরে গন্ধ কিসের?

– সারা বাড়িতে রঙ করছে। গত কয়েকদিন ধরে কি যে গন্ধ করছে জামিল ভাই! বলে বুঝাতে পারবো না। আজ তো রুমে রঙ করেছে। টিকা যাচ্ছে না গন্ধে।

জামিল চারপাশে তাকাল। তখন ওর নজর গেল দিলরুবার দিকে। দিলরুবার চেহারা দেখে যে কেউ বুঝতে পারবে দিলরুবা চরম বিরক্ত। কিন্তু জামিলের সাথে চোখাচোখি হতেই দিলরুবার হাসিমুখ বের হয়ে এল। তাতেই জামিল বুঝতে পারল দিলরুবা ওর উপরই হয়ত বিরক্ত হয়েছে।

খাওয়া দাওয়া শেষ হল। দিলরুবা জামিলকে তেমন ঘাটাল না আর। এদিকে প্রভা তো পারলে শরীরে এসে পড়ে। শুধু দিলরুবার জন্য কিছু করতে পারছে না। এদিকে রাত প্রায় এগারটা বেজে যেতেই ঘুমানোর তোড়জোর শুরু হল। তখনই সমস্যাটা সামনে আসল এবং জামিল দিলরুবার বিরক্ত হবার কারণটা ধরতে পারল। new sex panu

রঙ করানোর ফলে নিচতলার থাকার যোগ্য একমাত্র রুমটাতে রঙের বাতলি ও অন্যান্য সরঞ্জামে খুবই বাজে অবস্থা। সেটা মূলত অতিথিদের থাকার জন্য ব্যবহার করা হয়। তবে সেটাতে ঘুমানো এখন সম্ভব না। এতেই মেইন সমস্যা। জামিল নিচতলায় ঘুমাতে পারবে না তাই ওকে উপরের তলায় ঘুমাতে হবে। কিন্তু উপরতলায় মাত্র দুইটা রুম। দিলরুবার সন্তান বলতে শুধু প্রভা। তাই দ্বিতীয় তলায় ওরা মাত্র দুইটা রুমের ব্যবস্থা করেছে। এর মধ্যে দিলরুবাদের রুমে ডাবল খাট আর প্রভার রুমে সিঙ্গেল খাট।

প্রভার রুমটা অন্যসময় হলে জামিলকে ঘুমানোর জন্য দিত। তবে বর্তমানে সেটাও সম্ভব না। কেননা দিলরুবাদের ডাবল বেডে বর্তমানে একজনের বেশি ঘুমাতে পারবে না। নিচতলার অতিথি রুমের সব জিনিসপত্র আজ সন্ধ্যাতেই দুইতলার রুম দুইটাতে এনে রাখা হয়েছে। বেশিরভাগ জিনিস ডাইনিং এরিয়াতে ছিল। তবে মেইন রুম রঙ হয়ে গেছে। এখন ডাইনিং এ রঙ করা হবে। তাই জিনিসপত্র বেডরুম দুইটাতে রাখা হয়েছে।

এই অদ্ভুত অবস্থাতে জামিলের আগমন দিলরুবাকে বিরক্ত করায় জামিল অবাক হল না। তাই কিছু বলার আগে জামিল বলল,

– আমি ডাইনিং ফ্লোরিং করে ঘুমাব। new sex panu

দিলরুবা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলল। তবে জামিল কষ্ট করে ঘুমাবে ভেবে প্রভা গাল ফুলাল। প্রভার বয়স কম, মাত্র সতের বছর। তাই জামিল অবাক হল না এই সামান্য বিষয়টাকে ইস্যু বানাতে। দিলরুবার সাথে খানিক ঝগড়া করেই শেষে রাগ করে চলে গেল প্রভা। দিলরুবা আর তেমন বেশি কথা না বলে জামিলকে ঘুমানোর জন্য বালিশ আর বিছানার কাঁথা ও চাদর দিয়ে চলে গেল। পাঁচ মিনিটের মধ্যে পুরো বাড়িটা অন্ধকার হয়ে গেল। জামিল শক্ত ফ্লোরে শুয়ে অবাক না হয়ে পারল না। ভেবেছিল আলেরচর থাকবে, অথচ ও কি না এখন পাশনাতে!

জামিল ঘুমিয়ে পড়েছিল। হঠাৎ ওর শরীরে কার যেন ধাক্কা অনুভব করে সে। ধরমরিয়ে উঠে পড়ে জামিল। ঠিক তখন অন্ধকারের অবয়ব দেখে বুঝতে পারে প্রভা। জামিল খুব অবাক হয়। ঘটনা কি? মোবাইলে তাকিয়ে দেখে প্রায় সাড়ে এগারটা। মাত্র পনের মিনিট হয়েছে ঘুমানোর। এরই মধ্যে সে ঘুমিয়ে গিয়েছিল। এদিকে প্রভা জামিলের হাত খামচে ধরে ফিসফিস করে বলে,

– জামিল ভাই, ছাদে চল! new sex panu

প্রভার কথা শুনে জামিলের সারা শরীরে কারেন্ট পাস হয়ে যায়। যেন নিষিদ্ধ কিছুর নিমন্ত্রণ দিচ্ছে জামিলকে। মিনিট খানেকেরও কম সময়ে ছাদে উঠা যায় জামিল আর প্রভা। আকাশে চাঁদ স্পষ্ট। ওর ছাদের পানির ট্যাংকির নিচে বসার জন্য তৈরি করা জায়গায় বসে। বেশ কিছুক্ষণ কেটে যায়। তারপর হঠাৎ প্রভা বলে,

– জামিল ভাই, তুমি কি আমাকে পছন্দ কর? না ঠিক পছন্দ নয়, মানে মেয়ে হিসেবে আমাকে তোমার কেমন লাগে?

প্রভার কন্ঠে এমন কিছু ছিল জামিল ওকে নিরাশ করতে চাইল না।

– তুই অনেক বাচাল একটা মেয়ে। কিন্তু তোর সাথে কথা বলতে দারুণ লাগে!

– সত্যি বলছ?

– হুম।

– আমি কিন্তু তোমাকে ভালবাসি। বুঝেছ? new sex panu

জামিল কোন উত্তর দেয় না। প্রভা বলে,

– তোমাকে উত্তর দিতে হবে না। তবে আমি তোমাকে ভালবাসি। কিন্তু তুমি হয়ত ভাববে তোমাকে বছরে একবারও দেখি না, ফোনেও কোনদিন কথা বলি না, তবে কি করে তোমাকে ভালবাসি? প্রশ্নটা তোমার মনে আসতেই পারে। আসলে আম্মা কেন জানি তোমাকে পছন্দ করে না। কারণটা আমি জানি না। তবে আমি বুঝতে পারি না তোমাকে কেন সে অপছন্দ করে। আম্মাকে কষ্ট দেয়ার ইচ্ছা হয় না দেখে তোমার সাথে যোগাযোগ রাখি না। তবে বিশ্বাস কর, আমি তোমাকে ঠিকই ভালবাসি। প্রচন্ড। আমার খুব ইচ্ছা তোমার আর আমার বিয়ের… কিন্তু আম্মা কোনদিনও রাজি হবে না।

প্রভা দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে। জামিল কোন উত্তর দেয় না। প্রভা মেয়ে হিসেবে ভাল। জামিল নিজে প্রভার প্রতি কোন আকর্ষণ অনুভব করে না। কিন্তু শবনমের খুব ইচ্ছা বোনের মেয়েকে ঘরে তোলার। তাই শবনমের মনের ইচ্ছাটা অতৃপ্ত থাকবে চিন্তা করে জামিলের সামান্য আফসোস হয়।

– জামিল ভাই, তুমি আমার হাত ধরে একটু ছাদে হাঁটবে?

প্রভা হাত বাড়িয়ে দেয়। চাঁদের আলোয় মেয়েটাকে নিরাশ করতে চায় না জামিল। সে প্রভার হাতটা ধরে ফেলে। ক্যাজুয়ালি ওরা ছাদে হাঁটাহাঁটি করে। জামিল অদ্ভুত অনুভব করে। new sex panu

– জামিল ভাই… আমাকে… একবার জড়িয়ে ধরবে?

কাঁপা কাঁপা গলায় বলে প্রভা। জামিল কি বলবে বুঝতে পারে না। ঠিক তখন পায়ের শব্দ পাওয়া যায়। হাত সরিয়ে নেয় জামিল। কিছুক্ষণ পর দিলরুবা এসে হাজির হয় ওদের সামনে।। জামিল ঢোক গিলে ভয়ে। যার ভয়ে ছিল সে-ই হাজির! জামিলের কেন যেন মনে হল টাইমিংটা বড্ড বেশি কাকতালীয়। দিলরুবা ভারী গলায় বলল,

– প্রভা, তুই ঘরে গিয়ে ঘুমা। সকালের আগে যেন তোর চেহারা না দেখি।

প্রভা একটাও কথা না বলে চলে গেল। জামিল অনুমান করল ওর সাথে দিলরুবা এখন হয়ত কিছু একটা করে বসবে। দিলরুবাই কথার শুরু করল,

– তুই আমার মেয়ের পিছনে লেগেছিস কেন?

– খালা, তুমি আমি দুইজনই জানি কথাটা মিথ্যা। প্রভাকে ছোটবোনের মতোই স্নেহ করতাম। কিন্তু প্রভাই…

– স্নেহ করতি? এখন করিস না? new sex panu

– দেখ খালা তোমার আর আম্মার মাঝে আমি কোন পার্থক্য দেখিনি। সেদিক দিয়ে চিন্তা করলে তুমি আমার মায়েরর চেয়েও কম না। তাই তোমাকে সরাসরি বলছি। তুমি নিশ্চিন্তে থাকো, তুমি অখুশি হও এমন কিছু করবো না। প্রভাকে যদি আম্মা আমার সাথে বিয়ের তোড়জোর না করত, তাহলে আমিও কোনদিন এ বিষয় নিয়ে ভাবতাম না।

– এখন ভাবিস তাহলে?

– তোমাকে সত্যি কথা বলব। কিছুদিনের মধ্যে দুইজনের প্রতি আমি আকৃষ্ট হই। মজার বিষয় কি জানো, দুইজনই আমাকে রিজেক্ট করেছে। বুঝতেই পারছ আমার মনের অবস্থা। আমি নিজে এখন কারো সাথে সেটেলড হবার কথা ভাবছি। সেইজন্য বুঝতেই পারছ, আজ রাত যখন প্রভা নিজেকে উপস্থাপনা করে আমি চাইলেও না করতে পারি নি। আমি আশা করি তুমি শুরু থেকেই ছিলে ছাদে, তাই আমি যে প্রভাকে এপ্রোচ করি নি, তা হয়ত তুমিও জানো।

– তবে তোর সাথে প্রভার বিয়ে আমি কোনদিন হতে দিবো না। new sex panu

– কেন খালা? আচ্ছা আমি তোমাকে কি করেছি ঠিক বল তো? আম্মার সাথেও মাঝে মাঝে তুমি কথা বলা বন্ধ করে দাও। আমাকে সহ্যই করতে পারো না। আমাদের বাড়িতে তো তুমি গত দশ বছরে একবার গেছ কি না সন্দেহ। আচ্ছা খালা, আমাদের এত ঘৃণা কর কেন? তোমার তো কোন ক্ষতি আমরা করি নি? আর আমাকেই কেন সবচেয়ে বেশি ঘৃণা কর খালা? কেন?

দিলরুবা কোন উত্তর দিল না। জামিল কিছু শোনার অপেক্ষায় থাকল। কিন্তু দিলরুবা কিছু বলছে না দেখে জামিল বলল,

– বিষয়টা খুবই মজার। আমার খুবই কষ্ট লাগে জীবনে খালা ফুফুর আদর না পেয়ে। ফুফুকে তো চিনই, তার কাছে কিছু আশা করাই বৃথা। কিন্তু তুমি ব্যতিক্রম ছিলে, অন্তত ফুফুর চেয়ে। আপা বলেছে তুমি নাকি তাকে প্রচুর আদর করতে, কিন্তু আমার বেলাতে সবকিছু কেন জানি উধাও হয়ে গেছে। আমি কত ভেবেছি তোমার সাথে কোন বেয়াদবি করেছি কি না নিজের অজান্তেই, কিন্তু খালা আমি কিছুই খুঁজে পাই নি। তাই আমার খুব কষ্ট লাগে। আম্মা বিয়েতে এসেছে তোমার সাথে দেখা করার জন্য। new sex panu

তুমি আমাদের বাড়িতে আস না দেখে আম্মাও তোমাদের বাড়িতে আসে না। আমি তো শেষবার এসেছিলাম কমপক্ষে তিন চার বছর আগে! তাই আম্মা যখন তোমাকে নিতে আমাকে পাঠাল, এত রাতে এতদূর আসতে হবে ভেবে বিরক্ত হলেও আমি মনে মনে খুবই খুশি হয়েছিলাম অনেকদিন পর তোমাকে আর প্রভাকে দেখবো বলে। কিন্তু জানো, তোমাকে প্রথম দেখাই বুঝতে পারি তুমি আমাকে দেখে একটুও খুশি হও নি। তুমি… তুমি বুঝতেও পারবে না তখন কতটা কষ্ট আমি পেয়েছিলাম। আমার আপন খালা… আমার মায়ের চেয়ে কম না… সে কি না আমাকে সহ্যই করতে পারে না!

জামিল চুপ হয়ে গেল। দিলরুবা কোন উত্তর দিচ্ছে না দেখে জামিল খুব কষ্ট পেল। রাত বেশ গভীর হচ্ছিল আর দিলরুবার দিকে তাকিয়ে জামিল কিছু শোনার আগ্রহে ছিল বলেই জামিল বিষয়টা ধরতে পেরেছে। দিলরুবা কাঁদছে। জামিল খুব অবাক হল। দিলরুবা কাঁদছে কেন? জামিল কিছু ভেবে পেল না। তবে দিলরুবাও কোন কথা বলল না, শুধু কেঁদে যাচ্ছিল। তারপর হঠাৎ ঘুরে কিছু না বলে চলে যেতে লাগল। জামিল দীর্ঘশ্বাস ছাড়ল। কিছুই বুঝতে পারছে না। ওর খালার দিকে তাকিয়ে থাকল অন্ধকারে। তখন দিলরুবার চিল্লি শুনল। প্রভা এতক্ষণ লুকিয়ে সব শুনছিল। দিলরুবা তাকে বকতে বকতে নিচে চলে গেল। new sex panu

জামিল খুব উদাসী হয়ে গেল। নিচে যাবে না বলে ঠিক করল। ছাদের বেঞ্চে সে শুয়ে পড়ল এবং খুব দ্রুত ঘুম এসে গেল।

 

 

(চলবে)

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

কেও এখনো ভোট দেয় নি

1 thought on “new sex panu আয়ামিলাইজড – পর্ব – 16 by আয়ামিল”

Leave a Comment