bangla chotti তুক -1 by naag.champa

bangla chotti. সহরের রাশি রাশি বহুতল ফ্ল্যাট বাড়ির মধ্যে একটির দোতলার বারান্দায় দাঁড়িয়ে চুল আঁচড়ানর পর চিরুনিতে জড়ানো ছেঁড়া চুলের নুটি পাকিয়ে নিচে ফেলে দিল মায়া। কিন্তু তার পরেই তার খেয়াল হল যে চুলের নুটিতে সে থুথু দেয়নি, সব সময় ওর দিদিমা তাই বলতেন।

আসলে ওর মন ছিল নিজের ওজনের দিকে, ভাবত যে ও মোটা হয়ে যাচ্ছে। যেমন আজ কালরে ১৯-২০ বয়েসি মেয়েদের মনে হয়। ওর দামি জিন্স আর টি শার্ট ফিট্‌ হবে না, সখিরা ওকে মোটা বলে খ্যাপাবে— ছেলেরাই বা কি বলবে, “অ্যাই মোটি?”

চুলের নুটি যাতে নিচের বাড়ির জাংলা দিয়ে ভিতরে পড়েছে কিনা দেখার জন্যে ঝুঁকে দেখে মায়া; ও দেখল ওর চুলের নুটি তুলর বিচির মত ভাসতে ভাসতে এগুচ্ছে একটা বয়স্ক লোকের দিকে ও বুঝতে পারল যে চুলের নুটি অই লোকটার গায়েই পড়বে, তাই উঁকি ঝুঁকি মারা ছেড়ে ও একটু অপরাধ বোধ নিয়ে সে পালায় ঘরের ভিতর।

bangla chotti

চুলের নুটি পড়ে লোকটার একেবারে মুখের উপর, সে মুখ তুলে তাকায় কিন্তু দেখেতে পায়ে না কাউকেই। কিন্তু চুলের নুটি হাতে নিয়ে সেই লোকটা বুঝতে পেরে গেল যে এটা একটি অল্প বয়সী মেয়েদের চুলের গুচ্ছ আরে এটি কোথা থেকে- কোন বাড়ির থেকে এসেছে সেটিও ঠিকঠাক আন্দাজ করে ফেলল… রাস্তায় পড়ে থাকা একটা কাগজের টুকরোতে ভালো করে সে মুড়ে নিল সেই মায়ার চুলের নুটি আর সেটিকে যত্ন করে নিজের পকেট এ রেখে এগিয়ে চলল|

মায়া এই ব্যাপারে কিছুই জানতে পারল না…

***

বেশ কয়েক মাস কেটে গেছে, চুলের নুটির ঘটনা মায়া ভুলে গেছে। তবে তার মন যেন চঞ্চল হয়ে উঠেছে, পড়া লেখায় সে হেলায় হারিয়েছে, বেশীর ভাগ সময় সে যেন ঘুমিয়েই থাকতে চায়। তার ওজোন কমে গেছে, সে খাওয়া দাওয়াও ঠিক করে করছে না।

প্রথমে দিদিমা এই লক্ষণ গুলকে উপেক্ষা করে, কারণ এই বয়েসে মেয়েরা প্রেমে পড়ে। এটা বোধ হয় একটা প্রেম রোগ! ছেলে যদি ভাল হয়, তো ক্ষতি কি?

দিদিমার চিন্তা দিন কে দিন বাড়তে থাকে। হটাত মেয়েটার কি যে হল? ওর যে মা’ও অনেক দিন আগে মারা গেছে আর বাবা ওকে দিদিমার আর অবিবাহিত মাসির কবলে ছেড়ে, নিজের কাজ আর কাজ ঘটিত ‘লিব ইন’ সম্পর্ক নিয়েই ব্যস্ত। bangla chotti

কিন্তু দিদিমার চিন্তা আরও বেড়ে যায় যখন তিনি বুঝতে পারেন যে মায়া অন্তর্বাস পোরতে খুব একটা আর ইচ্ছুক নয়। সে সব সময়েই যেন কিছু ভাবতে থাকে, নিজের মনে মৃদু মৃদু হাঁসতে থাকে। মাঝে মাঝে ডাকলে মাঝে মাঝে সাড়া দেয়না। কেমন যেন একটা ঘোরের মধ্যে থাকে।

এইরকম করে আরও কয়েক দিন কেটে যায়, মায়া আর কারুর সঙ্গে কোন কথা বলেনা। দিদিমার আর মাসির চিন্তা বেড়ে যায়।

“মায়া, তোর কি হয়েছে?”, জিগ্যেস করলে তারা একটাই উত্তর পায়

“কিছু না…”

আরও এক সপ্তাহ কেটে যায়, মায়া আর পড়তে যায় না শুধু বাড়িতেই বসে থাকে আর মাঝ রাতে মায়ার ঘর থেকে ভেসে আসে তার মিষ্টি হাঁসি।

শেষে দিদিমা আর মাসি ঠিক করেন যে পরের দিন সকালেই তারা মায়াকে এক মানসিক রোগের চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাবে।

সেই দিন রাতে দিদিমা আর মাসির ঘুম ভেঙ্গে যায়। তারা শুনতে পারছিল, মায়ার হাঁসি আর কোঁকানি। দুটোতেই যেন চরম কামুকতার ছাপ! bangla chotti

ওরা মায়ার ঘরে ঢুকে আলো জ্বালিয়ে দ্যাখে যে মায়া হাত পা ছড়িয়ে চিত হয়ে শুয়ে হাঁসছে আর কোঁকাচ্ছে; সে সম্পূর্ণ উলঙ্গ। ওর দেহ এমন ভাবে ঝাঁকুনি খাচ্ছে, যেন কোন অদৃশ্য শক্তি ওর যৌনসহবাস করছে।

ওরা ভয় পেয়ে গিয়ে মায়া কে জাগানোর বৃথা চেষ্টা করে শেষ কালে ভয়ে পেয়ে গিয়ে, ঈশ্বরের কে ডাকতে থাকে।

ব্যাস! অনেক হয়েছে।

কোন সন্দেহ নেই যে মায়া কোন ধরণের কুদৃষ্টির অধীনে পড়েছে। এর উপচার ডাক্তার কোরতে পারবে না… পারবে এক তান্ত্রিক যার নাম গোগা বাবা! ওনাকে খবরটা দিতেই হবে।

দিদিমা’র পরিচিতাদের মধ্যে একজন গোগা বাবার সন্ধান দিয়েছিল, দিদিমা ছিলেন ধার্মিক মহিলা তাই মাঝে মাঝে ওনার সাথে যোগাযোগ রাখতেন।

মনে হয় সেই জন্যেই একডাকে পরের দিন দুপুর বেলা চলে আসে গোগা বাবা। আশ্চর্য ব্যাপার, মায়া আজ অন্যান্য দিনের তুলনায় স্বাভাবিক ছিল। bangla chotti

মায়া কে ওনার সামনে নিয়ে আসা হল, মায়া দেখে যে গোগা বাবা নিজের চোগা খুলে বেশ আরামে মাটিতে একটা আসন পেতে বসে আছে। পরনে একটা লাল রঙের ল্যাঙট ছাড়া আর কিছুই নেই। ওর গায়ের রঙ কাল, সারা গা ভরতি লোম, মাতার চাঁদিতে তাক তবে আসে পাশে সাদা চুল কেমন যেন খাড়া খাড়া হয়ে আছে আর মুখে ছাপ দাড়িটা গলা অবধি নেমে এসেছে। তার হাতে আর গলায় রুদ্রাক্ষের মত কি যেন এক ধরনের জিনিশের মালা পরা। ওর শরীর ছিল পেশীবহুল যদিও ওর বয়েস এখন প্রায় ৫৫ র কাছাকাছি।

মায়া কে দেখেই গোগা বাবা বলে, “আহা, এই ফুলের মত সুন্দর মেয়েটার কি বিপদ ঘটেছে? আমাকে সব বিস্তার করে বল।”

দিদি মা আর মাসি পালা করে করে, এই কদিন যাবত মায়ার আচরণ সম্বন্ধে সব বর্ণনা দেয়। আর সেই দিন রাত্রের কথা বলতে বলতে, দু জনেই কেনে ফেলে। মায়া এতক্ষণ চুপ করে বসে ছিল। ওর এইসব কিছুই মনে নেই, ও যেন আশ্চর্য হয়ে সব শুনছিল।

“ত তোর কি এই সব কিছুই মনে নেই, মায়া?”

“আজ্ঞে না বাবা, আমার কিছুই মনে নেই, আমার শুধু যেন একটা স্থায়ী মাথা মাতা ব্যথা আর আমি যেন কোন কাজে মন যোগ দিতে পারি না।” bangla chotti

“ঠিক আছে, নিজের হাত দুটি বাড়া দেখি…”, বলে গোগা বাবা মায়ার হাত ধরে চোখ বুঝে যেন ধ্যান করল, তারপর মায়া কে কাছে ডেকে ওর দুই কাঁধে হাত রাখল, তারপর মায়া মাথা দু হাতে ধরে হেঁট করিয়েও ধ্যান করল। গোগা বাবার গা থেকে একটা সুন্দর গন্ধ পেল মায়া, কর্পূর আর ধুনোর একটা সঠিক মিশ্রণ, মায়ার নজরে গোগা বাবার ল্যাঙট এড়াল না, ঢাকা থাকা সত্যেও, সুপ্ত লিঙ্গ এবং অণ্ডকোষের আকৃতি মায়া স্পষ্ট বুঝতে পারলো।

ওর ভিতরটা কেমন যেন করে উঠলো, বন্ধুদের সঙ্গে দেখা একটি ব্লু ফিলমের কয়েটি দৃশ্যের ঝলক ওর মনে ফুটে উঠলো। তাতে একটা নিগ্রো লোক একটা ফর্শা মেয়ের সঙ্গে যেন এক আসুরিক যৌনমিলনে জড়িত ছিল… হটাত মায়ার মনে হয় নিগ্রোর মুখটা বদলে গিয়ে যেন গোগা বাবার মত হয়ে উঠেছে আর সে নিজের প্রতিচ্ছবিটাও দেখল, যেমন তার দিদিমা আর মাসি বর্ণনা করেছিলেন… ওর হাত পা ছড়ান সম্পূর্ণ উলঙ্গ দেহ চরম রতিক্রিয়া ঝাঁকুনি ধামসান হচ্ছে … কিরকম যেন চমকে উঠলো মায়া। bangla chotti

গোগা বাবার ধ্যানও ভঙ্গ হল, “মনে হচ্ছে, এই পূর্ণ পুষ্পিত মেয়েটার উপরে কোন বদ আত্মার দৃষ্টি পড়েছে।”

সবাই আঁতকে উঠলো, গোগা বাবা বলতে থাকল, “আমার যা ধারনা… এই বিপদ দূর না করলে, এই বদ আত্মাটা, ধীরে ধীরে মায়ার মন, শরীর আর তারপর আত্মা কে ও গ্রাস করবে।”

“এর কি উপায় আছে… বলুন না, বাবা…”, দিদিমা নিদারুন ভাবে জিগ্যেস করে।

“এর উপায় আছে, এর জন্যে আমাকে একটি যজ্ঞ কোরতে হবে যাতে এই দুরাত্মা কে খেদানো হবে। এর জন্যে আমার কিছু জিনস দরকার… সেটি আমি লিখে দেব… আর লাগবে নগদ ১০,০০০ টাকা… আপনি এই সবগুলি মায়ার হাতে আমার গ্রামের আশ্রমে পাঠিয়ে দেবেন। আর হ্যাঁ মায়া যেন একা আসে, আপনারা কেউ ওর সঙ্গে থাকলে চলবে না…”

“এ আপনি কি বলছেন গোগা বাবা, একটা এত বড় মেয়েকে কি করে আমরা গ্রাম অবধি একা ছাড়বো?”, মাসি ব্যাকুল হয়ে ওঠে।

“আপনাদের চিন্তা আমি বুঝতে পারছি”, গোগা বাবা বলে, “কিন্তু যজ্ঞ এবং পূজা বিধিতে শুধু যে ভুক্ত ভুগি তাকে ছাড়া কাউকে থাকতে নেই। তবে আমি কথা দিচ্ছি, আপনি যেদিন সকালে মেয়েকে পাঠাবেন তার পরের দিন মেয়েকে সুস্থ অবস্থায় ফিরে পাবেন।” bangla chotti

অবশেষে মাসী এবং দিদিমা অনিচ্ছায় তার প্রস্তাব রাজি হন। কারণ মায়ার উপরে অশুভ প্রভাবটা যে দূর করতেই হবে, না হলে সে এক অশরীরী দুরাত্মার দ্বারা শোষিত হতে থাকবে। মায়ার সামনে আছে এখন এক বিরাট ভবিষ্যৎ। সেটা একেবারে নাশ হয়ে যাবে।

মায়াও কোন আপত্তি করেনা। গোগা বাবার স্পর্শ আর গায়ের মাদকিয় গন্ধ পাবার পর থেকে সে একটু জিজ্ঞাসু এবং আবেগপূর্ণ হয়ে উঠেছিল… এটা কি সেই বদ আত্মার প্রভাব যেটা নাকি তাকে কবলিত করছে?

মায়া ঠিক করল সে গোগা বাবার আশ্রমে একাই যাবে।

সে দিন ভোরের ট্রেন ধরে, মায়া গ্রামের দিকে রওনা দেয়। যেহেতু সে পূর্ণ শ্রীবৃদ্ধিলাভ করা প্রজননের বয়সী এক তরুণী, সে মহিলা কামরাতেই ওঠে।
তার সঙ্গে থাকে একটি ব্যাগ যার মধ্যে গোগা বাবার বলে দেওয়া সামগ্রী, একটি লাল তাঁতের শাড়ি আর থাকে মায়ার নিজস্ব তেল, সাবান, চিরুনি, মেক আপ ইত্যাদি। গ্রাম ছিল সহর থেকে, একটু দূরে। ট্রেনে প্রায় আড়াই ঘণ্টা লাগে।

সেই নতুন এক বিদঘুটে অভ্যাস অনুযায়ী আজও ব্রা পরে নি মায়া, তার সুডৌল সুগঠিত স্তন জোড়া তার প্রতিটি নড়াচড়ায় আর ট্রেনের দোলায় কম্পিত হয়ে উঠছিল। bangla chotti

মাঝে একটু ঝিমিয়ে পড়ে মায়া আর তার স্বপ্নে ভেসে উঠে, সেই ব্লু ফিল্মের দৃশ্য গুলি, এবারে ও যেন আরও স্পষ্ট ভাবে দেখে যে, গোগা বাবাই একটা মেয়েকে যৌন সুখ দেওয়ায় জন্য মগ্ন; আর মেয়েটা আর কেউ নয় মায়া নিজে…

“চা… গরম চা…”

ঘুম ভেঙ্গে যায় মায়ার। ট্রেন তখন একটা মধ্যবর্তী ষ্টেশনে দাঁড়িয়ে। চা কিনে খেতে খেতে, মায়া পাসের এক বয়স্ক মহিলা কে জিজ্ঞেস করে যে তার (মায়ার) গন্তব্য গ্রাম আর কত দূর।

মহিলাটি বোধহয়য় এই পথের একটি নিত্যযাত্রী, তাই সে সঠিক ভাবে জানিয়ে দেয় যে আর আধ ঘণ্টার মধ্যেই ট্রেন মায়ার গন্তব্যে পৌঁছবে।
কথায় কথায় মহিলাটি মায়াকে জিজ্ঞেস করে, “তুমি কি মা হতে চলেছ?… ক’মাসের পেট তোমার?… যদিও এখনো কিছু বোঝা যাচ্ছেনা ।”
মায়া আঁতকে উঠে আর একটা অপ্রস্তুতির মধ্যে পড়ে যায় আর বলে, “না না, আমার পেট হয়েনি… আপনি এ কথা বলছেন কেন?”
মহিলাটিও যেন একটু লজ্জিত বোধ করে “ওহো না না, মানে… তোমার মাইয়ের বোঁটা দুটি একেবারে দৃঢ় হয়ে রয়েছে… আঁচলে ঢাকা থাকলেও বোঝা যাচ্ছে… তাই একটু জিজ্ঞেস করলাম… কিছু মনে করনা…” bangla chotti

মায়ার চিন্তা হয়, তাহলে কি সে কোন বড় ভৌতিক চক্রান্তের মধ্যে পড়েছে? কয়েকটা ইঙ্গরাজি সিনেমাতে সে দেখেছিল যে শয়তানী শক্তি অথবা লীলায় মেয়েরা গর্ভবতী হয়ে যায়ে… তাহলে কি…?

অব শেষে এসে পৌঁছোয় গোগা বাবার গ্রামে। কথা মত গোগা বাবা ষ্টেশনে উপস্থিত ছিলেন মায়াকে আশ্রম অবধি নিয়ে যাওয়ার জন্য।

***

মায়া কে নিয়ে গোগা বাবা নিজের আশ্রমে পৌঁছোয়ে। আশ্রমটি ছিল একটি কুটির, যাতে ছিল দুটি ঘর, বাইরে উঠনে জায়গা ঘিরে রান্না করার যায়গা আর স্নান করার যায়গা।

গোগা বাবা যেন মায়ার মনের কথা বুঝে নেন, “মায়া, আমি ত পুরুষ মানুষ তাই আমি পুকুরেই স্নান করি। তোমার স্নানের জন্যে এই যায়গাটা ব্যবহার কোরতে পার। তার আগে তোমাকে ঠিক বাড়ির মেয়েমানুষের মত ঘর ঝাঁট দিতে হবে, তার পর স্নান করে, ঐ তাঁতের শাড়ি পরে … শুধু শাড়ি আর কিছু না… এক বেলার খিচুড়ি ভোগ রান্না কোরতে হবে।

সেই ভোগ অর্পণ করার পর আমরা খেয়ে নেব আর তারপর আমরা যজ্ঞে বসব। যজ্ঞ শুরু হবে সূর্য ডোবার পর… আর হ্যাঁ যজ্ঞের আগে তুমি আরেকবার স্নান করে এস তার পর নিজের চুল আর বেঁধো না।”
“আজ্ঞে হ্যাঁ, বাবা” মায়া বিনীত ভাবে বলে। bangla chotti

“আর হ্যাঁ মায়া, আমার বাড়ির বাইরে ঘরে বলতে গেলে কিছুই নেই, কিন্তু ভিতরের ঘরে অনেক কিছু আছে। আমাকে না জিজ্ঞেস করে কিছুই ঘেঁটো না ।”

“আজ্ঞে হ্যাঁ, বাবা”, বলে মায়া গোগা বাবার কথা মত, সারা ঘর ঝাঁট দিতে আরম্ভ করে।

বাইরে ঘরে মেঝেতে পাতা বিছানা ছাড়া, ছিল দুটি লণ্ঠন আর একটি বড় আয়না, মায়া সেগুলি সযত্নে সরিয়ে ঝাঁট দিয়ে ঘরটার থেকে মাকড়সার ঝুল গুলোও, পরিষ্কার করে দেয়। এইবার সে সেঁকল খুলে ভিতরের ঘরে ঢকে। ঢুকতে না ঢুকতেই মায়ার গা ছমছম কোরতে থাকে। ঘরটা অন্ধকার, মায়া দেখে যে জাংলা গুলো এঁটে বন্ধ। মায়া খুলতে চেষ্টা করে কিন্তু সে পারে না।

মায়া ঝাঁট দিতে থাকে, হতাৎ ওর নজর পড়ে মাটীতে পাতা আরেকটা বিছানাতে; তাতে কি যেন একটা ঢেকে রাখা আছে। মায়া ভাল করে লক্ষ করে দেখে যে চাদরের ঢাকার ভিতর থেকে যেন কোন এক নারীর চুল বেরিয়ে রয়েছে।

সে কৌতূহল বসত চাদরটা তুলে দেখে, আর প্রায় ভয় চীৎকার করে ওঠে। কারণ চাদরের তলায় ছিল একটি মহিলার পূর্ণায়ত প্রতিকৃতি লম্বা চুল স্তনের আকৃতির মত ঢিপি সঙ্গে সম্পূর্ণ, মুখ এবং যোনির যায়গাটা ছেঁদা করা। আর তার উপর বীভৎস ভাবে গাঢ় লাল কালি দিয়ে মোটা করে চোখ, মুখ আর নাক আঁকা। bangla chotti

তাড়াতাড়ি চাদর ঢেকে দিয়ে, ঝাঁট শেষ করে বেরিয়ে আসে মায়া, সে সোজা স্নান কোরতে ঢোকে। সে দেখে স্নান করার যায়গা একটা চৌবাচ্চাও রয়েছে, তাতে জল ভরা। একটা মগ আছে।

মায়া দেখে, উপরে খোলা আকাশ, গ্রামের আবহাত্তয়া, সুন্দর বাতাস আর বাঁশের কঞ্চি দিয়ে আড়াল করা স্নানাগার। কঞ্চির ফাঁক দিয়ে ভিতর বাহীর সব দেখা যায়।

মায়া ভাবছিল সে কিটা সায়াটা বুকের উপর বেঁধে স্নান করবে কিনা। সে ভাবে ওর বুক থেকে জাং অবধি ঢাকা থাকবে, কিন্তু তক্ষণই মায়া শুনতে পায় গোগা বাবার কণ্ঠস্বর, “মায়া, এখানে দেখার কেউ নেই। তুমি লজ্জা পেও না বাসি কাপড় ছেড়ে তুমি উলঙ্গ হয়েই স্নান করো, তার পর তাঁতের শাড়ীটা পোরে নিও।”

মায়া ভাবল, গোগা বাবা কি মনোভাব বুঝতে পারে?

যাই হক, সে তখন নিজের বাসি কাপড় বেড়ার উপরে ঝুলিয়ে রেখে, উলঙ্গ হয়েই স্নান কোরতে আরম্ভ করে। খোলামেলা আকাশের তলায় উলঙ্গ হয়ে স্নান করার এটা একাটা প্রথম অভিজ্ঞতা মায়ার। সে এটি আনন্দের সাথে উপভোগ করে। bangla chotti

ইতিমধ্যে দুই মহিলা এসে উপস্থিত হয়। তাদের মধ্যে একটি বয়স্ক আর একটি বোধ হয় মায়ার বয়েসি।

“বাবা আপনি বলেছিলেন সকালে আসতে… বলি আমার মেয়ের জন্যে যে মাদুলিটা আপনি দেবেন বলেছিলেন, সেটি কি তৈরি আছে?”, বয়স্ক মহিলাটি বলে।

“হ্যাঁ, একটু দাঁড়াও…”, বলে গোগা বাবা ঘরে ঢুকে যায়।

মায়া স্নান কোরতে কোরতে বুঝতে পারে যে মহিলা দুটি চাপা স্বরে কিছু আলোচনা করছে, আলোচনার বিশয় হল স্বয়ং মায়া’ই তাতে সন্দেহ নেই।
তাবিজ নিয়ে গোগা বাবা বেরিয়ে আসে, “এই নাও… তোমার তাবিজ।”

মাথা হেঁট করে ঐ মহিলারা তাবিজটা নেয়, আর তার দক্ষিণা তারা গোগা বাবার হাতে তুলে দেয়।

বয়স্ক মহিলাটা বিদায় নেবার আগে জিজ্ঞেস করে, “বলি বাবা, যদি কিছু মনে না করেন তাহলে একটা কথা বলি?”

“বল…”

“আপনার বাড়িতে মনে হয়, একটি মেয়েমানুষ ল্যাংটো হয়ে স্নান করছে… উনি কে?” bangla chotti

গোগা দৃঢ় স্বরে বলে, “আমার স্নানাগারে উঁকি ঝুঁকি মারার তোমাদের কোন প্রয়োজন নেই… তবে যখন যানতেই চাও তাহলে শোন; ঐ ল্যাংটো মেয়েটি আমার আশ্রিতা… কোন বেশ্যা নয়, আমি যদি প্রয়োজন বোধ করি তাহলে ওকে আমি দীক্ষাও দেব… দীক্ষা নেবার সময় আমার সামনে ওকে এলো চুলে উলঙ্গ হয়ে থাকতে হবে। কিন্তু একটা কথা মনে রাখ, আমার আশ্রিতার অপমান… আমার অপমান, এটা ভুলে যেও না।”

দুই মহিলা ভয় পেয়ে গিয়ে, বাবার পায়ে পড়ে, “অপরাধ নেবেন না বাবা, পায়ে পড়ি…।”

মায়া’ও স্নানাগার থেকে তাঁতের শাড়ি পড়ে, চুল মুছতে মুছতে এক গম্ভীর মুখ-মুদ্রা নিয়ে বেরিয়ে আসে। মহিলা দুটি ভাবতেও পারেনি যে মায়া এত অল্প বয়েসি হবে।

তারা দৌড়ে গিয়ে মায়ার পায়ে পড়ে, “মা… মা গো, ক্ষমা করে দিও মা… আমরা নির্বোধ… ”

“বাবা?”, মায়া গোগা বাবার দিকে তাকায়।

“তোমরা বেরিয়ে যাও…”, গোগা আদেশ করে।

দুজনে প্রায় দৌড়ে পালায়। bangla chotti

“মায়া,বিলম্ব করো না, রান্না বাকি আছে চুল আঁচড়ে একটি খোঁপা বেঁধে নাও ভোগে চুল পড়তে নেই, পূজা আর যজ্ঞের আয়োজন বাকি…”

“হ্যাঁ বাবা”

“তার আগে সাড়ির আঁচলটা ঠিক করো, তোমার একটি স্তন নাঙ্গ।”

মায়া অপ্রস্তুতে পড়ে আঁচল ঠিক করে, তবে গোগা বাবার প্রতি ওর সম্মান আরও বেড়ে যায়।

রান্না হয়ে যাবার পর যজ্ঞের আয়োজন কোরতে হবে, কিন্তু যজ্ঞে কি কোরতে হবে? গোগা বাবা এটা কেন বলল যে প্রয়োজন মনে করলে সে দীক্ষা দেবে?

এই সব ভাবতে ভাবতে মায়া রান্না কোরতে থাকে। আজকের বিকেল আর রাতটা তার পক্ষে খুবই গুরুত্ব পূর্ণ।

লম্পট দাদার বায়না

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল / 5. মোট ভোটঃ

কেও এখনো ভোট দেয় নি

Leave a Comment