new erotic golpo মন – 2 by nandanadas

bangla new erotic golpo choti. আমি যে যে কারোর থেকে অনেক বেটার এই বিশ্বাস টা আমাকে দিয়েছিল আমার ছোড়দি। মাঝে মাঝে আমাকে সাজিয়েও দিত। বলত কি সুন্দরী আমার বোন টা। আমি রেগে খুলে দিতাম সব কিছু।, আর দিদি হাসত। আমাকে নিয়ে পড়াতে বসত। ওখানে ছাড় দিত না। নিজে ব্রিলিয়ান্ট ছাত্রী ছিল। আর আমাকেও বানিয়েছিল সেই ভাবেই। কিন্তু যেটা ছোড়দি পারত না সেটা আমি খুব ভালো করে পারতাম। সেটা হলো অন্যায় দেখলে ঝাঁপিয়ে পরা। তা সে বাড়িতেই হোক বা বাড়ির বাইরে।

মন – 1 by nandanadas

কম ছেলে মার খায় নি ওই সময়ে আমার হাতে। বাড়িতে কমপ্লেন কম আস্ত না। মোটামুটি রোজ সন্ধ্যে বেলায় আমার বাবার হাতে মার খাওয়া বাঁধা ছিল। মার ধর খেয়ে পড়তে বসতাম। আমি যখন ক্লাস সেভেন এ পড়ি, তখন আমার ছোড়দির মাধ্যমিক এর রেজাল্ট বেরোয়। দিদি পুরো জেলায় প্রথম হয়েছিল। পুরো রাজ্যেও একটা র‍্যাঙ্ক এসেছিল, কিন্তু সেটা আমাদের কাছে তেমন কোন ইম্পর্ট্যান্ট ছিল না। কারন আমার বাবার তেমন উৎসাহ ছিল না। আমাদের বাড়িতে তেমন কেউ কোনদিন পড়াশোনা করে নি। কাজেই কেউ জানত ও না বুঝতো ও না।

new erotic golpo

আমাদের বাড়ির মেয়েদের কাছে ঘরের কাজ শেখা টা বেশী গুরুত্বপূর্ণ ছিল, পড়াশোনা শেখার থেকেও। কিন্তু এর মধ্যে একটা ঘটনা ঘটল। আমি এক সন্ধ্যে বেলায় ফিরছিলাম খেলে ধুলে। বাড়ির পিছন দিকে ঢুকতাম। কারন আমার খেলা টা বাবার পছন্দ ছিল না। বড়দি, মেজদি, বলে দিত বাবাকে। তাই পিছন দিয়ে ঢুকতাম আমি। পিছনে একটা বড় পুকুর ছিল আমাদের। পুকুরের পাশে, দুই দিকে কলাবন আর আম গাছের বড় বাগান ছিল। লোকে ভয় পেত সেখানে। কিন্তু আমার অতো ভয় ডর ছিল না। আমি পিছন দিক থেকেই আসতাম। একদিন সন্ধ্যে বেলায় ফিরছি। অন্ধকার অন্ধকার ভাব হয়ে গেছে।

এমন অন্ধকার যে সামনে না এলে কাউকেই চেনা যাবে না। বাড়ি থেকে একটু দূরে মনে হলো কেউ একজন আছে। আমার হাতে আমি একটা ইটের টুকরো তুলে নিয়ে সটান হয়ে দাঁড়িয়ে গেলাম।
–     কে কে ওখানে।
কথা শেষ না হতেই, হাতের ইট টা বাঁই করে ছুঁড়ে দিয়েছি। উফ একটুর জন্য ফস্কে গেল। সাথে সাথেই আরেক তা ইট তুলে নিয়েছি। আমাকে ইট তুলতে দেখেই সে প্রায় চীৎকার করে উঠল। new erotic golpo

–     আরে আরে মারিস না। নান্দু, মারিস না রে আমি ললিত দা। কথা ছিল
–     অ্যাঁ? ললিত দা? মানে গ্যারেজ এর ললিত দা?
–     হ্যাঁ রে। মারিস না বোন আমার।
–     না না মারছি না

আমি ভেবে পেলাম না ললিত দা, কেন দাঁড়িয়ে আছে এখানে। আর আমার সাথেই বা কি দরকার? যতদুর জানি, ললিত দা ভালো ছেলে। নিজের কাজ করে। বাবা নেই। মা আছে বাড়িতে। সবাইকে সম্মান করে। অনেক ছেলেই আমার হাতে মার খেয়েছে। কিন্তু ললিত দা কে আমার পছন্দই হয়। এক দুবার তো ললিতদার সামনেই ললিত দার কাকার ছেলে কে মার ধোর করেছিলাম। আমি এগিয়ে যেতেই বলল ললিত দা… new erotic golpo

–     আমি এখানে তোর দিদির জন্য দাঁড়িয়ে আছি?
–     মানে?
–     মানে হলো, দ্যাখ তোর ছোড়দি মানে সুবর্না কে আমি পছন্দ করি। শুনলাম ওর জন্য ছেলে দেখছে। ওকে নাকি পড়াবে না তারা আর।
–     হুম। ঠিক ই শুনেছ। কিন্তু তোমাকে কে বলল? দিদি?
–     হ্যাঁ রে।

মনে মনে ভাবলাম দিদি ললিত দা কে বলেছে, এই কথা গুলো? মানে দিদিও পছন্দ করে ললিত দা কে? সত্যি তো।দিদির মতন ভাল মেয়ে এই তল্লাটে আসে নি। এদিকে ললিত দা বলে চলেছে

–     বল, ওর এতো ভাল কেরিয়ার। আমি ওকে পড়াব। যত দিন ও পড়তে চায়। ওকে বল আমাকে বিয়ে করতে।
–     কি? তুমি বিয়ে করবে? তুমি ও তো খুব একটা তেমন কিছু নউ যে ওকে দেখতে পারবে।
–     হয়ে যাবে রে। দিন রাত আমি খাটব। ওকে আর মা কে নিয়ে চলে যাব কলকাতায়। ও জীবনে প্রতিষ্ঠা পাবে না? এতো ভালো পড়াশোনায়? দ্যাখ তোর বাবা বিয়ের ঠিক না করলে ওকে আমি বলতাম ও না কথা গুল। new erotic golpo

আমি ভাবতেও পারছি না। ভালোবাসা কি বুঝিনি তখনো। কিন্তু ললিতদার চোখে আমি জানিনা কি দেখেছিলাম সেদিন। কিন্তু একেবারে ফিদা হয়ে গেছিলাম। ললিত দা বলেই চলেছে। আমি এতো কথা জীবনে ললিত দা কে বলতে শুনিনি।

–     ও বলছে, ওর যা হয় হোক। আমাকে নাকি ভাবতে হবে না। দ্যাখ আমি লেখা পড়া শিখিনি। আমি হয়ত তোর দিদির যোগ্য ও নই। কিন্তু এটা না করলে ওর জীবন টা যে নষ্ট হয়ে যাবে।

বাড়ি ঢুকলাম যখন তখন আমার মাথা ভোঁ ভোঁ করছে। যাই হোক আজকে বাবা আর মারে নি। হাত মুখ ধুয়ে পড়তে বসেছি দিদির কাছে। দিদি কুল। নিজের বই টা পড়ছে। চোখে চশমা টাও নেই। হাসি পেল আমার। আমি বাবা দিদি কেউ ই চশমা ছাড়া বিশেষ দেখতে পেতাম না। দিদি যে পড়ছে না, সে ব্যাপারে আমি নিশ্চিত ছিলাম। আমি জোরে জোরে পড়তে শুরু করলাম। দিদি অবাক হয়ে তাকালো। কারন আমি জীবনে জোরে জোরে পড়িনি। আমার দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে বলল…. new erotic golpo

–     ক্ষেপলি নাকি? – পরা থামিয়ে দিলাম। আমি চাইছিলাম দিদি আমার দিকে তাকাক।
–     আচ্ছা দি,
–     হুম কি?
–     বলছি ললিত দা ছেলে টা ভাল বল?

দিদি চমকে উঠল। আমার চোখের দিকে তাকিয়ে রইল। মনে হচ্ছিল যেন ভিতর টা শুদ্দু পড়ছে দিদি আমার। আমার দিদি মারাত্মক বুদ্ধিমতী। মনে মনে ভাবছি ইশ, কিছু একটা বলে ফেললাম, যেটা বলার দরকার ছিল না। দিদি কি রেগে গেল? দি কোন দিন ও আমার উপরে রাগে নি। কিন্তু রাগলেও, এটা দিদির জীবনের ব্যাপার। বলতে আমাকে হবেই। একটু কঠিন হয়েই বলল আমাকে.. new erotic golpo

–     কেন? ললিত দা র কথা কীসের পড়াশোনার সময়ে?
–     না বলছিলাম।
–     কেন বলবি কেন?
–     এমনি।
–     হুম ভালো ছেলে।

দিদির কথা উত্তরে মনে হলো দিদিও চাইছে ব্যাপার টা বলতে আমাকে। মানুষ কত অসহায় হলে এই সব কথা ছোট বোনের সাথে আলোচনা করে। আমি বলেই দিলাম

–     জানিস দি, আমার মনে হয়, ললিত দা মিথ্যে বলছে না। বিয়ে হলে তোর এটা তো নিশ্চিত, তোর জীবন টা আমার মায়ের মতন হয়ে যাবে। ছেলে না হলে বার বার তোকে বাচ্চা নিতে হবে। ততদিন অব্দি তোকে বাচ্চা নিতে হবে যতদিন না তুই বংশের প্রদীপ আনতে পারছিস। আর ওই লোক টা কে দেখেছি। অনেক বড় তোর থেকে। আর খুব অহংকার। নেহাত তুই সুন্দরী তাই। না হলে কি আর বিয়ে করত? আর ললিত দা কে দেখ, কি সুন্দর মার্জিত। new erotic golpo

দিদি হাঁ হয়ে তাকিয়ে রইল আমার দিকে। এই বয়সে আমার মধ্যে এতো খানি বিষ? দিদি কিছু বলতে যাচ্ছিল আমাকে রেগে মেগে। কিন্তু চুপ করে গেল। খুব মিনমিন করে বলল,

–     তাতে কি? বাবা দেখেছে পাত্র, মানে তোর দিদির খাওয়া পড়ার কোন ভাবনা থাকবে না তাই না?

ততক্ষনে কাকি আসাতে, আমরা আলোচনা বন্ধ রাখলাম। ওদিকে বড়দি এসেছে। বড়দির পাশে মেজদিও এসেছে। বড়দির প্রায় নয় বছর তখন বিয়ে হয়ে গেছিল। অর্জুন তখন আট বছরের ছেলে। মেজদির ও বিয়ে হয়েছে গেছিল তিন বছর মতন। বাবার দুই প্রিয় মেয়ে আসার কারনে, বাড়িতে ভালো মন্দ রান্না ও হয়েছে। সে হোক আমাদের ডাক সেই শেষ কালে আসবে। ওরা আসলে আমাদের সাথে বিশেষ কথা বার্তা বলে না। আমিও পছন্দ করি না ওই দুটো রাক্ষসীর সাথে কথা বলতে। ছোড়দি কথা বলে, কারন ছোড়দির স্বভাব টাই মিস্টি। new erotic golpo

আরেক জন কথা বলে ওই গ্রুপে আমার সাথে, সে হলো অর্জুন। এখন আট বছর। কিন্তু শুনেছি, ওর বুদ্ধি মামার বাড়ির মাসীদের মতন। পড়াশোনায় মারাত্মক তুখোর। কলকাতায় ইংরাজী স্কুল এ পরে এখন ক্লাস টু তে। রোজ ভোর বেলায় আমি জগিং এ বেরোই, আর দেখি ভদ্রলোক উঠে লাট্টু খেলছেন উঠোনে। আমাদের বাড়ী টা বিশাল। চারদিকে ঘর। তিনতলা বড় বাড়ী, আর মাঝে বিশাল উঠোন। কাজেই যে ঘর থেকেই বেরোন হয় , উঠোণ টা চোখে পরে।

কথা হয় রোজ ই। কিন্তু সেকথা থাক এখন। আসলে এতো স্মৃতি ভিড় করছে, কোন টা বলব আর কোণ টা বলব না বুঝতে পারছি না। সব একটার উপর একটা চেপে যাচ্ছে ঘাড়ে। যাই হোক রাতে খাসীর মাংশ হয়েছিল, দুই মেয়ের জন্য। আমরাও ভাগ পেলাম আরকি।

আমি মা কাকি আর দিদি মিলে যখন খেয়ে উঠলাম, তখন বেশ রাত। দিদি মা আর কাকি বাসন মাজছিল, আর আমি দাঁড়িয়েছিলাম। আমাকে কাকি আর দিদি কিছুতেই ওদের সাথে বাসন মাজতে দেয় না। তাই আমি পাশে দাঁড়িয়ে, কল টিপে দিতাম ওদের জলের জন্য। অনেক ছোট থেকেই এটা আমি করে আসছি। আগে থেকে গিয়ে বালতি তে জল ভরে রাখব বলে আজকে গিয়ে দেখছি, অর্জুন বাবু ওখানে দাঁড়িয়ে জল টিপছে। আমি দৌড়ে গেলাম। ওকে তুলে পাশে দাড় করিয়ে দিলাম। আর নিজে কল টিপতে শুরু করলাম.. new erotic golpo

–     কি অর্জুন বাবু? এতো রাত হলো ঘুমোন নি।
–     হিহি আমাকে আপনি বলছ কেন মিমি।
–     আমাকে মিমি বলতে তোকে কে শিখিয়েছে।
–     মনি
–     মনি টা আবার কে?

ততক্ষনে দেখলাম, মা কাকি আর ছোড়দি বাসন পত্র নিয়ে এদিকেই আসছে। অর্জুন ছোড়দির দিকে আঙ্গুল তুলতেই বুঝলাম, ছোড়দি শিখিয়েছে।

–     ও তা ঘুমোন নি যে?
–     ঘুম আসছিল না।
–     ও , কেন. new erotic golpo

উত্তর দিচ্ছে অর্জুন একেবারে বড়দের মতন

–     এমনি, মা কে বলেই এসেছি, দিদুন, কাম্মা আর তোমাদের কাছে থাকব বলে
–     বাবা, তোর মা আমাদের সাথে থাকতে তোকে ছেড়ে দিল?

ছোড়দি আমার মাথায় একটা টোকা দিল। আমি ঘুরে গেলাম ছোড়দির দিকে। বলল

–     ওর কি দোষ। ওকে বলছিস কেন? দেখছিস না এমন নিষ্পাপ মুখ ক জনের হয় বলত?

আমার মা ততক্ষণে, একটা কাপড় কোথা থেকে এনে অর্জুনের মাথায় চাপিয়ে দিল। হিম পরছে নাকি। মা পারেও। পুজো গেল না হিম পড়ছে?
যাই হোক রাতে দিদির পাশে শুয়ে দিদিকে বলেই দিলাম, দিদির কথার উত্তর টা।

–     দ্যাখ দিদি, এখানে হয়ত তুই খেতে পাবি, এটা নিশ্চিত, কিন্তু সারা জীবন মরে বাঁচবি। আমি তুই কেউ জানিনা, ললিত দা কত টা তোকে পড়াবে। কিন্তু এটা জানি, বাবার দেখা পাত্রে বিয়ে করলে , তুই আর কোন দিন ও পড়তে পারবি না। কি অহংকার লোক টার। new erotic golpo

দিদি আমার দিয়ে চেয়ে রইল। জড়িয়ে ধরে কেঁদে উঠল। আমিও দিদি কে জড়িয়ে ধরলাম। বলা ভাল আঁকড়ে ধরলাম। বুঝে গেলাম দিদি খুব অসহায়। বুঝে গেলাম আমাকেই যা করার করতে হবে।

বেল বাজতেই, দরজা খুললাম। ঝড়ের আগে এঁটো পাতের মতন মেয়ে আর ছেলে এসে হাজির। ওদের বাপ আসছে। তখন তিনজনে কম্পিটিশন হয় কে আগে দরজায় পৌঁছবে। ছেলেটা আরো সাংঘাতিক। এই বয়সেই, সব রকম গাড়ীর আওয়াজ ওর জানা। ও ঠিক বুঝে যায় যে ওর বাপের গাড়ি এল।

কাজেই আমি আর মেয়ে আসার অনেক আগে ও দরজার সামনে দাঁড়িয়ে থাকে আর তিড়িং বিরিং করে লাফায় বাপ আসার আনন্দে। বলা বাহুল্য, আমি সবার লেট এর পৌঁছাই। কেউ উপরের ছিটকিনি নাগাল পায় না বলে আমার জন্য অপেক্ষা করে। না হলে হয়ত দেখতাম, ওর বাপ ঘরে ঢুকে পড়েছে আমি জানতে পারার আগেই। new erotic golpo

ছেলে বাপ আর মেয়ে তে আদর হয়ে গেল। মা সবার পরে। ছেলে আর মেয়ে একটু দূরে যেতেই ও আমাকে টেনে ধরে চুমু খেল। আমি বড্ড ভালবাসি এটা। মুখে বলি বটে,

–     মেয়েটা বড় হচ্ছে না? কি যে কর না তুমি?
–     মানু???????

মানু কথা টা ও ছেলে মেয়ে দুজনাকেই বলে। অতএব মানু শুনে দুজনাই তাকাল এদিকে। আবার আমার কোমর ধরে আমাকে টেনে আবার চুমু খেল। চুমু খেয়েই পালাল ভিতরে। আমি কিল টা ছুড়লাম, কিন্তু আগেই ও পালাল।
আমি হাসি মুখে রান্না ঘরে গিয়ে গ্লাসে জল নিয়ে গেলাম ওর কাছে। দেখলাম জুতো খুলে পোশাক টা খুলছে। আমার হাত থেকে জল টা নিয়ে খেল। বললাম… new erotic golpo

–     চা খাবে শুধু, নাকি কিছু খাবে আরো?
–     আজকে রাতে কি রান্না?
–     রুটি, সব দিয়ে সব্জি, আর ডিম ভাজা।
–     তবে দুটি মুড়ি দাও।

ওই রকম ই ও। রাতের খাবার যুত না পেলে, সন্ধ্যে তে কিছু একটা খাবে। তারপরে সারা সন্ধ্যে টাই ছেলে মেয়ে কে খেলাধুলো চলল ওর।

রাতে তিনজনের কেউ ই আমার ছাড়া শোবে না। মানুষ তো আমি একটা। কি করে তিনভাগ হই। সেই জন্য যখন দুটো কে ঘুম পাড়াই, আমি শুই মাঝে। এক দিকে ছেলে আর এক দিকে মেয়ে। ছেলে টা এখনো বুকের দুধ ছাড়ে নি। বর তখন কাজ করে। ফোনে অনেক কথা চলে। মাঝে মাঝে লেট নাইট মিটিং এও ঢুকে পরে। আমাদের বাংলোর মধ্যেই ওর অফিস আছে। সেখানে অনেকে অপেক্ষা করে অনেক রাত অব্দি। ছেলে মেয়ে ঘুমিয়ে গেলে, মেয়েকে ছেলের ওদিকে দিয়ে দি। আর বর এসে আমার পাশে শুয়ে পরে। ওকে ছাড়া আমার ও ঘুম হয় না। new erotic golpo

অনেক দিন ছেলে মেয়েকে ঘুম পাড়াতে পাড়াতে, আমিও ঘুমিয়ে যাই। ঘুম ভেঙ্গে দেখি ও পাশে নেই। কারন ও চলে আসলে আমাকে তুলে দেয় ঘুম থেকে। দশ বছর বিয়ে হয়েছে আমাদের। এই দশ বছরে, প্রথম মাস ছয়েক বাদ দিলে, আমার পিরিয়ডের দিন ছাড়া, আর হয় তো কেউ নেই বাড়িতে, সেই রকম দিন ছাড়া, এমন কোন দিন নেই যেদিনে ও আমাকে সেক্স করে না। এটা আমাদের নিয়মিত। সেটাই ভাবি, যে মেয়ে একদিন, এই পুরুষ দের কেই ঘৃনা করত।

সে আজকে নিজের বর কে ছাড়া শুতেই পারে না। সেটাও দুই বাচ্ছার মা হবার পরে। এক ললিত দা আমাকে বুঝতে শিখিয়েছিল, সব পুরুষ, আমার বাবা নয়। সব পুরুষ আমার জামাইবাবু দের মতন না। কিছু মানুষ ললিত দা র মতন ও আছে।

আজকে ঘুম এলো না। আমার বর আমাদের তিনজনা কে চুমু খেয়ে নীচে গেল কাজ করতে। আহা কতই বা বয়েস, এই বয়সেই এত বড় দায়িত্ব ওর কাঁধে। আমি আবার ভাবতে লাগলাম। মেয়েটার মাথায় হাত দিয়ে আছি আর ছেলে টা তো বোঁটা মুখে নিয়ে পড়ে আছে। চোষে না। বা একটা মুখে অন্য টা হাতে। এই হলেই মহারাজ ঘুমিয়ে যাবেন। new erotic golpo

আমি তখনই ঠিক করে নিয়েছিলাম, ললিতদা র সাথে দিদি কে ভাগিয়ে দেব। যেদিন প্ল্যান টা হয়েছিল, তার আগে ললিত দা গ্যারাজ বিক্রি করে, মা কে নিয়ে কলকাতায় একটা বাসা ঠিক করে রেখে এসেছিল। দিদি না থাকলে আমি যে একেবারে একা হয়ে যাব এই নিয়ে কোন সন্দেহই ছিল না আমার। কিন্তু আমি জানতাম, আমার মতন মানসিক জোর দিদির নেই। আমি এদের মধ্যে থেকেও অনেক কিছু আদায় করে নিতে পারব। যেটা দিদি পারবে না।

আর আমাকে জোর করে বিয়ে দেওয়া অতো সহজ না। দিদিকে দেওয়া সহজ। দিদি সুখী মেয়ে। দিদির ব্যাপার টা খুব সরল। নিজে ভুল করবেও না আর ঝক্কিও নেবে না। তাই ও অতো চাপ নিতে পারবে না বলেই আমার বিশ্বাস ছিল। সেই বিশ্বাস যে অমূলক ছিল না তার পরিচয় আমি বহুবার পেয়েছি। কিন্তু আমার জীবনের মোক্ষম সময়ে দিদি আমার সাথে ছিল শেষ অব্দি। new erotic golpo

সেদিন রাতে সবাই ঘুমলে আমি আর দিদি পিছনের পুকুরের পাড় দিয়ে মেন রোডে এলাম। তখন দেখি, ললিত দা দাঁড়িয়ে আছে, একটা বন্ধুর সাইকেল নিয়ে। এতো রাতে তো বাস পাওয়া যাবে না। তাই সাইকেল এ করে প্রায় কুড়ি কিমি দূরে, সীমানাপুর । সেখান থেকে ট্রেন ধরবে, রাতের। শিয়ালদা পৌছবে ভোর নাগাদ। দিদি সাইকেল এ চড়ে বসতেই , যেন আমার জীবন টা খালি হয়ে গেল মনে হলো। মনে হলো, আমার জীবন থেকে হাসি খুশী সব সাইকেল এ চড়ে বিদায় নিচ্ছে।

মন কে শক্ত করলাম। এই সমাজ, আমার বাবা, আমার দিদিদের অত্যাচার সবার বিরুদ্ধে, এক সাথে আমার মন এমন বিদ্রোহ ঘোষণা করল যে আমি এক ফোঁটা কান্না কথা ভাবলাম ও না। বরং, গলার হার আর কানের দুটো নিয়ে এসেছিলাম সাথে করে, দিদির হাতে ধরিয়ে দিলাম। ললিত দা কে বললাম

–     যে গুল দিলাম দিদির হাতে, বিক্রি করতে পিছুপা হয়ো না।তোমাদের প্রয়োজনে লাগবে।  আমার দিদিকে পড়াশোনা করিও। আর খুব ভালো রেখ। যদি বেঁচে থাকি একদিন না একদিন দেখা হবেই।
ললিত দাও কেঁদে ফেলেছিল। বলেছিল

–     কথা দিলাম বোন। তোর দিদি কে নিজের প্রাণের থেকেও বেশী ভালোবাসব আমি। আর ও যতদুর পড়তে চায় আমি পড়াব। new erotic golpo

দাঁড়িয়েছিলাম আমি, যতক্ষন ওদের সাইকেল দেখা যায়। দাঁড়িয়ে ছিলাম, যতক্ষন সাইকেলের আওয়াজ শোনা যায়। বাড়িতে এসে দেখলাম মহাশূন্যতা। ঘরে ঢুকে দেখলাম, দুজনে শুতাম , একটা ছোট ঘর, কিন্তু যেন মনে হচ্ছে, কি বিশাল। সেদিন বুঝেছিলাম, একাকীত্বের মানে। বুঝেছিলাম, আনন্দের মানে। এতো শূন্যতা, এতো অন্ধকার?

রাতে ঘুম তো হয় নি। ভোরের দিকে ঘুমিয়ে গেছিলাম হয়ত। আমার ঘরে সহসা অনেক লোকের আওয়াজে ঘুম ভেঙ্গে গেল। দেখি বাবা, কাকা, ঠাকুমা, দাদু মা বড়দি মেজদি দাঁড়িয়ে। সেদিনে বড় জামাইবাবু ও এসেছিল। পছন্দ করতাম না লোক টা কে। মনে হতো, বড়দির গোলাম একেবারে। বাবার রাগ দেখে বুঝে গেছিলাম যে বাবা জেনে গেছে।

তারপরে চড়, থাপ্পড়, লাথি কিছুই বাদ গেলো না আমার। ভাগ্যিস ছোটো করে কাটা, ছেলেদের মতন চুল ছিল আমার। না হলে চুল মনে হয় সব উপড়ে ফেলত বাবা। পাড়া প্রতীবেশি জড়ো হয়ে গেল। উঠোনে আমার বিচার সভা চলল। আর আমার মা আর কাকি। কাকি তো তাও বাবার পায়ে ধরে- দাদা আর মারবেন না মেয়ে টা কে বলে কাঁদছিল। আর আমার মা ডুকরে ডুকরে কাঁদছিল আর জল ভরা চোখে দেখছিল আমার মার খাওয়া। আর কাকা। কোন কালেই বাবার মুখের উপড়ে কথা বলার সাধ্যি হয় নি কাকার। হয়ত নীরবে চোখের জল ফেলেছিল। new erotic golpo

এ কী চাট্টিখানি কথা? বাবার মুখ ছোট হলো না? বাবার ঠিক করা পাত্রের বাড়িতে বাবার কত খানি নাম বদনাম হলো। বাংলাদেশ থেকে ভিখারীর মতন আসা আমার বাবা, আজকে যে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে, আমি আর দিদি, সেই প্রতিষ্ঠার উপড়ে কলঙ্ক লেপে দিই নি? কিন্তু আমাকে টলাতে পারে কার সাধ্যি। মুখ তো খুলিনি, বরং মেজদির মুখের উপড়ে এক দলা থুতু ছিটিয়ে দিয়েছিলাম।

কারন, মেজদি ই বাবাকে বলে দিয়েছিল পুরো টা। কি করে জানতে পারল কে জানে? থুতু ছিটিয়ে দেবার পরে আমি আর দেখিনি কে কে আমাকে মেরেছে। শুধু বুঝছিলাম, আমার পিঠে বেল্ট পড়ছে নির্মম ভাবে। প্রথম মনে হয় আমি কাঁদলাম। বড্ড কস্ট হচ্ছিল আমার। অনেক গুলো বেল্টের মার পড়ার পরে, মনে হচ্ছিল অজ্ঞান হয়ে যাব। – মা গো!!!!! বলে চীৎকার করতেই আমার মা ছুটে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরেছিল।

মাঝে মাঝেই জ্ঞান ফিরছিল আমার। মুখ ফুলে গেছিল, অনবরত থাপ্পড় খেয়ে। পিঠ কেটে ফালা ফালা হয়ে গেছিল। ভাগ্যিস মিলিয়ে গেছে সেই সব আজকের দিনে। না হলে আমার বর টাই হয়তো আমার বাবাকে খুন করে ফেলত। জ্ঞান ফিরছিল আর যন্ত্রণায় আমি অজ্ঞান হয়ে যাচ্ছিলাম। চোখে ভাসছিল, আমার ছোড়দি অনেক বড় হয়েছে। new erotic golpo

অনেক বড় প্রোফেসর হয়েছে। আর যন্ত্রণা টা কমে যাচ্ছিল আমার। কাকির কোলে মাথা রেখে ছিলাম। ওঠে নি কাকি আমাকে ছেড়ে। সন্ধ্যে বেলায় বড়ই ঠান্ডা হাত পড়ল আমার গায়ে। মনে হলো আমার মা। ইচ্ছে করছিল মা কে জড়িয়ে ধরতে। কিন্তু এতো ব্যাথা যে আমার কথা বলার ক্ষমতা নেই তো উঠে জড়িয়ে ধরব।

পরে শুনেছিলাম, মা আর কাকিমা মিলে সেদিন রান্না ঘর ধর্মঘট করে দিয়েছিল। বাড়িতে জামাই, আর রান্না চাপবে না তাই হয় নাকি? তাই বাবা বাধ্য হয়ে ডাক্তার ডেকে আনিয়েছিল। অনেক ওষুধ পালা দিয়েছিল সেটাই স্বাভাবিক। দুটি খাবার ক্ষমতাও ছিল না আমার। অনেক রাত মনে হয় তখন। বা জানিনা কত রাত। বা রাত ও কিনা জানি না। চোখ তো খুলতেই পারছিলাম না। একটা কচি হাত আমার গালে, পিঠে ঘুরে বেরাচ্ছিল। new erotic golpo

আর ফোঁস ফোঁস করে কান্নার আওয়াজ আসছিল। এতো যন্ত্রণা শরীরে আমার। তাও ভালো লেগেছিল। যাক, পাঁকে পদ্মফুল ও ফোটে তবে? ওটা অর্জুন বাবু। সবার নজর এড়িয়ে আমাকে দেখতে এসেছে। কি জানি কিছু তো ছিল, অর্জুনের সেই কান্নায়, সেই স্পর্শে। মন টা ভালো হয়ে গেছিল আমার। ওকে ঘুরে দেখার সাধ্যি ছিল না আমার। কিন্তু ওর স্পর্শ বড্ড ভালো লাগছিল। মনে হচ্ছিল সব ব্যাথা, সব বেদনা আমার থেকে দূরে সরে যাচ্ছে।

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

কেও এখনো ভোট দেয় নি

1 thought on “new erotic golpo মন – 2 by nandanadas”

Leave a Comment